বাংলাদেশ ডেস্ক: গত পহেলা মার্চ এক পাঁচতারা হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেছিলেন টালিগঞ্জের নায়িকা শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। দলের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বিজেপির পতাকা তুলে দিয়েছিলেন অভিনেত্রীর হাতে। ধবধবে সাদা সালোয়ারের সাথে হাসিমুখে তিনি পরে নিয়েছিলেন পদ্মফুলের উত্তরীয়।

নরেন্দ্র মোদির আদর্শে আস্থা রেখেছিলেন। বলেছিলেন, ‘আমার মনে হয়েছিল, রাজ্যের মানুষের মঙ্গলের জন্য কাজ করতে হলে এই দলেই যোগ দিতে হবে।’

রাজনীতিতে হাতেখড়ির পরেই নির্বাচনে দাঁড়ানোর টিকিট পেয়েছিলেন তিনি। বেহালা পশ্চিমের মতো গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে পদ্ম শিবিরের প্রার্থী হন শ্রাবন্তী। বিপরীতে তৃণমূলের পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের মতো হেভিওয়েট রাজনীতিবিদ।

প্রচারে কোনো ঘাটতি রাখেননি। বিলাসবহুল গাড়ি থেকে পথে নামেন নায়িকা। মুখে চেনা হাসি। পরনে সুতির শাড়ি, সালোয়ার। হাত জোড় করে পৌঁছে গিয়েছিলেন ঘরে ঘরে। আবদার মতো নিজস্বী তোলা থেকে মাটির ভাঁড়ে চা খাওয়া, প্রচারের জন্য বাদ রাখেননি কিছুই। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। প্রচুর ব্যবধানে হেরে যান শ্রাবন্তী।

এর পর থেকেই আর সক্রিয় রাজনীতিতে দেখা যায়নি তাকে। এ প্রসঙ্গে কথা উঠলেও, তা সচেতনভাবেই এড়িয়ে গিয়েছেন তিনি। নির্বাচনের হারের পরেই দলের সাথে বাড়তে থাকে দূরত্ব।

যোগদানের মাত্র ৯ মাসের মাথায় বিজেপি ছাড়লেন শ্রাবন্তী। টুইটে লেখেন, ‘বাংলার (পশ্চিমবঙ্গ) উন্নয়নের জন্য বিজেপি আন্তরিক নয়। বাংলার জন্য কাজ করার মনোভাবের অভাব রয়েছে তাদের।’

দল ছাড়তেই শুরু গুঞ্জন-জল্পনা। নিন্দা-সমালোচনা-কটাক্ষ নতুন করে ঘিরেছে তাকে। কিন্তু বিতর্কের সাথে শ্রাবন্তীর পথচলা বহু দিনের। একাধিক বিয়ে, ঘনঘন প্রেমের গুঞ্জন— শ্রাবন্তীর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা নেহাত কম নয়।

মাত্র ১০ বছর বয়সে প্রথম ক্যামেরার সাথে সম্পর্ক। স্বপন সাহার ‘মায়ার বাঁধন’ ছবিতে অভিনয় করেন শ্রাবন্তী। এর পর টেলিফিল্ম। সেই সূত্রেই পরিচয় পরিচালক রাজীব বিশ্বাসের সাথে। কাঁচা বয়সেই তার প্রেমে পড়েন শ্রাবন্তী। কাউকে না জানিয়েই মাত্র ১৬ বছর বয়সে বিয়ে করেন রাজীবকে। তার পরেই ছেলে অভিমন্যু আসে তাদের জীবনে।

সন্তান-সংসার সামলেই কাজে ফেরেন শ্রাবন্তী। ২০০৩ সালে রবি কিনাগীর ‘চ্যাম্পিয়ন’-এ নায়িকা হিসেবে আত্মপ্রকাশ। বিপরীতে জিৎ। এর পর টানা কাজ। রাজীবের একাধিক ছবিতেও অভিনয় করেন।

টলিউডের ‘সুখী দম্পতি’র তালিকায় তাদের নাম ছিল। তবে সম্পর্কে ফাটল ধরেছিল অনেক আগেই। ১৩ বছর সংসার করে ২০১৬ সালে বিচ্ছেদ। শোনা যায়, রাজীব বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়ানোয় আলাদা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন শ্রাবন্তী।

কিন্তু নায়িকার জীবনে প্রেম ফিরেছে বারবার। এ বার শ্রাবন্তীর জীবনে বসন্ত নিয়ে আসেন এক মডেল। নাম কৃষ্ণ ব্রজ। অপেক্ষা না করে ২০১৬ সালেই ধুমধাম করে তাকে বিয়ে করেন শ্রাবন্তী। কিন্তু সেই দাম্পত্যও এক বছরের বেশি টিকল না। গুঞ্জন, স্বামীর যৌন চাহিদা নিয়ে সংশয় ছিল তার।

প্রেমের প্রতি আস্থা হারাননি এর পরেও। দেখেছেন সংসার গড়ার স্বপ্ন। তখনই নায়িকার জীবনে প্রবেশ রোশন সিংহের। তখন তিনিএক নামী এয়ারলাইন্সের কেবিন ক্রু সুপারভাইজার। ২০১৯-এ চণ্ডীগড়ে পাঞ্জাবি মতে বিয়ে করেন তারা। সেই সুখও ক্ষণস্থায়ী। আবার এক বছরের মধ্যেই তাসের ঘরের মতো হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়ে শ্রাবন্তীর সংসার। শুরু হয় দোষারোপ-পাল্টা দোষারোপের পালা। আপাতত বিচ্ছেদের জন্য আদালতের দ্বারস্থ নায়িকা।

এই আইনি জটিলতার মাঝেই প্রেম আসে তার জীবনে। প্রেমিক তারই প্রতিবেশী। ব্যবসায়ী অভিরূপ নাগচৌধুরী। আপাতত নতুন প্রেমেই বুঁদ নায়িকা। শোনা যায়, অভিরূপের বাড়িতেই বেশিরভাগ সময় কাটান শ্রাবন্তী। জন্মদিনে হিরে বসানো প্লাটিনামের আংটি উপহার দিয়েছেন তাকে। প্রেমিকের পরিবারের সাথেও তার ঘনিষ্ঠতা চোখে পড়ার মতো।

গত আগস্ট মাসে প্রেমিকের সাথে উড়ে গিয়েছিলেন মলদ্বীপে। নীল পানির মাঝে বিলাসবহুল রিসোর্টে সময় কাটিয়েছেন শ্রাবন্তী। সঙ্গী হয়েছিলেন ছেলে অভিমন্যু এবং তার প্রেমিকা দামিনী ঘোষ।

ছেলের সাথে আগাগোড়াই তার বন্ধুত্ব। সব সিদ্ধান্তেই শ্রাবন্তীর পাশে থেকেছেন অভিমন্যু।

অভিমন্যুর সম্পর্ক নিয়েও অবগত নায়িকা। সময় কাটান ছেলের প্রেমিকার সাথেও। কয়েকদিন আগেই ছেলের সাথে পালন করেছেন দামিনীর জন্মদিন। সব বিতর্ক, কটাক্ষ পেরিয়ে পরিবার আর মনের মানুষকে নিয়েই মজে শ্রাবন্তী।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

Previous articleকক্সবাজারে নির্বাচনী সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবকের মৃত্যু, আরও ৪ জন গুলিবিদ্ধ
Next articleবিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালে ভোটারবিহীন নির্বাচন ও সংখ্যালঘু নির্যাতনে রেকর্ড গড়েছিল: কাদের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।