শুক্রবার, মে ২৪, ২০২৪
Homeবিনোদনকেমন করে লিখি? - অনুপা দেওয়ানজী

কেমন করে লিখি? – অনুপা দেওয়ানজী

অনুপা দেওয়ানজী: লিখতে চেয়েছি অনেকবার, কিন্তু কিছুই পারি নি লিখতে। মন ও হাত কোনটাই কাজ করছিল না। গুটিয়ে নিয়েছি হাত ও মন দুটোই।
চাইলেই কি সব বিষয়ে লেখা যায়? ‘কি লিখবো তার চেয়েও যে বড় ‘কেমন করে লিখবো?
হারানোর বেদনা যখন তীব্র থাকে তখন তাকে উৎরে কি কলম ধরা যায়?
পৃথিবীতে যতরকম কষ্ট আছে সন্তান হারাবার কষ্টের মতো বুঝি আর কিছু নেই।
আমি এক তেমনি সন্তানহারা মা।মাত্র কিছুদিন আগে আমি আমার বড় মেয়েটিকে চিরতরে হারিয়ে ফেলেছি।মেয়েটা চলে যাবার পর থেকে আমি আজও একরকম ঘোরের মধ্যে আছি।আমার মেয়েটা নেই একথা আমি কিছুতেই মন থেকে মেনে নিতে পারি না।

ও যে আছে আমার নি:শ্বাসে প্রশ্বাসে,আমার চিন্তায়,আমার হৃদয়ে।
ভালোবাসার কথা উঠলে মেয়ে আমাকে বলতো মা তুমি আমাকে যতটা না ভালোবাসো আমি কিন্তু তার চেয়ে তোমাকে অনেক বেশি ভালোবাসি।আমি বলতাম তাই বুঝি? মেয়ে উত্তর দিত আমার যে একটাই মা তোমার তো তিনটি সন্তান।

শুধু মা-মেয়ের সম্পর্ক নয়। আমাদের মধ্যে ছিল নিবিড় এক বন্ধুত্বের বন্ধন। বন্ধুর মতো নানা বিষয় নিয়ে আমাদের রোজ কথা হত মাঝে মাঝে জোর তর্কও হত কখনো মতের মিল হয়েছে কখনো বা হয়নি। কিন্তু সে সব তর্কের রঙ,রুপ আর স্বাদ ছিল একেবারেই আলাদা।

তিন সন্তানের মধ্যে ও সবার চেয়ে বড় হলেও ওর মধ্যে ছিল শিশুর মতো একধরণের সরলতা। সেই সরলতার সাথে মিশেছিল চিন্তার গভীরতা ও দূরদর্শিতাও।
মায়ের ওপরে ছিল তার বিশেষ এক আস্থা।
কত কথাই যে আমার কাছে বলত।
ও চলে যাবার পরে ওর বাড়িতে যখন যাই তখন ওর হাতের সাজানো বাড়িটার চারিদিকে চোখ বুলালেই দেখি সব কিছু ঠিক তেমনি আগের মতোই আছে।

ওয়ার্ড্রোবের ভাঁজে ভাঁজে পরিপাটি করে গোছানো শাড়ি ব্লাউজ
ড্রেসিং টেবিলে সাজার জিনিষ।
টান টান বিছানা,পায়ের কাছে নরম নকশী কাঁথা।বিছানার একধারে ছোট্ট টেবিলের পরে চশমা, ফুলদানি আর চার্জার
এক কোনে হারমোনিয়াম আর গানের বই।
জানালার ধারে উঁকি দিলে মেঘের উঁকিঝুঁকি , পাখি ওড়ে,
কার্নিশে এসে চড়াই ডাকে,
হঠাৎ ছুটে যাওয়া কোন গাড়ি
বা রিকশার টুংটাং শব্দ।
কৃষ্ণচুড়ার ঝিরিঝিরি পাতাদের ঝুরঝুর করে ঝরে পড়া।
মনে করতে চাইনা যে সে নেই।
মনটা হু হু করে ওঠে।
তবুও সময় বয়ে যায়।
রান্নাঘরে যাই,
ফ্রিজ থেকে এটা ওটা বের করে রাঁধি।
টেবিলে প্লেট লাগাতে গিয়ে মনে পড়ে সে নেই।
প্লেট তেমনি পড়ে থাকে আমি হাত গুটিয়ে ফিরে আসি
বুকের ভেতরটা কেঁদে ওঠে।
এ রান্না আমি কার জন্যে রেঁধেছি?
সে যে নেই কোথাও নেই।
বারান্দায় আসি।ওর সযত্নে লাগানো
নিবিড় সবুজ পাতার গায়ে হাত বুলিয়ে দিই।
বোবা গাছ কথা কয়না তবে শাখা দুলিয়ে কি যেন আমাকে বলতে চায়
ওরা কি আমার ব্যথা বোঝে?
হয়তো বোঝে।
ওরাও যে তাকে হারিয়েছে।

অনুপা দেওয়ানজী : অকালপ্রয়াত নজরুল-সঙ্গীত শিল্পী বিপাশা গুহঠাকুরতা’র মা। লেখিকা ও নারী উদ্যোক্তা।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments