বাংলাদেশ ডেস্ক: ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার হামলার পরিপ্রেক্ষিতে জার্মানির চরম দক্ষিণপন্থী ও বামপন্থী দলের মধ্যে কোন্দল দেখা দিয়েছে। ‘রাশিয়া প্রীতি’ ঝেড়ে ফেলার জন্য সাবেক চ্যান্সেলর শ্রোয়েডারের উপরও চাপ বাড়ছে।

ইউক্রেনের উপর রুশ হামলা পশ্চিমা বিশ্বের রাজনীতি জগতকে অনেকটাই নাড়িয়ে দিয়েছে। ভ্লাদিমির পুতিনের প্রকৃত পরিকল্পনা সম্পর্কে পূর্বাভাস সত্য প্রমাণিত হওয়ায় জার্মানিসহ ইউরোপের অনেক দেশ নিরাপত্তা, প্রতিরক্ষা থেকে শুরু করে জ্বালানি নীতি সম্পর্কে একেবারে নতুন করে ভাবনাচিন্তা করতে বাধ্য হচ্ছে।

গত রোববার জার্মান সংসদের নিম্নকক্ষে চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে দেশের সেনাবাহিনীর জন্য বাড়তি অর্থায়ন ও জ্বালানি নীতির ক্ষেত্রে বড়সড় রদবদলের ঘোষণা করেন। সরকারের শরিক সামাজিক গণতন্ত্রী এসপিডি, উদারপন্থী এফডিপি ও পরিবেশবাদী সবুজ দল যে সেই নীতির পক্ষে জোরালো সমর্থন জানাবে তা বলাই বাহুল্য। প্রধান বিরোধী দল হিসেবে সাবেক চ্যান্সেলর ইউনিয়ন শিবিরও দেশের কঠিন সময়ে দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে সরকারের রাশিয়া নীতির প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে।

কিন্তু জাতীয় স্তরে ঐক্যের এই সুরে তাল মেলাতে প্রস্তুত নয় জার্মানির চরম দক্ষিণপন্থী এএফডি দল ও বামপন্থী দল ‘ডি লিংকে’। রাজনৈতিক আদর্শের দুই মেরুতে অবস্থান সত্ত্বেও ‘অন্ধ রাশিয়া-প্রীতি’র প্রশ্নে এই দুই দলের মধ্যেই অদ্ভুত মিল রয়েছে। কোনো প্ররোচনা ছাড়াই ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার হামলা অবশ্য দুই দলের একাংশে অস্বস্তি সৃষ্টি করছে।

সাবেক পূর্ব জার্মানির কমিউনিস্ট পার্টির উত্তরসূরি ডি লিংকে দলের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে কোন্দল দেখা যাচ্ছে। সারা ভাগেনক্নেশট-সহ দলের সাতজন সংসদ সদস্য এক যৌথ বিবৃতিতে ইউক্রেনে জার্মানির অস্ত্র সরবরাহ ও রাশিয়ার উপর জার্মানির নিষেধাজ্ঞার কড়া সমালোচনা করেন।

দলের পররাষ্ট্র বিষয়ক মুখপাত্র গ্রেগর গিসি এক খোলা চিঠিতে তাদের ‘গোঁড়া’ ও ‘আবেগহীন’ অবস্থানের কড়া সমালোচনা করেছেন। আক্রান্ত দেশ হিসেবে ইউক্রেনের আত্মরক্ষার অধিকারের প্রতি অবজ্ঞারও অভিযোগ করেছেন তিনি। ভাগেনক্নেশট অবশ্য গিসির অভিযোগ উড়িয়ে তার পাল্টা সমালোচনা করেছেন। তিনি সামরিক সংঘাত মেটাতে কূটনৈতিক স্তরে আরো উদ্যোগের পক্ষে সওয়াল করেছেন।

জার্মানির চরম দক্ষিণপন্থী এএফডি দলের মধ্যেও পুতিনের কাণ্ড নিয়ে অস্বস্তি কম নয়। দলের একাধিক সদস্যের সাথে ক্রেমলিনের বর্তমান শাসক মহলের ঘনিষ্ঠতার অনেক দৃষ্টান্ত রয়েছে। কিন্তু ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার হামলার পর দলের একাংশ ভোল বদলে প্রকাশ্যে এমন পদক্ষেপের নিন্দা জানানোর পক্ষে সওয়াল করছেন।

জার্মান সেনাবাহিনীর সাবেক জেনারেল হিসেবে দলের অন্যতম নেতা ইওয়াখিম ভুন্ডরাক বলেন, বর্তমানে একমাত্র নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমেই রাশিয়ার উপর চাপ সৃষ্টি করা সম্ভব, যদিও তার পরিণতি এখনো স্পষ্ট নয়।

বাম ও ডানপন্থী দুই দলের পাশাপাশি ‘রাশিয়া-প্রীতি’ ঝেড়ে ফেলার জন্য চাপের মুখে রয়েছেন জার্মানির সাবেক চ্যান্সেলর গেয়ারহার্ড শ্রোয়েডার। পুতিনের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত এসপিডি দলের এই সাবেক নেতা রাশিয়ার একাধিক বড় কোম্পানির পরিচালকমণ্ডলীর সদস্য। তার দফতরের প্রধানসহ চারজন কর্মী শ্রোয়েডারের মুখে ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার নিন্দার কোনো লক্ষণ না দেখে পদত্যাগ করেছেন। এসপিডি দলের একাংশ তাকে বহিষ্কারের দাবি জানালেও দলের সাধারণ সম্পাদক কেভিন ক্যুনার্ট সেই সম্ভাবনা উড়িয়ে দিয়েছেন।

সূত্র : ডয়চে ভেলে

Previous articleভ্যাকুয়াম বোমা আসলে কী, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে এ অস্ত্রের ব্যবহার
Next articleগাছের সাথে এ কেমন শত্রুতা ! সাপাহারে তিন বিঘা জমির আমগাছ কেটে সাবাড়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।