শেখ সেকেন্দার: মালয়েশিয়ার মালাকায় অভিযানে ২২ বাংলাদেশিসহ ৩১ জন অবৈধ অভিবাসীকে আটক করেছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। মার্চের প্রথম দিনেই কুয়ালালামপুর শহর থেকে ৩০০ কিলোমিটার দূরে মালাকা শহরে ভোর ৫টার দিকে ডুরিয়ান টুংগাল, সুংগায় পাতুত এবং বুকিত কাতিলের শুরু হওয়া অভিযানে আটক করা হয় ২৩০ জন বিভিন্ন দেশের অভিবাসীকে।
আটকদের মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে বৈধ কাগজপত্র না থাকায় ২২ বাংলাদেশি ও ইন্দোনেশিয়ার ৯ জনকে আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে ইমিগ্রেশন রেগুলেশন, ১৯৬৩, ধারা ৬ (১) (গ) এবং ধারায় ১৫ (১) (গ) গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।
দেশটিতে চলমান অভিযানে গ্রেফতার হচ্ছেন বৈধ বাংলাদেশিরাও। নামবিহীন দালালের মাধ্যমে বৈধ হয়ে অন্যত্র কাজের মধ্যেই গ্রেফতার হয়ে জেলে যেতে হচ্ছে তাদের। সে’দেশের অভিবাসন বিভাগের নিয়ম অনুযায়ী যে মালিকের নামে ভিসা করা হয়েছে, সেই মালিকের কাজ করতে হবে, অন্যথায় তাদেরকে অবৈধ হিসেবে গণ্য করা হবে। আর অন্যত্র কাজ করা অবস্থায় ধরা পড়লে যেতে হবে জেলে।
অভিবাসী বিভাগের মহাপরিচালক বলেন, ‘বিদেশি শ্রমিকরা আজ বৈধ, কাল অবৈধ। বিগত দিনে আউটসোর্সিং কোম্পানির মাধ্যমে বিপুল সংখ্যক বিদেশি শ্রমিকরা ভিসা করে মালয়েশিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলের কলকারখানায় কাজ করতো। যা মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারকে কালো অধ্যায় হিসেবে বিবেচিত করা হয়। বিদেশি শ্রমিকদের বাসস্থান ও কিঞ্চিৎ মজুরিতে জিম্মি করে বছরের পর বছর কাজ করানো হয়েছে।
ইমিগ্রেশনের অফিসার নার আজমান ইব্রাহিম বলেন, ‘চাকরির শর্ত লঙ্ঘন করায় কয়েকজন মালিককেও গ্রেফতার করা হয়।