ধর্মঘটে যাচ্ছেন দেশের সাড়ে তিন লাখ প্রাথমিক শিক্ষক

সদরুল আইন: ন্যায়সঙ্গত দাবি দাওয়া পূরণ না হওয়ায় অনেকটা বাধ্য হয়েই আন্দোলনে যাচ্ছেন সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাড়ে তিন লাখ প্রাথমিক শিক্ষক।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১৪টি সংগঠন মিলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধান শিক্ষকদের জাতীয় বেতন স্কেলের দশম গ্রেডে ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন দেওয়ার দাবিতে আগামী ১৪ অক্টোবর সারাদেশের প্রায় ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করা হবে।

পরদিন ১৫ অক্টোবর পালন করা হবে দুই ঘণ্টার কর্মবিরতি।

এদিকে প্রাথমিক শিক্ষরা মনে করছেন তাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। মন্ত্রী বারবার কথা দিলেও অর্থ মন্ত্রণালসহ সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে সাড়া না থাকায় শিক্ষকদের কোন দাবিই অালোর মুখ দেখছে না।

তারা মনে করেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা হলো অালোকিত জাতি গঠনের প্রথম ও গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। এখানে ৮০% শিক্ষিক উচ্চ শিক্ষিত।সকল যোগ্যতা থাকার পরেও এই সেক্টরে সরকারের বিমাতাসূলভ অাচরণের কারনে প্রাথমিক শিক্ষা তার অভিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে ব্যর্থ হচ্ছে।

জাতি গঠনে হাইকোটের রায়ের বাস্তবায়ণ ও শিক্ষকদের. ন্যায় সঙ্গত যৌক্তিক দাবিসমুহ সরক্র মেনে না নিয়ে পরিস্থিতিকে ঘোলাটে করছে।

এদিকে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সাধারণ অভিভাবকরা।

তারা বলেন, আগামী মাসে (১৭ নভেম্বর) শুরু হতে যাচ্ছে চলতি বছরের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী ও ইবতেদায়ি পরীক্ষা। ইংরেজি পরীক্ষার মধ্য দিয়ে শুরু হবে এ পরীক্ষা।

২৪ নভেম্বর গণিত পরীক্ষা আয়োজনের মাধ্যমে শেষ হবে এ পরীক্ষা।চুড়ান্ত পরীক্ষার আর দেড় মাস মাত্র বাকি।

এ মুহূর্তে শিক্ষকরা বিদ্যালয় বন্ধ করে লাগাতার ধর্মঘটে গেলে শিশু শিক্ষার্থীদের অপূরণীয় ক্ষতি হবে।