রাফী উল্লাহ, বাকৃবি: বর্নাঢ্য র‌্যালির মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) সপ্তম বারের মতো পশুপালন দিবস উৎযাপন হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় বাকৃবির পশুপালন অনুষদের সামনে থেকে ঐ আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে এসে শেষ হয়।

এনিমেল হাজবেন্ড্রি দিবস উপলক্ষে বাকৃবির শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনে একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়। সেমিনারে পশুপালন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবি অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সভাপতি ও সিন্ডিকেট সদস্য কৃষিবিদ আবদুল মান্নান। অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষকতা করেন ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আলী আকবর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মো. জসিমউদ্দিন খান ও বাংলাদেশ অ্যানিমেল হাজবেন্ড্রি অ্যাসোসিয়েশনের (বাহা) সভাপতি অধ্যাপক ড. সৈয়দ সাখাওয়াত হোসেন। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, প্রতিটি শিশু ও কিশোরের মুখে প্রতিদিন নূন্যতম এক গ্লাস দুধ, একটি ডিম ও ১২০ গ্রাম মাংস সরবরাহ নিশ্চিত করতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছে পশুপালন গ্রাজুয়েটবৃন্দ। বর্তমানে দুধ উৎপাদন ৯৪লক্ষ টন, ডিম উৎপাদন ১৫শো কোটি, মাংস উৎপাদন ৭২ লাখ টন এছাড়া আজ ব্রয়লার ও ডিম উৎপাদনে যে বিপ্লব সংঘটিত হয়েছে তার মূল কারিগর পশুপালন গ্রাজুয়েটবৃন্দ। এসময় প্রাণি উৎপাদন ও প্রাণি চিকিৎসা নামক দুটি পৃথক অধিদপ্তর গঠন, সকল বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও কৃষি ভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পশুপালন ডিগ্রি চালু , লাইভস্টক এক্সটেনশন অফিসার পদে শুধু পশুপালন গ্রাজুয়েটদের নিয়োগসহ মোট ৮ টি দাবি উত্থাপন করা হয়।