বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ। প্রাচীনকাল থেকে বর্তমান সময় আবধি কৃষিই এদেশর অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি। দেশের শতকরা ৮০% মানুষ কৃষি কাজের সাথে জড়িত।এদেশের জিডিপির ২২% কৃষি থেকে আসে। আয়তনে ছোট আমাদের বাংলাদেশে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার তুলনামূলক অনেক বেশি। বসতবাড়ি নির্মাণ, কলকারখানা স্থাপনের ফলে কৃষি জমির পরিমাণ দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। বিপরীতে বিপুল সংখ্যক জনসংখার জন্য বাড়ছে খাদ্য চাহিদা।

পর্যাপ্ত খাদ্য চাহিদা পুরন ও অর্থনৈতিক সচ্ছলতার জন্য দেশের কৃষকেরা একই জমিতে বেশি ফলনের আশায় ব্যাপক হারে রাসায়নিক কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহার করছেন। জানা গেছে দেশে বছরে ৬০ হাজার টন রাসায়নিক সার ও ৪০ হাজার টন রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহার হচ্ছে। মাত্রাতিক্ত রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহারের ফালে মাটি দূষণের পাশাপাশি মাটির প্রাকিতিক গুনাগুণ চরমভাবে নষ্ট হচ্ছে। মাটির উপকারী অণুজীব গুলো মারা গিয়ে মাটি হারাচ্ছে প্রাকিতিক গুণাবলি। যার ফলে মাটির উর্বরতা দিন দিন হ্রাস পাচ্ছে। রাসায়নিক কীটনাশকের ক্ষতিকর দিক গুলো সম্পর্কে দেশের অধিকাংশ কৃষক অবগত না থাকার কারণে এটির ব্যবহার লাগামহীন ভাবে বেড়েই চলেছে।অপরিকল্পিত কৃষি ব্যবস্থাপনা, দুর্বল কৃষি অবকাঠামো, দক্ষ জনশক্তির অভাবে রাসায়নিক কীটনাশকের অপব্যবহার হচ্ছে। যার ফলে মাটি ও পরিবেশের উপর বিরূপ প্রভাব পরছে। ফসলে পোকার আক্রমণ মানেই রাসায়নিক কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে, কৃষকদের মাঝে এমন একটি মনোভাব লক্ষ করা যায়। রাসায়নিক কীটনাশক যে শুধু মাটির ক্ষতি করছে তা নয়। মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ফসলের মাঠ গড়িয়ে নদি-নালা, খাল-বিল গিয়ে জলজ প্রাণীর মৃত্যুর কারণ ঘটাচ্ছে। নদি-নালায় এখন আগের মতো দেশীও ও অতিথি পাখি দেখা যায়না এই রাসায়নিক কীটনাশকের বিষাক্ততার কারণে। শুধু তাই নয়, এসকল রাসায়নিক কীটনাশক ফুডচেইনের মাদ্ধমে মানুষের দেহে প্রবেশ করে। যার ফলে ক্যান্সার সহ নানা ধরনের জটিল রোগ হয়ে থাকে। তাই রাসায়নিক কীটনাশক ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি বড় হুমকি। রাসায়নিক কীটনাশকের ভয়াবহতা থেকে আমাদের বের হয়ে আসতে হবে। কীটনাশক এর বিকল্প কীটনাশকই। তাই রাসায়নিক কীটনাশক এর বিকল্প হিসাবে আমাদের জৈব কীটনাশক(Bio-Pesticides) ব্যবহার করতে হবে। জৈব কীটনাশক রাসায়নিক কীটনাশকের একটি প্রাকিতিক সমাধান। বিভিন্ন ফসলের পোকামাকড় এবং কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রনের জন্য প্রাকিতিক জীবিত অণুজীব বা প্রাকিতিক পণ্যের উপর ভিত্তি করে জৈব কীটনাশক তৈরি করা হয়। জৈব কীটনাশক চার ধরনের হয়ে থাকে যথাঃ ১.জৈব রাসায়নিকঃ বায়োকেমিক্যাল কীটনাশক গুলো তাদের সরলতায় আর স্নিগ্ধতায় আকর্ষণীয়। ফেরোমোনস এমন একটি রুপ যেটা প্রাকিতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট দুভাবেই হতে পারে এবং এটি পোকার আক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

।২.মাইক্রুবিয়ালঃ মাইক্রুবিয়াল এজেন্ট গুলি ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক ও ভাইরাস থেকে আসে। মিল্কি স্পোর একটি প্রাকিতিক কীটনাশকের উদাহরন।৩.বোটানিক্যালঃ উদ্ভিদ থেকে উদ্ভিদ কীটনাশক আসে। নিকোটিন, নিম, রোটেনন ইত্যাদি হল বোটানিক্যাল জৈব কীটনাশকের উদাহরন।৪. খনিজঃ খনিজ জৈব কীটনাশকের মধ্যে সালফার চুন ব্যাবহার করা হয়। জৈব কীটনাশক পরিবেশবান্ধপ হওয়াই এটি ব্যবহারের নানা দিক উপকারিতা রয়ছে। রাসায়নিক কীটনাশক এর অধিক প্রয়োগ কীটপতঙ্গের বিরুদ্ধে জীনগত প্রতিরোধ গড়ে তোলে। তাই রাসায়নিক কীটনাশক এর দীর্ঘদিন ব্যাবহারে এটির কার্যকারিতা দিনদিন হ্রাস পেতে থাকে। অন্যদিকে জৈব কীটনাশক প্রাকিতিক ভাবেই কীটপতঙ্গের বিরুদ্ধে দীর্ঘ মেয়াদী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। ফলে জৈব কীটনাশক এর কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়না। রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহারে মাটিতে ও উৎপাদিত ফসলের ওপর কীটনাশকের ক্ষতিকর প্রভাব দীর্ঘদিন থেকে যায়। যা মাটি, পানি ও বায়ু দূষণ ঘটায় এবং মানুষ ও সকল প্রানির পক্ষেও বিষাক্ত। অন্যদিকে জৈব কীটনাশক বা বায়োপেস্টিসাইড ব্যবহারের পর মাটিতে ও ফসলে এটির কোন ক্ষতিকর প্রভাব থাকেনা বরং মাটির জৈব গুনাগুণ বাড়াতে সাহায্য করে। রাসায়নিক কীটনাশক জমিতে ছিটানোর সময় এর নানাদিক পার্শ্বক্রিয়া হয়ে থাকে। জৈব কীটনাশক ছিটানোর সময় এর কোন পার্শ্বক্রিয়া নেই। জমিতে জৈব কীটনাশক ছিটানোর সাথে সাথেও জমিতে প্রবেশ ও জমির ফসল খাওয়া যায়।জৈব কীটনাশক তৈরির কাঁচামাল সহজলভ্য হওয়াই সহজতর উপায়ে এটি তৈরি করা যায়। যার মধ্যে কিছু কিছু জৈব কীটনাশক ঘরোয়া পদ্ধতিতে তৈরি করা যায়। যেমনঃ ১.নিমঃ প্রাচীন ভারতীয়রা সর্বপ্রথম নিমের তেলকে শক্তিশালী বালাইনাশক হিসেবে অবিহিত করেছেন। নিমের পাতাকে রস করে জৈব কীটনাশক হিসেবে ব্যাবহার করা যায়। কাঁচা নিম পাতা এক লিটার পানিতে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে, তারপর নিম পাতা তুলে উক্ত পাতা বেটে আবার পানিতে মিশাতে হবে। এর আগে ঐ পানিতে তরল সাবান মিশিয়ে রাখতে হবে , তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে নিমের জৈব কীটনাশক। ২. লবন স্প্রেঃ লবন স্প্রে একটি কার্যকরী জৈব কীটনাশক। মাকরসা ও মাইট আক্রান্ত গাছের জন্য লবন স্প্রে একটি উৎকৃষ্ট জৈব বালাইনাশক বা কীটনাশক। ৩. খনিজ তেলঃ কীটপতঙ্গ যেখানে ডিম পারে সেখানে ১০-৩০ আউন্স খনিজ তেল ১লিঃ পানিতে মিশিয়ে ছিটিয়ে দিলে ডিমের আদ্রতা কমে কীটপতঙ্গের ডিম মারা যায়। যার ফলে কীটপতঙ্গের বংশবিস্তার কমে যায়। ৪.উকেলিপ্টাস তেলঃ মৌমাছি ও বোলটা দমনে উকেলিপ্টাস তেল ব্যাবহার করা হয়।কয়েকফ ফোটা উকেলিপ্টাস তেল পানিতে মিশিয়ে ফসলে ছিটিয়ে দিলে মৌমাছি ও বোলটা অন্যত্র চলে যায়। ৫.তামাক স্প্রেঃ তামাক পাতার এক কাপ রস এক গ্যালন পানিতে মিশিয়ে সারা রাত মিশ্রণটি রেখে দিয়ে পেস্ট, জাব পোকা আক্রান্ত ফসলে ছিটিয়ে দিতে হবে।৬. রসুন+নিমঃ নিম পাতাএ রস ও রসুনের রস একত্রে মিশিয়ে তার সাথে পানি মিশিয়ে জাল দিতে হবে। মিশ্রণটি ঘন হলে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে গাছে বা ফসলে ছিটালে পোকামাকড়ের আক্রমণ হতে রক্ষা পাওয়া যায়। এছারা বর্তমানে এখন অনেক জৈব কীটনাশক বোতলজাত হিসেবে বাজারে পাওয়া যায়। জলবায়ু পরিবর্তনে সারা বিশ্বের পরিবেশ খুবই বিপর্যস্ত। তাই পরিবেশ দূষণ সমগ্র বিশ্বের কাছে একটি উদ্বিগ্নের বিষয়। বেঁচে থাকার জন্য খাবারের কোন বিকল্প নেই। বিশ্বের প্রতিটা মানুষের মুখে খাবার তোলে দিতে কৃষি কাজেরও কোন বিকল্প নেই। রাসায়নিক কীটনাশক নির্ভর কৃষি বর্তমান সময়ের চাহিদা হইত পূরণ করছে কিন্তু ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য সেটি ভয়াবহ ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাই পরিবেশ বান্ধব কৃষি এখন সময়ের অন্যতম জ্বলন্ত ইস্যু।

কৃষিতে জৈব প্রযুক্তির ব্যবহার পরিবেশ বান্ধব কৃষির মূল হাতিয়ার। কৃষিতে জৈব সার , জৈব কীটনাশকের ব্যবহার কৃষিকে পরিবেশ বান্ধব করে তোলে। রাসায়নিক কীটনাশক সাময়িক সুফল বয়ে আনলেও এটির রয়েছে দীর্ঘ মেয়াদী ক্ষতিকর প্রভাব। অন্যদিকে জৈব কীটনাশক ব্যবহারে পরিবেশের কোন ক্ষতি ছাড়ায় কৃষির অগ্রগতিকে আরও বেগবান করা যায়। আধনিক কৃষি ব্যবস্থাপনাই উৎপাদন বেড়েছে অথচ মাটির উর্বরতা , মাটির গুনাগুণ ও উৎপাদন শক্তি কমেছে। অতিমাত্রাই রাসায়নিক সারের ব্যবহার মাটিতে, ফসলে ও পরিবেশে বিরুপ প্রভাব পড়েছে। মাটির উর্বরতা, মাটির গুনাগুণ, উৎপাদনশীলতা ও পরিবেশ ঠিক রাখতে জৈব কৃষির বিকল্প নেই। তাই রাসায়নিক কীটনাশকের প্রভাব হতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি, পরিবেশ সংরক্ষণ ও টেকসই উন্নয়নের জন্য জৈব কীটনাশকের গুরুত্ব অপরিসীম। বাংলাদেশে বালাইনাশক (পেস্টিসাইড) আইন-২০১৮ নামে একটি আইন আছে যা ১৯৭১ সনে পেস্টিসাইড অরডিনেন্স নামে পরিচিত ছিল। বালাইনাশক আইনের বিভিন্ন ধারায় বালাইনাশক আমদানি, উৎপাদন, ব্যবহারিক মাত্রা, পরিবেশের ছারপত্র, বিপণন লাইসেন্স, উৎপাদন লাইসেন্সে ইত্যাদি নানা বিষয়ে নীতিমালা দেয়া আছে। রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহারে আইনের যথাযত প্রয়োগ না হলে অদূর ভবিষ্যতে মাটি ও পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হবে। ফসলে পোকামাকড় ও কিতপতঙ্গের আক্রমণ একটি প্রাকিতিক সমস্যা। জৈব কীটনাশক প্রয়োগ করে এই সমস্যা প্রাকিতিক ভাবেই দূর করা যায়। যেহেতু কৃষি উৎপাদন প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম বয়ে যাবে সেহেতু মাটির গুনাগুণ ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখতেই হবে।তাই মাটিতে রাসায়নিক কীটনাশকের বিকল্প হিসেবে জৈব কীটনাশক ব্যবহার করা অতীব জরুরী।

লেখকঃ আল-আমিন, শিক্ষার্থীঃ ডিপার্টমেন্ট অব এনভাইরনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়।

Previous article‘কী করো তোমরা, পিটিয়ে শোয়ায়ে দিবা’, বললেন রাবির সহকারী প্রক্টর
Next articleরায়পুরে পরাজিত বিএনপির প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।