করোনা আক্রান্ত দোষের নয় , তবে কেন গোপনীয়তা ?

চীন→ইরান→ইতালি→স্প্যান→ফ্রান্স→জার্মান→বেলজিয়াম→যুক্তরাজ্য→আমেরিকা→মেক্সিকো→পেরু→তুরস্ক→রাশিয়া→ব্রাজিল→ভারত ধারাবাহিক ভাবে হটস্পটগুলো স্মরণে আছেতো ? শেষের ৪ টি বাদে বাকি দেশগুলোতে সংক্রমণ এখন কমতির দিকে। হটস্পট হিসেবে একটি দেশ সর্বোচ্চ দেড়-দুই মাস থাকে। আমাদের দেশ হটস্পটে ডুকে যাচ্ছে তাই জুন-জুলাইয়ে আমাদের অনেক অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার জন্য মানসিক প্রস্তুত থাকতে হবে।কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বা গণহারে করোনা আক্রান্ত শুরু হয়ে গেছে বাংলাদেশে। তারমানে যে কেউ যখন-তখন করোনায় আক্রান্ত হওয়াটায় স্বাভাবিক তাতে দোষ বা লজ্জার কিছুই না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী, হেভিওয়েট সেলেব্রেটি পর্যন্ত আক্রান্ত হচ্ছে এই রোগে। আমাদের দেশের অনেক মন্ত্রী , শিল্পপতি বা সেলেব্রেটি ইতোমধ্যে আক্রান্ত হয়েছে। এই রোগে আক্রান্ত হওয়া লজ্জা বা দোষের কিছু নয়। আমার মনে হয় সংকীর্ণতাটা আমরাই তৈরি করছি।

করোনায় আক্রান্ত হওয়াকে কি আমাদের দেশে ভয়ঙ্কর পাপ হিসেব গণ্য করা হয় ? তা না হলে কারও পরিবারের সদস্য বা নিকটাত্মীয় আক্রান্ত হলে প্রকাশ তো করছেই না বরংচ তা কঠোরতার সাথে গোপন করছে। আগে কেউ সামান্য অসুস্থ হলে ফেইসবুকে বা মসজিদে দোয়া চাওয়া হতো আজ ৯০ দিনে এই দোয়া চাওয়া আমার চোখে পরে নাই। সবাই এখন অসুস্থতার কথা গোগন করছে অথচ ভয়ঙ্কর ছোঁয়াচে এই রোগ যত প্রকাশ করবে ততোই মঙ্গল। অন্যেরা সাবধান হয়ে আত্নরক্ষা করতে পারবে।

করোনাকে লজ্জায় অনেকে নিউমোনিয়া বলে ডাকছে। যার দরুন খুব দ্রুত ছড়াচ্ছে এই ভাইরাস। এই সময়টায় আমাদের দেশে বয়স্কদের নিউমোনিয়ার রেকর্ড নেই বললেই চলে। তাছাড়া করোনায় আক্রান্তের জটিল স্তরটি নিউমোনিয়া। তাই করোনা পজিটিভ হলে দ্রুত ঘোষনা দেওয়া উচিত যাতে নতুন কেউ সংক্রমিত না হয়।

ডঃ বিজন কুমার শীল অনেকেই উনাকে চিকিৎসক মনে করেন , আসলে উনি M.B.B.S করা কোন চিকিৎসক নন। উনি একজন অণুজীব বিজ্ঞানী ভেটেরিনারি সায়েন্স বিষয়ে ডক্টরাল (Phd) করা। আমাদের চিকিৎসকদের ডক্টরাল করা ছাড়া Doctor কেন বলে আমি জানি না ? তারাতো (M.B.B.S) গ্রাজুয়েট তবে ডক্টরাল পদবীতে কেনো ডাকা হয় ? আমার জানা মতে তারা Physician (ফিজিশিয়ান)। যদিও আমরা নিজেরা একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছি বাংলায় ডাক্তার মানে চিকিৎসক আর ডক্টর মানে ডক্টরাল বা Phd করা ব্যাক্তি কিন্তু ইংরেজিতে বানান তো একই Doctor→ Dr। করোনা নিয়ে ডঃ বিজন শীলের কথাগুলো খুবই বাস্তবিক মনে হয়েছেঃ-
” ঘূর্ণিঝড় যখন আসে তখন সে সব গাছের ওপরেই প্রভাব ফেলে। দুর্বল গাছ ভেঙে যায়, শক্তিশালীগুলো টিকে থাকে। করোনাভাইরাসও আমাদের কাউকেই ছাড়বে না, আমরা যতই পালিয়ে থাকি না কেন। তবে, আমরা বেশিরভাগই সুস্থ হয়ে যাব। যারা অন্য রোগে ভুগছেন, তাদের জন্য এটি বেশি ক্ষতির কারণ হবে ”

পূর্বের মহামারীগুলো বিশ্লেষণে বুঝা যায় খুব বেশিদিন এই মহামারীর প্রাদুর্ভাব থাকবে না। আমরা ইতোমধ্যে ৬ মাস বা অর্ধ বছর সময় পাড়ি দিয়েছি এক-দেড় বছরের বেশি মহামারীগুলো পূর্বের মতো ভয়ঙ্কর অবস্থানে থাকেনা। ইনশাআল্লাহ সামনের বছর এই সময় হয়তো আমরা অনেক স্বাচ্ছন্দ্যে থাকবো।কাল একদিনে বজ্রপাতে ২০ জন মারা গেছে কিন্তু ঝড় বা বজ্রপাতের সময়টা খুব বেশি ছিলোনা। তেমনি এই ঝড় খুব বেশি সময় থাকবেনা , সামনে আলো আসবেই ইনশাআল্লাহ। কিন্তু এই করোনা ঝড় চলাকালীন সময়ে বয়স্ক ও জটিল রোগে আক্রান্তরা শেল্টার সেন্টার বা আশ্রয়কেন্দ্রে অর্থাৎ বাসায় থাকুন।

নাজমুল হক
প্রভাষক ও কলামিস্ট
বনানী বিদ্যানিকেতন কলেজ

Previous articleওয়ারী ও রাজাবাজার লকডাউন
Next articleপাবনায় গুলি করে ও কুপিয়ে ২ জনকে হত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।