বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পরিচিত কিংবা অপরিচিত, কোনো নারী বা পুরুষের ছবি আর জাতীয় পরিচয়পত্র হলেই ফাঁসানো যায় ভুয়া কাবিনের ফাঁদে। কথিত কোর্ট ম্যারেজে ফেঁসে এরইমধ্যে সম্মান ও অর্থ খুইয়েছেন অনেকে। এছাড়া বিয়ের ফাঁদে পড়ে সর্বশান্ত হয়েছেন অনেক ভুক্তভোগী। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সাবধানতা ও যাচাই-বাছাই ছাড়া সম্পর্ক ও বিয়ে করার কোনো বিকল্প নেই।

চেনা নাই জানা নাই শুধুমাত্র তার ছবি ও জাতীয়পরিচয় থাকলেই কি তাকে বিয়ে করা যায়? একজন নারীর ছবি ও এন আইডি কার্ড নিয়ে ঢাকার আদালত চত্বরে সময় সংবাদ। করতে চাই কথিত কোর্ট ম্যারেজ। কথা বলি আইনজীবী পরিচয় দেয়া ৫ জনের সঙ্গে।

এরমধ্যে ৩ জন আইনজীবী পাত্রীর উপস্থিতি ও স্বাক্ষর ছাড়াই কথিত কোর্ট ম্যারেজ করে দেয়ার কথা বললেন।

ওই আইনজীবী বলেন, তোমার ছবি ওর ছবি লাগবে। ঐটা দিবা। দু’জনের ভোটার আইডি কার্ড দিবা। ওই অনুসারে আমরা লিখবো। উনার স্থায়ী ঠিকানা যা আছে ওই অনুসারে লিখবো এবং কতটাকা কাবিন হবে সেটাও লিখতে হবে।

সিভিল, ফৌজদারিসহ বিভিন্ন আইন বিষয়ে পারদর্শী দাবি করা এই আইনজীবী দিলেন বিষ্ময়কর উপদেশ। তিনি জানান, একজন নারীকে দেখিয়ে অন্য আরেকজনকে বিয়ে করার পরামর্শ।

আইনজীবী জানান, মেয়ে আছে সংগ্রহে। মানে তার ছবি লগে মোটামুটি মিলে তোমার পরিচিত বন্ধু বান্ধবদেরে মধ্যে। তাহলে সে নাম ঠিকানা ঐটায় কইবো, সিগনেচার ঐটায় কাজী সামনে করলো। এ ব্যাপারে জানবে শুধু তুমি আর আমি।

এমনকি ভুয়া কাজীর মাধ্যমে বিয়ের ফাঁদে পড়ে সর্বস্ব খুইয়েছেন অনেক নারী-পুরুষ।

ভুক্তভোগী এক নারী জানান, দুইমাস সংসার করেছি। এক সাথে থেকেছি। হঠাৎ করে সে আমাকে অস্বীকার করে। পরে জানতে পারি কাজী-কাবিন সবই ভুয়া।

আইনজীবীরা বলছেন, যে কোন সম্পর্কে জড়ানোর আগে সাবধান হতে হবে সবাইকে।

মানবাধিকার কর্মী ব্যারিস্টার মিতি সানজানা বলেন, কোর্ট ম্যারেজ বলে আইনে কিছুই নেই। এটি সম্পূর্ণ ভ্রান্ত ধারণা। আইন অনুযায়ী প্রতিটি বিয়ের ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন অত্যাবশ্যক। কাজী অফিসে গিয়ে নিবন্ধন করতে হয় সেটিই প্রামাণ্যদলিল।

কোর্ট ম্যারেজ নিয়ে বিভ্রান্তি দূর করা এবং বিবাহ নিবন্ধন ব্যবস্থাকে আধুনিকায়ন করারও পরামর্শ দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।