বৃহস্পতিবার, জুন ২০, ২০২৪
Homeআইন-আদালতসুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচন নিয়ে হাতাহাতি, ডিম নিক্ষেপ

সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচন নিয়ে হাতাহাতি, ডিম নিক্ষেপ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নির্বাচন নিয়ে দুই পক্ষের আইনজীবীদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, হাতাহাতি, ডিম নিক্ষেপ, স্লোগান পাল্টা স্লোগান, প্রধান বিচারপতির কাছে এডহক কমিটির চিঠি, সুপ্রিম কোর্ট অডিটোরিয়ামে তালা, অল্প কয়েকজন সদস্য নিয়ে সরকার সমর্থকদের দায়িত্ব হস্তান্তরের ঘটনায় রোববার সুপ্রিস কোর্ট অঙ্গন উত্তাল হয়ে পড়ে।

রোববার দুপুর ১টা থেকে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি বভনে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ পন্থী আইনজীবীদের স্লোগান ও পাল্টা স্লোগানে হট্টগোল সৃষ্টি হয়। এ সময় ডিম নিক্ষেপ করাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। শতাধিক সরকার সমর্থক আইনজীবী এদিন দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের সভাপতি-সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নেন। তারা সমিতি ভবনে এবং নিচতলায় অডিটোরিয়ামের সামনে বিক্ষোভ করেন।

অপর দিকে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরাও সমিতি ভবনের নিচতলায় অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন। বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন ও সম্পাদক প্রার্থী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজলের নেতৃত্বে কয়েক শ’ আইনজীবী বিক্ষোভ করেন। তারা ভোট চোর ভোট চোর বলে স্লোগান দেন। অপরদিকে সরকার সমর্থক শতাধিক আইনজীবী পাল্টা স্লোগান দিয়ে বিক্ষোভ করেন। এতে আদালত অঙ্গন উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। বিকেল ৪টা পর্যন্ত থেমে থেমে পক্ষের পাল্টাপাল্টি স্লোগান চলে।

দুপুর ২টায় অডিটোরিয়ামের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বিএনপি সমর্থিত প্যানেলে সভাপতি প্রার্থী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন বলেন, আজ ভোট ডাকাতির বিরুদ্ধে সকল আইনজীবী অবস্থান নিয়েছে। তারা সুপ্রিম কোর্টে গোলযোগ সৃষ্ট করেছে। এই প্রতিষ্ঠানকে বিতর্কিত করেছে। এদের বিচার করতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে ঘৃণা ছড়াতে হবে এবং প্রতিবাদ অব্যাহত রাখতে হবে। এই অবৈধ ভোট ডাকাতরা সুপ্রিম কোর্টের পবিত্র যায়গায় ডুকতে না পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা আজ সারাদিন বার ভবনে অবস্থান করব। তাদেরকে সুপ্রিম কোর্ট কিছু করতে দেয়া হবে না। এডহক কমিটি হয়েছে, এই কমিটিই সমিতির বৈধ কমিটি। এই কমিটি কাজ করবে। আইনজীবী সবাইকে অনুরোধ করছি এডহক কমিটিকে সহযোগিতা করুন।

স্লোগানের মধ্যে সমিতির অডিটোরিয়ামের সামনে এডহক কমিটির মতবিনিময়:
আইনজীবীদের পাল্টাপাল্টি স্লোগানের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট অডিটোরিয়ামের সামনে নবগঠিত এডহক কমিটি মতবিনিময় করেন। কমিটির আহ্বায়ক সিনিয়র অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মহসিন রশিদ বলেন, দুপুর ২টায় আইনজীবীদের সাথে অডিটোরিয়ামে আমাদের মতবিনিময় করার কথা ছিল। কিন্তু চারা চর দখলের মতো তারা চারিদিকে তালা মেরে রেখেছে। তালা মারা থাকায় আমরা অডিটোরিয়ামের সামনিই মতবিনিময় করছি।

তিনি বলেন, আমরা বেলা ১১টায় বিশিষ্ট আইনজীবী ও সংবিধাণ প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য ব্যারিস্টার এম আমির-উল ইসলামের নেতৃত্বে প্রধান বিচারপতির সাথে দেখা করেছি। উনাকে আমরা একটি স্মারকলিপি দিয়েছি। সেখানে আমরা বলেছি, এই অনির্বাচিত সভাপতি ও সম্পাদকর সাথে আপনি কোনো সম্পর্ক রাখবেন না। সভাপতি ও সম্পাদক হিসেবে কোনোভাবেই তাদের আপনি গ্রহণ করবেন না। আমরা সুপ্রিম কোর্ট বারের অফিসকেও জানিয়ে দিয়েছি। শুধু আমাদের আদেশই মানবেন। অন্যকোনো আদেশ চলবে না। আমরা সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানিয়ে দিয়েছি। আমার নেতৃত্বে গঠিত সমিতির এডহক কমিটিই সম্পূর্ণ বৈধ। তারা সমিতির ডিগনিটি নষ্ট করেছে।

এ সময় এডহক কমিটির সদস্য সচিব শাহ আহমেদ বাদল, কমিটির সিনিয়র সদস্য আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন আহমেদসহ কয়েক শ’ আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলন:
এডহক কমিটি ছাড়া সু্প্রিম কোর্ট বারে আর কোনো কমিটি নেই/ প্রধান বিচারপতির কাছে স্মারকলিপি
দুপুর আড়াইটায় সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনে ল’ রিপোর্টাস ফোরামের কার্যলায়ে এক সংবাদ সম্মেলন করে এডহক কমিটি। সংবাদ সম্মেলনে কমিটির আহ্বায়ক সিনিয়র অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ মহসিন রশিদ বলেন, বারে যেটা হয়েছে তার নিন্দা জানাই। সমিতির দয়িত্ব হস্তান্তরের সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় দিয়ে তড়িঘড়ি করে কয়েকজন সদস্য নিয়ে পোনে ২টায় হঠাৎ করে সাধারণ সভা ও দায়িত্ব হস্তান্তরের এমন ঘটনা সুপ্রিম কোর্ট বার প্রতিষ্ঠার পর থেকে কখেই ঘটেনি।

তিনি বলেন, সাধারণ সদস্যদের তলবি সভায় আজকের এই এডহক কমিটি। এই কমিটি ছাড়া বারে বর্তমানে আর কোনো কমিটি নেই।

প্রধান বিচারপতির কাছে স্মারকলিপি দেয়া প্রসঙ্গে বারে সমস্যা সমাধানে তিনি উদ্যোগ নিতে পারেন কিনা এ প্রশ্নের জাবাবে মোহাম্মদ মহসিন রশিদ বলেন, প্রধান বিচারপতি এতে ইনভলভ হতে পারেন না। এটা আইনজীবীরই সমাধান করবেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কমিটির সদস্য সচিব শাহ আহমেদ বাদল। এসময় কমিটির সিনিয়র সদস্য আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, মো: নজরুল ইসলাম, ড. রফিকুল ইসলাম মেহেদী, ড. এম খালেদ আহমেদ, তৈমূর আলম খন্দকার, এস এম খালেকুজ্জামান, মির্জা আল মাহমুদ, মো: সাইফুর রহমান, ব্যারিস্টার সরওয়ার হোসেন, ড. শামসুল আলম ও এস এম জুলফিকার আলী জুনু উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আমরা সবাই জানি এবং প্রত্যক্ষ করেছি গত ১৫, ১৬ মার্চ ২০২৩ সুপ্রীম কোর্ট বারে কোন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি।

সংবিধান অনুযায়ী ভোটার লিস্ট প্রণয়ন করে আগামী ১৪ ও ১৫ জুন তারিখে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ এবং বারের সকল সদস্যের কাছে গ্রহণযোগ্য এবং বারের সংবিধানের সমস্ত অনুচ্ছেদ অনুসরণ করে নির্বাচনের ব্যবস্থা করা এবং ঐ নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটির কাছে দায়িত্বভার অর্পন করাই এই কমিটির প্রথম এবং প্রধান দায়িত্ব। আজকে আমরা প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী মহোদয়ের কাছে চিঠির মাধ্যমে এই অঙ্গীকার পূনর্ব্যক্ত করেছি এবং সুপ্রীম কোর্টের উভয় বিভাগের মাননীয় বিচারপতি বৃন্দের নিকট চিঠি প্রদান করেছি।

এতে বলা হয়েছে, আমরা পরিষ্কারভাবে বারের সকল সদস্যদের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি আপনারা আমাদের যে দায়িত্ব দিয়েছেন সেই দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালনের জন্য আপনাদের সক্রিয় সমর্থন, সহযোগীতা এবং পরামর্শ একান্তভাবে কাম্য। আর যদি কোনো সদস্য বা সদস্যরা কোনো বিষয়ে দ্বিমত পোষণ করে থাকেন আমরা বিশ্বাস করি তা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই সমাধান সম্ভব । আমাদের লক্ষ্য যদি হয় স্বাধীন, মর্যাদা সম্পন্ন, বারের সংবিধান অনুযায়ী একটি স্বাধীন বার সমিতি প্রতিষ্ঠা, তাহলে মতান্তরের কোনো প্রশ্নই নেই।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়- নির্বাচনের নামে যা হয়েছে তা হচ্ছে পুলিশি তাণ্ডব, কিছু সংখ্যক আইনজীবীর চরম অসভ্যতা এবং নির্বাচনের নামে বারের ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায় রচিত হয়েছে। পুলিশি তাণ্ডবে শুধু বারের সদস্যরাই আহত হননি, বেশ কয়েকজন সাংবাদিক বন্ধুরাও নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন, আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। এই প্রসঙ্গে বারের কার্যক্রম পরিচালনায় দায়িত্বপ্রাপ্ত কমিটি হিসেবে দৃঢ়তার সাথে বলতে চাই- বেশ কিছুদিন ধরে বারে একটি অশুভ প্রবণাতা দেখা যাচ্ছে। তা হচ্ছে বারের সদস্যদেরকে শারীরিকভাবে নাজেহাল করা, কক্ষ ভাংচুর এবং বার প্রাঙ্গণে সদস্যদের নামে অশোভন শ্লোগান দেয়া, এই ধরনের কার্যক্রম অনাকাঙ্ক্ষিত, অগ্রহণযোগ্য এবং সর্বোচ্চ সাংবিধানিক আদালতের আইনজীবীদের জন্য চরম লজ্জার। আমরা শুধু এগুলো ঘটনার নিন্দা নয় বরং সব সদস্যবৃন্দকে আহ্বান জানাই ভবিষ্যতে এই ধরনের আত্মঘাতী কর্মকাণ্ডে জড়িত না থাকা। বার এই ধরনের কার্যক্রম কোনো অবস্থাতেই সহ্য করবে না এবং যদি কেউ এ ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন তবে তার বিরুদ্ধে বারের সংবিধান অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গত ৩১ মার্চ বিদায় কার্যকরী কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় এবং সাংবিধানিক শূন্যতা পূরনের লক্ষ্যে বারের সদস্যরা নির্ধারিত সংখ্যক আইনজীবীদের স্বাক্ষরে সাবেক সম্পাদক আব্দুন নূর দুলালকে চিঠি দেন এবং বারের অফিস ২২ মার্চ তা গ্রহণ করে।

উল্লেখ্য, গত ৩০ মার্চ সমিতির সাধারণ সদস্যদের এক তলবি সভা সিদ্ধান্তে বলা হয়, ১৫-১৬ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির কোনো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। সিনিয়র আইনজীবী মোহাম্মদ মহসিন রশিদকে আহ্বায়ক এবং আইনজীবী শাহ্ আহমেদ বাদলকে সদস্য সচিব করে সুপ্রিম কোর্ট বারে ১৪ সদস্যের অন্তবর্তীকালীন কমিটি গঠন করা হয়।

এর আগে ১৫ ও ১৬ মর্চ হট্টগোল, হামলা, ভাঙচুর, মামলা, সাংবাদিক পেটানো, প্রধান বিচারপতির কাছে নালিশ ও ধাক্কাধাক্কির মধ্যে অনুষ্ঠিত সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির দুদিনব্যাপী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৪টি পদের সবকটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেল জয়ী হয়েছেন। দ ‘দিনব্যাপী এ নির্বাচনে ভোট দেয়া থেকে বিরত থেকে ছিলেন বিএনপি সমর্থকরা।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments