কাগজ প্রতিবেদক: রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, ‘বোরকা পরে অনেক নারী অপরাধ কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছেন’। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আজ শুক্রবার দুপুরে পঞ্চগড় সরকারি মিলনায়তন চত্বরে জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘হিজাবের নামে নারীরা নিজেরাই নিজেদের বন্দী করে ফেলছে। এটির মধ্যেও সুক্ষ ধর্মীয় প্রচারণা রয়েছে। এটি এখন বাংলাদেশের প্রত্যেক জায়গায় শুরু হয়েছে। জামায়াতের একদল আছে যাদের চোখ ছাড়া কিছুই দেখা যায় না। এসবের সঙ্গে ধর্মের বড় ধরণের সম্পর্ক আছে বলে আমি মনে করছি না। বোরকা পরে অনেক নারী ক্রাইম করছে।’

নারীরাই নারীদের দ্বারা বেশি নির্যাতনের শিকার হচ্ছে উল্লেখ করে নূরুল ইসলাম বলেন, ‘তাই নারীদের নিজেদের অধিকার রক্ষার জন্য নিজেদেরই এগিয়ে আসতে হবে। সেই সঙ্গে নারীদের সুশিক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। নারীদের মধ্যে যতই শিক্ষার আলো প্রবেশ করবে ততই তারা তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হবে।’

রেলমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর ক্ষমতায়নে বৈরী পরিবেশের মধ্যেই কার্যকর অনেকগুলো কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছেন। স্থানীয় সরকার থেকে জাতীয় সংসদ পর্যন্ত নারীদের জন্য সংরক্ষিত আসনের ব্যবস্থা করেছেন। পুলিশ, প্রশাসন, বিজিবি, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনীতে নারীরা পুরুষের সমান অবদান রাখছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত দারিদ্রমুক্ত ও বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে।’

নারী-পুরুষ বৈষম্যহীন সমাজ গঠনে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘কোটা আন্দোলনে নারীদেরই ক্ষতি হয়েছে। নারীরা বলতে পারত তাদের কোটা রাখতে হবে। কিন্তু তারাই আন্দোলনে নেমেছে। তাই কোটা বাদ দেওয়া হয়েছে।’

অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন পঞ্চগড়ে জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন। এতে আরও বক্তব্য দেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার সাদাত সম্রাট, পঞ্চগড় সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর কানাই লাল কুন্ডু, পুলিশ সুপার গিয়াসউদ্দিন আহমদ, সিভিল সার্জন ডা. নিজামউদ্দিন।

এর আগে মন্ত্রী রঙিন বেলুন উড়িয়ে দিনব্যাপি নারী উন্নয়ন মেলার উদ্বোধন করেন। মেলায় নারীদের তৈরি বিভিন্ন জিনিস ও হস্তশিল্প নিয়ে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ১০টি স্টল অংশ নেয়।