বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কুয়েতে কারাবন্দি এমপি পাপুলের মানব পাচার করে উপার্জন ৩৮ কোটি টাকা, লেনদেন সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার বেশি। সিআইডি ও দুদকের তদন্তে দেখা যায়, এই টাকার বেশির ভাগই লেনদেন হয়েছে ৫ শতাধিক ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে।

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও অর্থপাচারের অভিযোগে দুদকের মামলার এক মাস পর এমপি পাপুল দম্পতির ৮টি ব্যাংকের ৬১৩টি ব্যাংক হিসাব ও সম্পদ স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুদক। এর সিদ্ধান্তের মাধ্যমে আইনি প্রক্রিয়া শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনো সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব হস্তান্তর, রূপান্তর করতে পারবে না পাপুল পরিবার।

গত ১১ নভেম্বরে লক্ষ্মীপুর দুই আসনের এমপি শহিদ ইসলাম পাপুল তার স্ত্রীসহ চারজনের বিরুদ্ধে অর্থপাচার ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে মামলা করে দুদক। এমপি পাপুলের মেয়ে ওয়াফা ইসলাম, শ্যালিকা জেসমিন আক্তারকে ১৪৮ কোটি টাকার অবৈধ লেনদেন এবং প্রায় ২ কোটি ৩১ লাখ টাকার সম্পত্তি গোপন করার অভিযোগে আসামি করা হয়।

এক মাস পর অনুসন্ধানে পাওয়া এমপি পাপুল, তার স্ত্রী, শ্যালিকা ও মেয়ের মোট ৮টি ব্যাংকের ৬১৩টি ব্যাংক হিসাব স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। একই সঙ্গে তাদের নামের দেশের বিভিন্ন স্থানের মোট ৩০ দশমিক ২৭ একর জমি ও গুলশানের ফ্ল্যাটও সংযুক্ত হবে। এ সিদ্ধান্তের মাধ্যমে এখন থেকে এসব সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব হস্তান্তর, রূপান্তর, বা ব্যবহার করতে পারবে না পাপুল পরিবার।

এদিকে গত কয়েক বছরে মানব পাচারের মাধ্যমে লক্ষ্মীপুর ২ আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম পাপুল ৩৮ কোটি টাকা উপার্জন করেছেন। তার পরিবারের সদস্যদের ১৩টি ব্যাংকে ৫২৬টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও এফডিআরে সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেনের তথ্য পেয়েছে বলে জানিয়েছে সিআইডি।

সিআইডি প্রধান ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান বলেন, তদন্ত শেষ করতে আমাদের বেশি সময় লাগবে না। তার যে অবৈধ সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব রয়েছে সেগুলো আমরা সিস করার জন্য আদালতে আবেদন করেছি। আশা করছি, অচিরেই আদালত এই আবেদনটি বিবেচনা করবে।

সম্প্রতি মানব পাচারের অভিযোগে কুয়েতে গ্রেফতার সংসদ সদস্য কাজী শহিদ ইসলাম পাপুল এবং তার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে সিআইডির অর্থপাচারের অভিযোগে মামলা করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। লক্ষ্মীপুর দুই আসনের সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুলের বিরুদ্ধে আগামী ২৮ জানুয়ারি কুয়েতের আদালতে রায় হওয়ার কথা রয়েছে।

এদিকে অবৈধ সম্পদ অর্জন ও গোল্ডেন মনির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে রাজউকের পরিচালক শেখ শাহিনুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন।