বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২৪
Homeশিক্ষাশিক্ষার্থীকে হলে সিট দেওয়ার আশ্বাসে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে

শিক্ষার্থীকে হলে সিট দেওয়ার আশ্বাসে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ছাত্রলীগ কর্মীর বিরুদ্ধে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: শিক্ষার্থীকে হলের আবাসিক হলে সিট দেওয়ার আশ্বাসে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে। ব্যক্তিগত ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে এই টাকা নেয় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী। সাইফুল ইসলাম রিয়ন নামের ওই ছাত্রলীগ কর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি ও ভাষা সাহিত্য বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী৷ সে শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি ফয়সাল সিদ্দিকী আরাফাতের অনুসারী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাইফুল ইসলাম রিয়ন শুরুতে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে জিয়া হলের আবাসিকতা বাতিল করে সাদ্দাম হোসেন হলে লিগ্যাল সিট করার আশ্বাস দেয়। আতিক রহমান নামের ওই ছাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। রিয়নের আশ্বাসে আতিক প্রথমে জিয়া হলের আবাসিকতা পরিবর্তনের জন্য ব্যাংকে ৫০০ টাকা জমা দেয়। তার কয়েকদিন পর ৩১ আগস্ট ওই শিক্ষার্থীকে ডেকে নিয়ে প্রশাসন ভবনে যায় রিয়ন।

এসময় তাকে সিট লিগ্যাল করে দেয়ার জন্য ৪ হাজার ২০০ টাকা দিতে বলে। পরে টাকা নিয়ে ওই শিক্ষার্থীকে এক কর্মকর্তার অফিসে বসিয়ে একা গিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দেয় রিয়ন।

কিন্তু ঘটনার মোড় ঘুরে টাকা জমা দেয়ার রশিদ দেখে৷ সেখানে দেখা যায় সাইফুল নামের ‘০২০০০১৬২৬৮৭৮৭’ নম্বর একাউন্টে ৪,২০০ টাকা জমা দেয় রিয়ন৷ এসময় ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী রশিদে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কারো নাম না দেখে সাইফুলের একাউন্টে টাকা জমা দেয়ায় বিষয়ে সম্পর্কে জানতে চায়। এসময় রিয়ন বলেন, ‘আরে ভুল করে সাইফুল লিখা হয়েছে, টাকা তোর একাউন্টেই জমা হয়েছে। তুই চিন্তা করিস না।’

এদিকে ব্যাংকের ওই হিসাব নাম্বারের বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে মেলে আরেক চাঞ্চল্যকর তথ্য। সাইফুল নামের একাউন্টটি রিয়নের ব্যক্তিগত একাউন্ট বলে জানা যায়। যার পুরো নাম ‘সাইফুল ইসলাম রিয়ন’
বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী আতিক রহমান জানান, আমাকে হলে সিট লিগ্যাল করার কথা বলে রিয়ন ভাই ৪২০০ টাকা নিয়েছে। রশিদে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট কোন নাম না দেখে সাইফুল নাম দেখায় বিষয়টি সন্দেহজনক মনে হয়। পরে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি আমাকে অন্যভাবে বুঝিয়ে দেন৷ এদিকে হলে এসে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি লিগ্যাল সিট করতে এতো টাকা লাগে না। পরে তিনি আমাকে হলের গণরুমে থাকার নির্দেশ দেন।

বর্তমানে ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী প্রায় দুই মাস ধরে সাদ্দাম হলের ১৩৩ নম্বর গণরুমে আছেন বলে জানা গেছে৷ সময় হলে তাকে সিটে তুলে দেয়ার কথা জানায় রিয়ন।

তবে টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযুক্ত সাইফুল ইসলাম রিয়ন বলেন, আতিককে আমিই হলে তুলেছি। কিন্তু ওর থেকে টাকা নেই নি।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক ড. শফিকুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি প্রথম শুনলাম। এটা আসলেই কাম্য নয়। স্যারদের সাথে এখনি কথা বলে কি ব্যবস্থা নেয়া যায় সেটি দেখছি।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments