বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মাত্র ৯২ হাজার টাকা বাঁচাতে মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছেন চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস। প্রযোজক সমিতির সদস্যপদের আবেদনে ‘স্বামীর ঘরে’ লেখেন প্রাক্তন স্বামী শাকিব খানের নাম। বিব্রত প্রযোজক সমিতি আবেদনপত্র বাতিল করলে পুনরায় আবেদন করে সদস্যপদ নেন তিনি। কেন এমন করলেন অপু বিশ্বাস?

ঢাকাই চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় এই নায়িকা যতটা না কাজ নিয়ে তারও বেশি বিতর্কের জন্ম দিয়ে আলোচনায় আছেন গত কয়েক বছর ধরে।

বিরতির পর, ২০১৭ সালে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে সন্তান নিয়ে হাজির হয়ে শাকিব খানের সঙ্গে দীর্ঘ দাম্পত্য সম্পর্কের কথা সামনে আনেন।

তারপরের গল্প সবার জানা। সম্পর্ক, বিয়ে, গোপনীয়তা নিয়ে শাকিব-অপুর টানাপোড়েন সেই সময়ের সবচেয়ে চর্চিত বিষয়। যার সমাপ্তি ২০১৮ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বিবাহবিচ্ছেদে।

সম্প্রতি জয় চলচ্চিত্র নামে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খুলেছেন অপু। নিয়ম অনুযায়ী সনদ পেতে আবেদন করেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতিতে। যেখানে, স্বামী হিসেবে লেখেন শাকিব খানের নাম। চেয়েছেন বিশেষ ক্যাটাগরির সুবিধাও, যা নজরে আসতেই অবাক সমিতি।

এ প্রসঙ্গে পরিচালক ও প্রযোজক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম বলেন, মূলত শাকিব খানের স্ত্রী হিসেবেই তিনি সুবিধাগুলো চেয়েছেন।

প্রযোজক হতে যেখানে জমা দিতে হয় এক লাখ তিন হাজার টাকা, সেখানে বিশেষ ক্যাটাগরিতে মাত্র ১১ হাজার টাকাতেই পাওয়া যায় সদস্যপদ, সেই সুবিধা পেতেই কি সত্যি লুকিয়েছেন অপু?

শামসুল আলম আরো বলেন, হয়তো তাকে কেউ পরামর্শ দিয়েছেন এভাবে আবেদন করলে তিনি সুবিধা পাবেন। অপুও সে সুযোগটাই নিয়েছে। আমাদের কমিটির অনেকেই বলেছে, তাকে শোকজ করা হোক।

কেন মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছিলেন অপু? ফোনে সময় সংবাদকে অপু বলেন, আমি এই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

আইন অনুযায়ী শাকিব খানের স্ত্রী নন অপু। মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়ায় এ ব্যাপারে শাকিব খানেরও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।