আইএস ব্রাইড শামীমা

কাগজ ডেস্ক: হত্যার হুমকি দেয়ায় সিরিয়ার শরণার্থী শিবির থেকে সদ্যজাত সন্তান জেরাহকে নিয়ে পালিয়েছেন ‘আইএস ব্রাইড’ বলে খ্যাত শামীমা বেগম। তাকে অন্য জিহাদিদের স্ত্রীরা হত্যার হুমকি দিয়েছে বলে বলা হচ্ছে। এ জন্য নিজের ও সন্তানের জীবন বাঁচাতে বৃহস্পতিবার পালিয়েছেন শামীমা।
এ খবর দিয়েছে ব্রিটেনের একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণ। এতে বলা হয়েছে, শামীমা প্রকাশ্যে আইএসের বিরুদ্ধে কথা বলার কারণে তার মাথার মূল্য ঘোষণা করা হয়েছে। এমন অবস্থায় সবকিছু গুছিয়ে নিয়ে আরেকটি গাদাগাদি করা আশ্রয়শিবিরের উদ্দেশে ছুটে গেছেন তিনি। অন্য জিহাদী স্ত্রীরা বিশ্বাস করেন, নিজের দুর্ভোগের কথা প্রকাশ করে তাদের জন্য অভিশাপ বয়ে এনেছেন শামীমা। তাই তারা তাকে হত্যার সংকল্প নিয়েছে।

উল্লেখ্য, ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগম সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে আল হাওল শরণার্থী শিবিরে থাকা অবস্থায় তার জীবনের বিভিন্ন অধ্যায় নিয়ে বেশ কিছু সাক্ষাতকার দিয়েছেন। তাতে তিনি তার সন্তানের ভবিষ্যতের জন্য ব্রিটেনে ফেরার আকুতি জানিয়েছেন। কিন্তু ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ তার নাগরিকত্ব বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বিষয়টি এখন আদালতে গড়িয়েছে। বাংলাদেশ থেকে ব্রিটেনে গিয়ে বসতি স্থাপনকারী সুনামগঞ্জের দিরাইয়ের আহমেদ আলীর মেয়ে শামীমা। তাকে বাংলাদেশে পাঠানো হতে পারে বলে মিডিয়ায় আলোচনা ওঠে। ব্রিটিশ সরকারও সেদিকে ইঙ্গিত করে। কিন্তু বাংলাদেশ শামীমাকে গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। এ নিয়ে বাংলাদেশ স্পষ্ট জবাব দিয়েছে ব্রিটিশ সরকারকে।
ওদিকে সাক্ষাতকার দেয়ার কারণে তার ওপর প্রতিশোধ নেয়া হতে পারে এই আতঙ্কে শামীমা। তাই তিনি রাতের বেলা ছদ্মবেশ ধারণ করে ইরাক সীমান্তের কাছে আল রোজ শরণার্থী শিবিরে ছুটে গেছেন। সঙ্গে নিয়ে গেছেন তার এক সপ্তাহ বয়সী ছেলে জেরাহকে। সপ্তম শতাব্দীতে ইসলামিক যোদ্ধার নাম অনুসারে তিনি ওই সন্তানের নাম রেখেছেন জেরাহ।
একটি সূত্র বলেছে, আল হাওল শরণার্থী শিবিরে শামীমাকে সরাসরি হুমকি দেয়া হয়েছে। তিনি জীবন নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে বসবাস করছেন। তার মাথার বিনিময়ে অর্থ পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। তাই বেঁচে থাকার জন্য নিজের সন্তান সহ অন্যত্র পালিয়ে যাওয়া ছাড়া কোনো সুযোগ ছিল না তার সামনে।
শামীমার মাথার দাম ঘোষণা
ব্রিটিশ ওই পত্রিকাটি লিখেছে, সাক্ষাতকার দেয়ার পর শামীমা যেন সেলিব্রেটি হয়ে ওঠেন। আইসিসের অধীনে জীবন কেমন তা নিয়ে কথা বলার সাহস দেখানোর জন্য তার ওপর নৃশংস প্রতিশোধ নেয়া হতে পারে বলে তিনি আতঙ্কিত। তাই তিনি বার বার মাথা ঘুরিয়ে কাঁধের ওপর দিয়ে পিছনে দেখে নেন। সূত্র বলেছে, শামীমা এক ভয়াবহ অবস্থার মধ্যে আছেন। এ জন্য তিনি নিজেই দায়ী।
তিনি টেলিভিশনে যে সাক্ষাতকার দিয়েছেন তাতে তিনি ইসলামিক কট্টর আইন অনুসরণ করে মুখ ঢেকে রাখেন নি। এ জন্য ধর্মীয় উগ্রবাদীরা তার ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন। এ জন্য তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। তবে তার মাথার দাম কত ঘোষণা করা হয়েছে তা জানা যায়নি।