বাংলাদেশ ডেস্ক: ভারতে বিতর্কিত কৃষি আইন নিয়ে তীব্র আন্দোলনের মধ্যেই এবার আইনের পক্ষে পার্লামেন্টে সাফাই গাইলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা মেনে আইনটির পক্ষে সবার সমর্থন দেয়া উচিত। ফের আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারের এমন মনোভাব প্রকাশের পর অধিবেশন বয়কট করে ১৯টির মতো বিরোধী দল। আর কৃষক নেতারাও শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, দাবি না মানা পর্যন্ত রাজপথ ছাড়বেন না তারা।

ভারতে কৃষকদের আন্দোলন ধীরে ধীরে রূপ নিচ্ছে গণবিক্ষোভে। প্রজাতন্ত্র দিবসে কৃষকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে ঘটে প্রাণহানির ঘটনা। তা নিয়ে উত্তেজনার মধ্যেই পার্লামেন্টে বিতর্কিত তিনটি কৃষি আইনের সমর্থনে কথা বলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ।

ভারতে শুক্রবার শুরু হওয়া বাজেট অধিবেশনের শুরুতেই রাষ্ট্রপতি তার বক্তব্যে বিতর্কিত কৃষি আইন সমর্থন করে বলেছেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা সবার মানা উচিত। রামনাথ কোবিন্দ বলেন, কারো রেশন যেন বাদ না যায় সেজন্য ৯০ শতাংশ রেশন কার্ড ডিজিটাল করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, কৃষকদের সব রকম সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে মোদি সরকার। তিনটি কৃষি আইনের কারণে কৃষকদের আয় বাড়বে বলেও মন্তব্য করেন রাষ্ট্রপতি।

রাষ্ট্রপতির এমন বক্তব্যের পর কৃষকদের প্রতি সমর্থন জানিয়ে, কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে অধিবেশন বয়কট করেছে ১৯টি বিরোধী দল। বিশ্লেষকরা বলছেন দেশব্যাপী বিক্ষোভের মধ্যে রাষ্ট্রপতির এমন বক্তব্য আগুনে ঘি ঢালার সমান। কৃষক নেতারা বলছেন, দাবি মানা না হলে রাজপথ ছাড়বেন না তারা। দিল্লি প্রবেশের পথ ঘিরে রেখেছেন কৃষকরা।

‘আমরা কোনো মতেই রাজপথ ছেড়ে যাবো না। যতই নির্যাতন করুক, সরকারকে একদিন ঠিকই দাবি মানতে হবে।’

‘সরকারের সঙ্গে কথা বলবো। এটাই এখন মূল বিষয় আমাদের।’

এর মধ্যেই বৃহস্পতিবার রাতে বিক্ষোভরত কৃষকদের দিল্লি সীমান্ত থেকে সরানোর চেষ্টা চালায় উত্তর প্রদেশের পুলিশ। মোতায়েন করা হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীর ১ হাজার সদস্য। এছাড়া দিল্লি-হরিয়ানা সীমান্তের সিঙ্গুতেও নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।