‘পিছিয়ে পড়া হোঁচট খাওয়া
প্রতি পদে পদে ক্লান্ত হওয়া
একটি জাতির মুক্তিদাতা
একজনই তুমি জাতির জনক
বঙ্গবন্ধু তুমি শতাব্দীর মহানায়ক’

৪ঠা জানুয়ারি, ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এর আগে আগেই ঘোষিত হলো ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি। অনেকটা অনুমিতই ছিলো সভাপতির নাম। সাধারণ সম্পাদক সহ আর যারা নেতৃত্বে এসেছেন তাদের সকলেই ক্লিন ইমেজের, মেধাবী এবং প্রগতিশীল।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিজ হাতে গড়া ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। সংগঠনটির দীর্ঘ পথচলায় রয়েছে দেশ ও জাতির জন্য গৌরবময় অসংখ্য অর্জন। সমৃদ্ধ সেসব অর্জন জাতিকে দিয়েছে নতুন পথের ঠিকানা। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সে-সময়ের বাংলার ভূ-রাজনৈতিক দাবি ও প্রেক্ষিতের আলোকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেন। পূর্ববাংলার শতভাগ মানুষের মুখের ভাষা বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা প্রতিষ্ঠিত করার দাবিতে; সর্বোপরি সাংগঠনিক প্রয়োজনীয়তা ও সংঘবদ্ধভাবে সফল আন্দোলন প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যেই জাতির পিতা ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামে ছাত্রলীগের সরব উপস্থিতি এবং সরকারের প্রতি চাপ সৃষ্টি করে দাবি আদায়ে ছাত্রলীগের ভূমিকা জাতির পিতা তার লেখনীতে তুলে ধরেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেন, ‘আওয়ামী লীগ গড়ে ওঠার পূর্ব পর্যন্ত একমাত্র ছাত্রলীগই সরকারের অত্যাচার-অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করত এবং জনগণ ও ছাত্রদের দাবি-দাওয়া তুলে ধরত। ছাত্র প্রতিষ্ঠান হিসেবে তাদের নেতাকর্মীদের অনেক অসুবিধা ভোগ করতে হয়েছে। মুসলিম লীগ সরকার ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠানকে খতম করার জন্য চেষ্টার ত্রুটি করে নাই।’ (অসমাপ্ত আত্মজীবনী পৃষ্ঠা নং-২৩৬)।

বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন সময়ে কোনো রাজনৈতিক পদক্ষেপ নিতে চাইলে অধিকাংশ সময় তা ছাত্রলীগ দিয়েই শুরু করতেন। বঙ্গবন্ধু কারাগারে থাকাকালীন ছাত্রনেতাদের চিঠি লিখে আন্দোলনের গতি বেগবান করতে দিকনির্দেশনা দিতেন। বলা যায়, ছাত্রদের রাজনৈতিক সক্রিয়তা এবং তাদের সংগঠিত করার প্ল্যাটফরম হিসেবে তিনি ছাত্রলীগকে প্রাধান্য দিতেন। দেশের বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন-সংগ্রামের ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখা যায়, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন, উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, সত্তরের সাধারণ নির্বাচন, একাত্তরের ১৭ হাজার নেতাকর্মীর আত্মত্যাগের মাধ্যমে মহান মুক্তিযুদ্ধে অবদান, নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, তথাকথিত এক-এগারো সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন – ইতিহাসের সবখানেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।নির্দ্বিধায় বলা যায়, জাতির যে কোনো সংকটে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রয়েছে অনন্য অবদান।
বঙ্গবন্ধু বিভিন্ন সভা-সমাবেশে, বক্তৃতায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অবদানের কথা বলতে গিয়ে বলেছেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাস ছাত্রলীগের ইতিহাস’, ‘দেশ গড়ার জন্য সোনার ছেলে চাই; সেই সোনার ছেলে গড়ার কারিগর ছাত্রলীগ’। বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নাম। জেল-জুলুম আর অত্যাচার-নির্যাতনে বঙ্গবন্ধুর জীবন ছিল জর্জরিত। তার যৌবনের ১৩টি বছর কেটেছে পাকিস্তান কারাগারে। ১৯৬৯ সালে ২১ দফা আন্দোলনের ভিত্তিতে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে ২২ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান জেল থেকে মুক্তি পান শেখ মুজিবুর রহমান।

২৩ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ জাতির পক্ষ থেকে বক্তৃতা করে কৃতজ্ঞতাস্বরূপ শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করেন। বঙ্গবন্ধু ও ছাত্রলীগ ওতপ্রোতভাবে জড়িত; এটি চিরন্তন সত্য।

বঙ্গবন্ধুর নিজের প্রচেষ্টায় ছাত্রলীগকে ছাত্রদের মাঝে একটি জনপ্রিয় সংগঠন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, ঠিক তেমনিভাবে তারই সুযোগ্যকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাও বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের ছাত্রসমাজের কাছে একটি জনপ্রিয় সংগঠন হিসেবে ছাত্রলীগকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বাংলাদেশে ছাত্ররাজনীতির ইতিবাচক ধারণা বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে এসেছে। ছাত্ররাই ছাত্ররাজনীতির নেতৃত্ব দেবে – এ উপলব্ধি থেকেই জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসার বয়সসীমা নির্ধারণ করে দেন; যা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে।
ইতিহাস বলে, দেশের যে কোনো সংকটকালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ তার সর্বোচ্চ দিয়ে দেশমাতৃকাকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে এসেছে। নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ভূমিকা ছিল অনবদ্য। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সাম্প্রদায়িক অপশাসনের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছিল। দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজগুলোর ক্যাম্পাসে ছাত্রদল ও শিবিরের অস্ত্রের ঝনঝনানিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছিল। তখন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ অছাত্রদের সংগঠন ছাত্রদল ও ছাত্রশিবিরকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনে।

ইতিহাস-ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গৌরবময় ইতিহাসের নবতম সংযোজন বর্তমান কমিটি। দেশবরেণ্য ছাত্রনেতা সাদ্দাম হোসেনের হাতে ছাত্রলীগের নেতৃত্ব এখন। আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতৃত্ব মাজহারুল কবির শয়নের হাতে।

ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির জন্য শুভকামনা।
(তথ্যসূত্রঃ বিভিন্ন গ্রন্থ ও সাময়িকী)
রফিক সুলায়মান : লেখক, শিল্প-সমালোচক

Previous articleতুচ্ছ বিষয়কে কেন্দ্র ঈশ্বরদীতে রিক্সা চালককে গুলি করে হত্যা
Next articleরংপুর সিটি নির্বাচন: দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমান ভোট হওয়ায় ফের নির্বাচন ১৫ জানুয়ারি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।