মো.ওসমান গনি: বর্তমানে বেকার সমস্যা মনে হয় বাংলাদেশে জাতীয় সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে।আর এ বেকার সমস্যার কারনে একদিকে যেমন দেশে বাড়ছে দেশের আইনশৃংখলার চরম অবনতি অপরদিকে বাড়ছে মাদকের অবাদ ব্যবহার।আইনশৃংখলার চরম অবনতির পিছনে মূলকারন হলো বেকার সমস্যা।বেকার জীবনের অবসান ঘটাতে গিয়ে বেকার লোকজন বিভিন্ন অসামাজিক কাজে নিজেদের কে জড়িয়ে ফেলে।বিভিন্ন সময়ে দেশের অপরাধমূলক কাজে গ্রেফতারকৃত লোকজনের পিছনের ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় তাদের অনেকেই উচ্চশিক্ষিত।তাদের কোন চাকরি নাই।টাকাপয়সা রোজগারের জন্য তারা অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে গেছে।কারন তারা যখন লেখাপড়া করছে তখন তাদের পিতামাতা তাদের খরচ চালাত।লেখাপড়া শেষ তাদের টাকাপয়সা দেয়া বন্ধ।তখন তারা বিপথে পা বাড়ায়।টাকার জন্য পাগল হয়ে সমাজের সবধরনের অপরাধমূলক কাজে জড়িয়ে পড়ে।.যতই দিন যাচ্ছে, বাংলাদেশে বেকারের সংখ্যা বেড়েই চলছে। বেকারত্ব এখন এক গভীর ও জাতীয় সমস্যা। বেকারত্বের কারণে দেশের তরুণরা ঝুঁকে পড়ছে আত্মহননের দিকে। হতাশায় জীবন কাটাচ্ছেন লাখ লাখ যুবক। কেউ কেউ নেমে পড়ছেন অবৈধ পথে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো দেশের শ্রেষ্ঠ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করেও যখন চাকরি পাচ্ছে না, সেসব মেধাবী যুবককেও আজ আত্মহত্যার মতো সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জরিপে বেকারের সংখ্যা দেখানো হয়েছে ২৬ লাখ ৮০ হাজার। এদের মধ্যে পুরুষ ১৪ লাখ, আর নারী ১২ লাখের মতো। দুই বছর ধরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশে উন্নীত হলেও বেকারের সংখ্যা কিছুতেই কমছে না। অনেকে একে কর্মসংস্থানহীন প্রবৃদ্ধি বলে উল্লেখ করেছেন। তবে প্রকৃত কর্মহীন মানুষের সংখ্যা ৪ কোটি ৮২ লাখ ৮০ হাজার। এর মধ্যে কর্মক্ষম কিন্তু শ্রমশক্তিতে যোগ হয়নি এমন মানুষের সংখ্যা ৪ কোটি ৫৬ লাখ। দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বেকারত্বের হার বাংলাদেশেই বেশি। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও)- এর সম্প্রতি প্রকাশিত ‘ওয়ার্ল্ড অ্যামপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল আউটলুক-২০১৮’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৩ সাল থেকে গত বছর পর্যন্ত বাংলাদেশের বেকারত্বের হার ছিল ৪ দশমিক ৪ শতাংশ। চলতি কিংবা আগামী বছরেও হারটি কমবে না। দক্ষিণ এশিয়ার আটটি দেশের মধ্যে বেকারের সর্বোচ্চ হারের দিক থেকে বাংলাদেশ তৃতীয় অবস্থানে। অন্যদিকে সম্প্রতি যুক্তরাজ্যের গবেষণা প্রতিষ্ঠান ‘ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের’ (ইআইইউ) প্রতিবেদন মতে, বাংলাদেশের ৪৭ শতাংশ স্নাতকই বেকার। কিন্তু এই শিক্ষিত তরুণরা দেশের বোঝা নয়, মূলত দেশের সম্পদ। বেকার নারী-পুরুষ হন্যে হয়ে কাজ খুঁজছেন কিন্তু তারা পাচ্ছেন না। পরিবারের মা-বাবা হয়তো পড়াশোনা শেষ করা ছেলে কিংবা মেয়েটির পথ চেয়ে বসে আছে কখন তারা পরিবারে সচ্ছলতা আনবে ও তাদের মুখে হাসি ফুটাবে। একজন বেকারের নীরব যন্ত্রণা কেউ অনুভব করে না, কেউ

বোঝে না তাদের মনের কথা। দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর সেশনজট, নড়বড়ে শিক্ষাব্যবস্থা ও সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ না নেওয়ার কারণে মূলত বেকারত্ব তৈরি হচ্ছে। দেশে উন্নয়নের জোয়ার বয়ে যাচ্ছে। আর লাখ লাখ শিক্ষিত তরুণ বেকারের যন্ত্রণা বেড়েই যাচ্ছে। দেশে কাজ না পেয়ে বিদেশে কাজের আশায় দুবেলা-দুমুঠো ভাতের জন্য এ দেশের তরুণরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ইউরোপ-মালয়েশিয়ায় যাওয়ার জন্য যাত্রাপথে জীবন দিয়ে দিচ্ছে কিংবা পৌঁছাতে পারলেও নানা সমস্যার কারণে লুকিয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। এদিকে বেকারত্বের সূত্র ধরেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শিক্ষার্থীদের মধ্যে উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে আত্মহত্যার প্রবণতা। চলতি বছরের নভেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮ জন শিক্ষার্থী জীবন যুদ্ধে হেরে গিয়ে বেছে নিয়েছেন আত্মহত্যার পথ। এদের মধ্যে গত ৫ দিনেই আত্মঘাতী হন ৩ শিক্ষার্থী। আরও এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন বলে জানা গেছে। হতাশাগ্রস্ত হয়ে চলতি বছরের ১৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর হাজারীবাগের একটি নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন ঢাবির ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থী তরুণ হোসেন। ৩১ মার্চ ঢাবির এমবিএ ভবনের ৯ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন সান্ধ্যকালীন কোর্সের শিক্ষার্থী তানভীর রহমান। ৩০ বছর বয়সী তানভীর রহমান সরকারি চাকরি না পাওয়ার দুঃখে এ পথ বেঁচে নিয়েছিলেন। চাকরির বয়স পার হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও সরকারি চাকরির নাগাল না পাওয়াই তানভীরের আত্মহত্যার কারণ বলে জানা যায়। দেশের শিক্ষা ও রাজনৈতিক ব্যবস্থার প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে গত ১৫ আগস্ট রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় আত্মহত্যা করেন ঢাবি সংগীত বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মুশফিক মাহবুব। গত ১৫ অক্টোবর পারিবারিক অভাব-অনটনের কারণে সুইসাইড নোট লিখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র জাকির হোসেন গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। ঢাবির মার্কেটিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আফিয়া সারিকা সেপ্টেম্বর মাসে গলায় ফাঁস দেন। চলতি মাসের ১২ তারিখ রাজধানীর ফার্মগেটের একটি হোস্টেল গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ওই ছাত্রী ফাহমিদা রেজা সিলভি। এই ঘটনার দুদিন পর ১৪ নভেম্বর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন ঢাবি অধিভুক্ত রাজধানীর আজিমপুরের গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী লায়লা আঞ্জুমান ইভা। সর্বশেষ গত শুক্রবার যশোরের গ্রামের বাড়িতে আত্মহত্যা করেন ২০১০-১১ সেশনের ঢাবির সাবেক ছাত্রী মেহের নিগার দানি। বিশ্লেষকরা মনে করছেন, পারিবারিক সমস্যা, প্রেমঘটিত জটিলতা, বেকারত্ব, পরীক্ষায় কাঙ্খিত ফলাফল অর্জনে ব্যর্থতা, সর্বোপরি হতাশা থেকে এসব শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, মানসিক চাপ, হতাশা, অবসাদ ও হেনস্তার শিকার হয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে তারা। আবার আর্থসামাজিক সমস্যা ও পারিবারিক সংকটের কারণেও অনেকে আত্মহত্যা করে।

মো.ওসমান গনি

লেখক-সাংবাদিক ও কলামিস্ট