বাংলাদেশ প্রতিবেদক: পাকিস্তানে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বহুল আলোচিত ‘আজাদি মার্চ’কে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক উত্তেজনা তুঙ্গে রয়েছে। দুই পক্ষ সমঝোতার যে খবর পাকিস্তান মিডিয়া প্রকাশ করেছিল, তা উভয়পক্ষই অস্বীকার করেছে। দেশটির কেন্দ্রীয় সরকার এবং ইমরান খানের পিটিআই উভয়ে দাবি করেছ, পিটিআই লং মার্চের বদলে ‘জলসা’ করবে বলে যে খবর প্রচারিত হয়েছে, তা ঠিক নয়।

পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী মরিয়ম আওরঙ্গজেব বলেন, পিটিআইয়ের সাথে আলোচনা ও সমঝোতার খবরটি ‘ভিত্তিহীন।’

অন্য দিকে ইমরান খান বলেছেন, সরকারের সাথে সমঝোতার কোনো প্রশ্নই নেই। তারা তাদের পরিকল্পিত ‘আজাদি মার্চ’ অব্যাহত রাখবেন।

তিনি বলেছেন, কোনো বাধাই তাদের আজাদি লংমার্চকে ঠেকাতে পারবে না। যে কোনো মূল্যে লংমার্চ তার কেন্দ্রে পৌঁছবেই যদিও সরকার অংশগ্রহণকারীদের ওপর ব্যাপক ধরপাকড় চালাচ্ছে।

এর আগে খবর প্রকাশিত হয়েছিল যে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনার প্রেক্ষাপটে ইমরান খান লং মার্চের বদলে জলসা করবে। আর সরকার তাতে কোনো বাধা দেবে না।

সর্বকালের সর্বোচ্চ রাজনৈতিক অস্থিরতার ভেতর সবার চোখ নিবদ্ধ ইসলামাবাদের দিকে, শহরটিতে পিটিআই কর্মীরা এসে জড়ো হতে বিভিন্ন শহর থেকে রওনা হয়েছেন। পিটিআই ঘোষিত আজাদি মার্চ সফল করতে কর্মী ও নেতৃবৃন্দ রাজধানী ইসলামাবাদে পৌঁছার শপথ নেন যদিও সরকার এটি নিষিদ্ধ করে।

ইমরান খান দাবি করেছিলেন তার লং মার্চ বা ‘আজাদি মার্চ’ হবে পাকিস্তানের ইতিহাসে ‘বৃহত্তম’।

তবে নিরাপত্তা বাহিনীর উদ্ধৃতি দিয়ে পাকিস্তানের কয়েকটি মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, ইমরানের আন্দোলন ভণ্ডুল করে দিতে তাকে ও তার কয়েকজন ঘনিষ্ঠ সহযোগীকে গ্রেফতার করা হতে পারে।

সর্বকালের সর্বোচ্চ রাজনৈতিক অস্থিরতার ভেতর সবার চোখ নিবদ্ধ ইসলামাবাদের দিকে, শহরটিতে পিটিআই কর্মীরা এসে জড়ো হবে। পিটিআই ঘোষিত আজাদি মার্চ সফল করতে কর্মী ও নেতৃবৃন্দ রাজধানী ইসলামাবাদে পৌঁছার শপথ নেন যদিও সরকার এটি নিষিদ্ধ করে।

এরই মধ্যে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় লাহোর। পাঞ্জাবেও ইমরান খানের ‘আজাদি মার্চ’ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নেয় শাহবাজ সরকার। কিন্তু ইমরানের সমর্থকরা বিভিন্ন স্থানে পুলিশের ব্যারিকেড পার হয়ে মার্চ অব্যাহত রেখেছে। আর তাতে বাধা দেয়াতেই রণক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে লাহোরের বিভিন্ন সড়ক। লাহোরের বাটিচক এলাকায় পিটিআই কর্মীদের সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়ে পরে পুলিশ। পাঞ্জাবে ব্যাপক টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে পুলিশ।

মিছিল লক্ষ্য করে টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়। লাহোরে পিটিআই’র নেতারা সকল কর্মীদের বাটিচকে জড়ো হয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এখান থেকেই রাজধানী ইসলামাবাদের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবেন তারা।

এদিকে জিও টিভি জানায়, টুইটারে পাকিস্তানের সাবেক জ্বালানী মন্ত্রী হামাদ আজহার জানিয়েছেন যে, তিনি এরই মধ্যে বাটিচকে পৌঁছেছেন। সেখানে পৌঁছার পথে পুলিশ তাকে বাধা দিলে পিটিআই নেতাকর্মীরা তাকে পাহারা দিয়ে যথাস্থানে পৌঁছে দেন।

পুলিশ পিটিআইয়ের জেলা সভাপতিসহ শিয়ালকোট থেকে বেশ কিছু রাজনৈতিক কর্মীকে গ্রেফতার করেছে। নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে সেখানেও টিয়ার গ্যাস ছোড়ে পুলিশ।

টুইটারে হামাদ আজহার লিখেছেন, ‘কালাশাহ কাকুর কাছে আমাদের মিছিলের ওপর ব্যাপক টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে।’

পুলিশ পিটিআই নেতাদের আটকাতে ব্যারিকেড এবং চেকিং অব্যাহত রেখেছে। সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়াসমিন রশিদের গাড়ি আটকে দেয় পুলিশ। বাটিচক এলাকা থেকে ১০ জনেরও বেশি কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

Previous articleভূঞাপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন
Next articleগুগলে নিয়োগ পেলেন রাবি শিক্ষার্থী শাকিল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।