অসচেতন বাংলাদেশ, হতে পারে মহাবিপদ

ওসমান গনি: মহামারি করোনাভাইরাসের আক্রমণে আজ সারাবিশ্ব এক অস্থির সময়ের মধ্যে দিন পার করছে। এ ভাইরাসটির সংক্রমণ থেকে বাদ যায়নি বাংলাদেশ ও। বাংলাদেশ হলো এশিয়া মহাদেশের একটি অতি ঘনবসতিপূর্ণ দেশ। যে দেশের আয়তনের তুলনায় লোক সংখ্যা অনেক বেশী। আর এ মহামারি করোনাভাইরাস টি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় অতি দ্রুত সংক্রমণ লাভ করে। কারন ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় মানুষ কখনো সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে পারে না। এসব এলাকার লোকজন থাকে একবারে ঘেঁষাঘেঁষি অবস্থায়। যা করোনাভাইরাস সংক্রমণের জন্য অতি সহায়ক।
এ ভাইরাসটি যেহেতু মানুষের সংস্পর্শে ছড়ায় সেহেতু ঘেঁষাঘেঁষি এলাকাতে এটি যদি একবার কোনভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে তাহলে কোনভাবেই তা প্রতিরোধ করা যাবে না। গণহারে মানুষের মৃত্যু শুরু হবে। এ জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, জাতিসংঘ সহ বিশ্বের অনেক ধনীদেশ বাংলাদেশ কে বার বার সতর্ক করছে করোনাভাইরাস হতে সতর্ক হতে। কিন্ত কে শোনে কার কথা। বাঙালিরা এমন ভাব দেখায়, যেন তাদের কাছে করোনাভাইরাস কিছুই না। যেখানে আজকে সারাবিশ্বের বড় বড় ধন্যাঢ্য দেশগুলো যারা শুধু অর্থেই ধনী নয়, যাদের রয়েছে পৃথিবীর অজস্র পারমাণবিক ও রাসায়নিক শক্তি। যারা মুহুর্তের মধ্যে ইচ্ছা করলে যেকোন দেশ ধবংস করে দিতে পারে, সে রকম বৃহৎ দেশগুলোও আজ একটা করোনাভাইরাসের কাছে কাবু হয়ে গেছে।
তারা শত চেষ্টা করেও কিছুই করতে পারে নি। যাদের রয়েছে অত্যাধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থা। মরেছে তাদের দেশে ও লক্ষাধিক মানুষ। সেখানে গরীব বাংলাদেশ কি করার আছে। বাংলাদেশ সরকার দেশের মানুষকে সচেনতন করতে বিভিন্ন পন্থা বা পদ্ধতি প্রয়োগ করেও সচেনতন করতে পারেনি। কোনভাবে ই মানুষের মধ্যে সচেতনতা আনতে পারেনি। যার কারনে এখন প্রতিদিন ই সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে।
বাংলাদেশ নিয়ে জাতিসংঘের আরেকটি বার্তা হলো, দ্রুত প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। নয়তো মহাবিপদ আসতে পারে বাঙালি জাতির উপর। প্রতিবেদনে আরও বলা হয় বাংলাদেশের মানুষ অসচেতন। সরকার পদক্ষেপ নিয়েও মহামারি ছড়ানোর সম্ভাবনা অনেক বেশি। আর মহামারি ছড়ালে তা সরকারের নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে যাবে বলে সতর্ক করা হয়। বাংলাদেশ
মধ্যম আয়ের দেশ। সে হিসেবে লকডাউন করা হয়নি দরিদ্রদের কথা ভেবে কিন্তু আসলেই লকডাউনে আছে পুরো বাংলাদেশ। এখানে বাংলাদেশের মানুষের একটা মৌলিক জিনিসের ই অভাব রয়েছে, সেটা হলো প্রকৃত শিক্ষা। শিক্ষার অভাবে বাংলাদেশের কিছু বোজতেছে না। সরকার মানুষকে ভালো বোঝানোর চেষ্টা করছে কিন্ত বুঝছে তার উল্টো। করোনার এই দুর্যোগ মুহুর্তে ও যারা দেশের কল কারখানা, শপিং মল ও গণপরিবহন খোলে দেয়ার জন্য অনুরোধ বা সরকারের নিকট আন্দোলন করছে তারা কি চায়? তাদের কাছে কি মানুষের জীবন বড় না অর্থ বড়। এতেও কি প্রতীয়মান হয় না যে, বাংলাদেশের মানুষ কতটুকু শিক্ষিত।
যাক দেশের ব্যবসায়ী ও দেশের সাধারণ মানুষের কথা চিন্তা করে কিছু প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হলো, তার ফলাফল কি দাঁড়াল। এখন তো বিভিন্ন মিডিয়ার খবরে দেখা হুহু করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। আবেগে দেশ বা মানুষের জীবন চলে না। সরকারের উচিত তার অবস্থানে অনড় থাকা। রাষ্ট্রের কাছে তার নাগরিকের জীবন বড়। অর্থ বড় নয়। মানুষের জীবন বাচলে রাষ্ট্র হবে, প্রধানমন্ত্রী হবে। তাই আগে জীবন বাচান, বিশ্ব সংস্থা ও জাতিসংঘ এর সাথে সমন্বয় রেখে আগান।

করোনা সংক্রমণ এমন একটি প্রাণঘাতী রোগ যা আমাদের সাড়া দেওয়ার গতির চেয়ে বেশি গতিতে সংক্রমিত হয়। ৭৭০ কোটি জনগোষ্ঠীর এই বিশ্বে করোনাভাইরাস মহামারি সংক্রমণের হার উচ্চ ও আন্তর্জাতিকভাবে ক্রমেই বিস্তৃত হচ্ছে। বাংলাদেশে ব্যাপক মাত্রায় জনঘনত্ব বিবেচনা করে বৈশ্বিকভাবে স্বীকৃত পন্থা অবলম্বন করে ধারণা করা যায়, প্রতিরোধমূলক উদ্যোগ নেওয়া না হলে মহামারির প্রভাবে ব্যাপক সংখ্যক মানুষের মৃত্যু ঘটতে পারে।তাই বাংলাদেশের সকল মানুষকে নিজেদের স্বার্থে, দেশের স্বার্থে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ মেনে চলতে হবে।

লেখকঃ ওসমান গনি (সাংবাদিক ও কলামিস্ট)