নাদিয়া আফরোজ শাওন: বিপাশা দি’র জন্মদিনে প্রকাশিত বিশেষ স্মারকগ্রন্থটি হাতে পেলাম। পাওয়া মাত্র পড়ে শেষ করে ফেললাম। সবার লেখা মন ছুঁয়েছে। একজন শিল্পীর স্মৃতি সংরক্ষণের এই উদ্যোগ প্রশংসনীয়।

বিশেষ একজন মানুষের অনুরোধে স্মারকগ্রন্থটির জন্য লেখা দিয়েছিলাম। সেই মানুষটিও বীপাশা’দির মতোই প্রচার বিমুখ। একটু শঙ্কা ছিল, আমার লেখা পছন্দ করবেন কিনা। ওমা! পরদিন জানালেন লেখা পছন্দ হয়েছে।

প্রসঙ্গ নজরুল-সঙ্গীতের আয়োজনে দিদির জন্মদিনের অনুষ্ঠানে গেলাম। এমন বেদনাবিধুর জন্মদিনে আমি আগে কখনো যাইনি। যে চলে গেছে তাকে মনে করে গানে গানে, চোখের পানিতে জন্মদিন পালন – আলো আঁধারিতে রহস‍্যময় ছায়ানট মঞ্চ। একই মঞ্চে নাহিদ মোমেন আপার সাথে গান করার সৌভাগ্যও হলো।

বিপাশা দি’র সম্মানে প্রকাশিত স্মারকগ্রন্থের জন্য আমার শ্রদ্ধাঞ্জলিটি শেয়ার করছি।

বাংলাদেশে নজরুল সংগীত চর্চায় উল্লেখযোগ্য নাম বিপাশা গুহঠাকুরতা। তার ভাষায়, তিনি ভালোবেসে জাতীয় কবির গান কণ্ঠে তুলে নেয়া, গানের ভুবনে একজন নিভৃতচারী শিল্পী।

তার কথা মনে হলেই চোখে ভেসে ওঠে, সুন্দর হাসিমাখা মুখ, পরিপাটি শাড়ি আর কপালে টিপ দেয়া ঝকঝকে চোখের একটি মানুষ। তার গান শুনে মুগ্ধ হননি এমন মানুষ পাওয়া যাবে না। তার গায়কী আর মধূর কন্ঠের বর্ণনা দেবার মতো শব্দ আমার জানা নাই।

আজ যখন তাকে নিয়ে লিখছি তখন তাকে খুঁজতে গিয়ে দেখি যে বিপাশা গুহঠাকুরতাকে দূর থেকে,গান শুনে চেনা আর সত্যিকারের চেনার মধ্যে তফাৎ হলো চাঁদের জোছনা দেখা আর চাঁদকে দেখার মতো। তার গানের জোছনায় আলোকিত নজরুল অঙ্গনসহ আমরা সবাই।

ব‍্যক্তি মানুষ হিসেবেও তিনি ছিলেন অসাধারণ।ইন্সটিটিউটের সদালাপি, হাস‍্যময়ী, পরোপকারি হিসেবে একবাক‍্যে সবাই তাঁকে চিনতেন।

তিনি গানের পাশাপাশি পরিবারের প্রতিটি সদস্য ও বন্ধু -বান্ধব কে কতটা সময় দিতেন,ভালোবাসতেন,তা তার মা,স্বামী সহ অজস্র বন্ধু-স্বজনের এর লেখায় ও কথায় বোঝা যায়।

কবি নজরুল ইন্সটিটিউটের নতুন ও প্রক্তন ছাত্র- ছাত্রীদের পুনমিলনীর জন‍্য বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছিল ; কিন্তু তিনি তখন যে অসুস্থ সে খবরটি আমাদের জানা ছিল না। এটা আমাদের ব‍্যর্থতা আমরা সবাই সবার খবর নিয়মিত নেই না। তার কাছ পযর্ন্ত যাওয়ার আগেই হটাৎ তিনি চলে গেলেন।
খুব সম্ভব ২০০০ সাল থেকে তিনি কয়েকবার ইন্সটিটিউটে বিশেষ ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে প্রশিক্ষক সুধীন দাশের সুযোগ্য ছাত্রী ও নজরুল ইন্সটিটিউটের গর্বে পরিনত হন।আজ তিনি থাকলে আমাদের পুনমিলনীতে খুশির বন‍্যা বয়ে যেতো তাতে কোন সন্দেহ নেই।

তিনি হয়তো আমাদের মাঝে নেই কিন্তু তার গানগুলো ;তার নামটি কবি নজরুল ইন্সটিটিউটে রয়ে যাবে আজীবন। আরো রয়ে যাবে, আমাদের হৃদয়ে।

Previous articleসুন্দরগঞ্জে আ’লীগের উদ্যোগে চক্ষুশিবির
Next articleকোম্পানীগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।