কাগজ ডেস্ক: পাকিস্তান সীমান্তে আবারো ভারতীয় যুদ্ধবিমান মিগ-২১ বিধ্বস্তের ঘটনা ঘটেছে। প্যারাসুটের মাধ্যমে বেঁচে আসা পাইলট জানিয়েছেন, হঠাৎ এক ঝাঁক পাখি ঘিরে ধরে বিমানটিকে। কয়েকটি ইঞ্জিনে ঢুকে পড়ার পর গোলমাল শুরু হয়, কোন মতে প্যারাসুট নিয়ে বের হতে সক্ষম হন তিনি। খবর ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের।

এনডিটিভি জানিয়েছে, শুক্রবার বিকালে রাজস্থান রাজ্যের বিকেনার জেলায় পাকিস্তান সীমান্তবর্তী এলাকায় বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে। সম্প্রতি মিগ-২১ দিয়েই পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরে হামলা চালিয়েছিলেন ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমান।

ভারতের বিমান বাহিনীর মুখপাত্র বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে আমরা জেনেছি রাজস্থানে পাখির কারণে বিমানটির ইঞ্জিনে কারিগরি সমস্যা দেখা দেয়। বিধ্বস্ত হওয়ার কারণ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে বিশেষজ্ঞ কমিটির মাধ্যমে তদন্ত করা হবে।’

বিকেনার জেলার পুলিশ সুপার প্রদীপর মোহন শর্মা বলেন, খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত কারও নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

২৭ ফেব্রুয়ারি মিগ-২১ নিয়ে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরে হামলা চালান ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমান। পাকিস্তানি যুদ্ধবিমানের হামলায় তার বিমানটি বিধ্বস্ত হলেও শেষ মুহূর্তে বের হয়ে আসেন তিনি। পরে স্থানীয়রা তাকে আটক করে। ‘শান্তির বার্তা’ হিসেবে দ্রুত তাকে মুক্তি দেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

ভারত-চীন যুদ্ধের পরপরই ১৯৬০-এর দশকে ভারতীয় বিমান বাহিনীতে মিগ বিমান অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ২০০৬ সালে এটিকে মিগ-২১ বাইসন সংস্করণে আপগ্রেড করা হয়। শক্তিশালী বহুমুখী রাডার, উন্নত অ্যাভিওনিক্স এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা দিয়ে এই বিমানকে ঢেলে সাজানো হয়। এই জেটগুলি প্রাথমিকভাবে শুধুমাত্র ‘ডাম্ব বম্ব’ বহন করতে পারত, এখন ক্ষেপণাস্ত্রও বহন করতে পারে।

১৪ ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামায় গাড়ি বোমা হামলায় দেশটির সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্সের (সিআরপিএফ) ৪৯ জন সেনা নিহত হয়। হামলার দায় স্বীকার করে পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদ। হামলার পর থেকে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।