ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রধান ও অন্যতম উদ্দেশ্যই হচ্ছে, দেশের সবক্ষেত্রে কাজের স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার মধ্য দিয়ে দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যবস্থাকে বদলে ফেলা। কিন্তু এখন বাস্তবে দেখা যাচ্ছে দেশ ডিজিটাল হওয়ার পর যেন দূর্নীতির মাত্রা স্বয়ং এই সেক্টরে আরও অনেক বেশী বেড়ে গেছে। সরকারের ডিজিটাল সেবা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে প্রাথমিক শর্ত হিসেবে প্রত্যেক নাগরিকের জন্মনিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয়পত্র(এনআইডি) ইস্যুকে বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

ডিজিটালাইজেশন সাধারণ মানুষকে গতানুগতিক আমলাতান্ত্রিক দীর্ঘসুত্রিতা তথা লালফিতার দৌরাত্ম্য থেকে মুক্তির গ্যারান্টি হয়ে দেখা দিয়েছিল। এখন সেই সেবা পেতে শুরুতেই মানুষকে ডিজিটাল বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। প্রশাসনিক সব কর্মকাণ্ড ডিজিটাল পদ্ধতিতে ব্যবহার হওয়ায় জন্মনিবন্ধন অপরিহার্য। পাসপোর্ট, আইডি কার্ড, জমি রেজিস্ট্রেশন, করোনার টিকা, বিয়ে এবং স্কুলে ভর্তিসহ ১৭টি সেবার ক্ষেত্রে জন্মসনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। ফলে সন্তান জন্ম নেয়ার পর মানুষ স্থানীয় প্রশাসনে জন্মনিবন্ধন করেন। কিন্তু ডিজিটাল পদ্ধতিতে নিবন্ধন করায় ‘সার্ভার ত্রুটি’ অজুহাতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। রাজধানী ঢাকা থেকে শুরু করে জেলা, উপজেলা এমনকি ইউনিয়ন পর্যায়ে সময়মতো জন্মনিবন্ধন করা যাচ্ছে না। অথচ জন্মনিবন্ধন না করলে নানা ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে।

জাতীয় জন্মনিবন্ধনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে নাগরিক অধিকার সুরক্ষায় ৪৫ দিনের মধ্যে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন। সারাদেশেই সাধারণ মানুষ জন্মনিবন্ধন সনদ পেতে সীমাহীন ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। ভুক্তভোগীদের ভাষ্য, জন্মনিবন্ধন সনদের জন্য আবেদন করার শর্তে জটিলতা রয়েছে। রয়েছে সনদ প্রদানে দীর্ঘসূত্রতা। সরকারি ফি’র বাইরেও নেয়া হচ্ছে অর্থ। ১৭টি সেবার ক্ষেত্রে জন্মসনদ বাধ্যতামূলক হওয়ায় মানুষ বাধ্য হয়ে অতিরিক্ত টাকা দিয়ে জন্মনিবন্ধন করছেন। এরপরও বাধ্যতামূলক ও জরুরি এই সনদ পেতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে সারাদেশের মানুষকে। সংশ্লিষ্ট অফিসের কর্মকর্তাদের দাবি জনবল সঙ্কট, ইন্টারনেটের ধীরগতি ও কেন্দ্রীয় সার্ভারে নানা জটিলতার কারণে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন সেবাপ্রার্থীরা। পাসপোর্ট তৈরি, বিয়ে নিবন্ধন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি, চাকরিতে নিয়োগ, ড্রাইভিং লাইসেন্স, ভোটার তালিকা তৈরি, জমি রেজিস্ট্রেশন, ব্যাংক হিসাব খোলা, আমদানি ও রফতানি লাইসেন্স, গ্যাস, পানি, টেলিফোন এবং বিদ্যুৎ সংযোগের অনুমতি, করদাতা শনাক্তকরণের নম্বর, ঠিকাদারি বা চুক্তির লাইসেন্স, ভবন নকশার অনুমোদন, ট্রেড লাইসেন্সপ্রাপ্তি এবং মোটরযানের নিবন্ধন পেতে জন্মনিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক। ঢাকা সিটিতে বসবাসরত নাগরিকদের স্থানীয় কমিশনারের প্রত্যায়নপত্র লাগে। এক সময় সন্তানের বাবা ও মায়ের জন্মনিবন্ধন লাগত না। এখন সকলের জন্মনিবন্ধনের বিধান যুক্ত করা হয়েছে। বয়স্ক কেউ জন্মসনদ নিতে গেলে অতিরিক্ত টাকা গুনতে হচ্ছে। একই সঙ্গে হয়রানি দিন দিন বাড়ছে। অনেক ইউনিয়নের তথ্য সেবাকেন্দ্র থেকে নোটিশ জারি করেছে। এতে বলা হয়েছে সার্ভার আপডেট করার জন্য সমস্যা হচ্ছে এ কারণে জন্মবিবন্ধন কার্যক্রম বন্ধ করা হয়েছে।

সবচেয়ে বড় ও উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো আজ থেকে কয়েক বছর আগে সন্তানের জন্মনিবন্ধন করতে মা বাবার নিবন্ধন বাধ্যতামূলক ছিল না, এমন কি মা বাবার জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম অনুযায়ী সন্তানের জন্মনিবন্ধনে মা বাবার নাম ও বানান হতে হবে এমনটাও বাধ্যতামূলক ছিল না। যার কারনে ঐ সময় ছেলেমেয়েদের মা বাবারা তাদের সন্তানের জন্মনিবন্ধন করতে গিয়ে সন্তানের জন্মনিবন্ধন সনদে মা বাবার নাম তাদের বা উদ্যোক্তাদের ইচ্ছামতো বানান করে লিখছেন। এই সনদ অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৮ম শ্রেণীতে অনলাইনে তাদের নাম রেজিষ্ট্রেশন করেছেন। এই নাম অনুযায়ী ছাত্র/ছাত্রীদের শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ বের হয়। পরবর্তীতে সরকার ঘোষনা দিল ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাগত সনদে মা বাবার নাম ও বানান তাদের জাতীয় পরিচয় পত্রে থাকা নাম ও বানান অনুযায়ী হতে হবে। এটা কেমন কথা সরকারের। এটা কি মামার বাড়ির আবদার যে,চাইলেই পাওয়া যাবে। এখন এ সমস্যা সংশোধন করতে গেলে শিক্ষাবোর্ড, নির্বাচন কমিশন যেতে হবে। সেখানে কি সাধারণ মানুষ যেতে পারবে। এটা ঘুষের আরেকটা পদ্ধতি। ঘুষ দিবে কাকে, কোথায় দিবে দেশের সাধারণ মানুষতো এসব জায়গাই চিনে না। যদিও কেউ চিনে গেলে সেখানকার লোকজন তাদের কে পাত্তাই দিবে না। শিক্ষাবার্ড ও নির্বাচন কমিশন হতে একটা সনদ ও জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন করে আনতে বছরের পর বছর ঘুরতে হয় তাদের বারান্দায় আবার অনেক সময় তাদের পালিত দালালদের নিকট হতে অপমানিত ও লাঞ্ছিত। গুনতে হয় মোটা অংকের টাকা। যা এদেশের মানুষের পক্ষে সম্ভব না। এখানে ভূল করল সরকার আর ভোগ করছে দেশের জনগন। যেমনটা হয়েছিল ছাত্রছাত্রীদের ইউনিক আইডি র ক্ষেত্র। ছাত্রছাত্রীদের জন্মসনদে মা বাবার নাম সঠিক না থাকার কারনে ইউনিক আইডির কার্যক্রম ব্যাহত হতে চলছিল। শেষ পর্যন্ত সরকার সিদ্ধান্ত দিয়েছে জন্মসনদে ছাত্রছাত্রীর নাম ঠিক থাকলেই হবে, মা বাবার নাম যাহাই হউক। এই একই ভূলের কারনে ব্যাহত হতে পারে আগামী মে মাসের ২০/২২ তারিখের ভোটার হালনাগাদের কাজ। যদি ছাত্রছাত্রীদের ইউনিক আইডির মতো সিদ্ধান্ত আসে তা হলে সুষ্ঠুভাবে ভোটার হালনাগাদের কাজ চলবে। সরকারের উচিত দেশের জনগণের স্বার্থে ধরনের একটা আইন জারি করা। যে, অনলাইন সনদের ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের নাম শিক্ষাসনদ ও জন্মনিবন্ধন সনদ ঠিক থাকলেই হবে, এক্ষেত্রে মা বাবার নাম সঠিক হতে হবে এমনটা বাধ্যতামূলক নয়। তাহলে দেশের মানুষ একটা স্বস্থির নিশ্বাস ফেলবে।

সম্প্রতি দেশে ১২ থেকে ১৮ বছরের শিশুদের করোনার টিকা ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র/ছাত্রীদের ইউনিক আইডি কার্যক্রম শুরু হলে জন্মনিবন্ধনের সনদ উত্তোলনের হার বেড়ে যায়। কিন্তু এই সনদ সংগ্রহ করতে গিয়ে অভিভাবকরা ঘাটে ঘাটে হয়রানির শিকার হচ্ছেন। দিতে হচ্ছে বাড়তি টাকাও। আবার অনেকের জন্মসনদ সংশোধন করতে হচ্ছে। সেখানে ভোগান্তি আরো বেশি। জন্মনিবন্ধন উত্তোলন ও সংশোধনকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে দালালচক জনবল সঙ্কট, অদক্ষ জনবল, দালাল সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্য, ত্রুটিপূর্ণ প্রযুক্তির ব্যবহার, ইন্টারনেটের ধীরগতি, কেন্দ্রীয় সার্ভারে ত্রুটি, সেবাদানকারীর দুর্ব্যবহার, তথ্য প্রদানে অনীহা এবং নাগরিকদের সচেতনতার অভাবে সারাদেশের ‘জন্মনিবন্ধন সনদ’ কার্যক্রম দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। দুর্ভোগ লাঘবে সরকারের পক্ষ থেকেও দৃশ্যমান কোনো পদক্ষেপ নেই। জন্মনিবন্ধন কার্যক্রম সহজ এবং সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে বিভাগীয়, সিটি করপোরেশন, জেলা, উপজেলা, পৌরসভা, ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড এবং ইউনিয়নে জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধন টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছিল। তাদের জন্ম ও মৃত্যুনিবন্ধনে সার্বিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু এসব টাস্কফোর্স ঠিকমতো কাজ করছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।

২০১৮ সাল পর্যন্ত যারা নিবন্ধন নিয়েছেন, তাদের সনদ একটি ভাষায় হয়েছে। যারা বাংলায় চেয়েছেন তারা বাংলা ভাষাই পেয়েছেন। আর যারা ইংরেজিতে চেয়েছেন তারা ইংরেজিতে পেয়েছেন। পরবর্তীতে এসব যখন অনলাইনে আপডেট করা হয়েছে তখন সংশ্লিষ্ট ভাষাই অনলাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। অন্য ভাষার স্থলে ডাটা এন্ট্রিকারীরা আজেবাজে অক্ষর লিখে রেখেছেন। যার ফলে এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। এখানে আবেদনকারীদের ভুল নেই, তবুও তারা নানা সমস্যা ও ভোগান্তিতে পড়ছেন। সংশোধনীর জন্য অনেকেই আবেদন করেছেন।

করোনার ভ্যাকসিন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ইউনিক আইডিসহ বিভিন্ন কাজের জন্য প্রতিদিন সহস্রাধিক মানুষ জন্মনিবন্ধন রেজিস্ট্রারের কার্যালয়গুলোতে ভিড় করছেন। তবে যে পরিমাণ আবেদন জমা পড়েছে সেই পরিমান নিবন্ধন প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হচ্ছে না। ফলে প্রতিদিনই অসংখ্য জমা পড়া আবেদন আটকে থাকছে। সময় যত গড়াচ্ছে, ফাইলের স্তূপ ততই বাড়ছে। এর মধ্যে সার্ভার জটিলতাকে দায়ী করছেন দায়িত্বে থাকা রেজিস্ট্রার ও ইউনিয়নের পরিষদের সচিবরা। তারা বলছেন, দিনের বেশিভাগ সময় সার্ভার ডাউন থাকে। অনেক সময় সারা দিনে একবারও সাইটে প্রবেশ করা যায় না। সন্ধ্যার দিকে সার্ভার জটিলতা কিছুটা কমলেও আবেদনের বিপরীতে নিবন্ধন হয় সামান্যই। এই সমস্যার কারণে রেজিস্ট্রার অফিসগুলোয় তো সব সময় ভিড় জমে থাকবেই। সবচেয়ে বেশি ভিড় করছেন সংশোধনী করতে আসা লোকজন। আমাদের এখানে তাদের তেমন একটা কাজ নেই। আমরা শুধু আবেদন গ্রহণ করতে পারি। বাকি কাজ হয় ডিসি অফিসে আর ইউনিয়নের কাজ হয় উপজেলার ইউএনও অফিসে। ডিসি বা ইউএনও অফিস সংশোধনী ছাড় না দিলে আমরা কিছুই করতে পারি না। ফলে সাধারণ মানুষ ঐ অফিসে না গিয়ে আমাদের এখানে চাপ প্রয়োগ করছেন। এতে তারা যেমন ভোগান্তিতে পড়েছেন, আমরাও কাজে বাধাগ্রস্ত হচ্ছি।

লেখক- ওসমান গনি (সাংবাদিক ও কলামিস্ট)

Previous articleপোল্যান্ড ও বুলগেরিয়াতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করল রাশিয়া
Next articleকালিহাতী পৌরসভায় প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ভিজিএফ’র চাল বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।