কাগজ প্রতিবেদক : কয়েক দফা বৈঠক শেষে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে জোটবদ্ধভাবে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল। এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে জোটটি নির্বাচনের তারিখ একমাস পেছানোর দাবি জানিয়েছে। পাশাপাশি নির্বাচনের আগে জোটের প্রধান খালেদা জিয়াকে জামিনে মুক্তি দিয়ে নির্বাচনে নেয়ার জানানো হয়েছে।

রোববার দুপুরে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয় গুলশানে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচনে যাওয়ার এ সিদ্ধান্তের কথা জানান জোটের শরিক এলডিপির চেয়ারম্যান কর্ণেল (অব.) অলি আহমেদ।

লিখিত বড় বক্তব্যে অলি বলেন, এতো প্রতিবন্ধকতার পরেও আমরা জাতীয় নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। জোট নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গেও সমঝোতা করবে। নির্বাচনের আসন নয় জোটের লক্ষ্য জনগণকে ঐক্যবদ্ধ ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন তড়িঘড়ি করে একতরফাভাবে তফসিল ঘোষণা করেছে। নির্বাচনের তারিখের একদিন পর খ্রীষ্টান ধর্মের বড়দিন থাকায় নির্বাচনী পর্যবেক্ষকদের কাজে সমস্যা হবে। আমাদেরও নির্বাচনী কাজে সময় দরকার। তাই তফসিল এক মাসা পেছানোর দাবি করছি। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী, আমরা মনে করি নির্বাচন গণতন্ত্রের নিয়ামক।

তবে নির্বাচনের জোটের মনোনয়ন কাজ কবে নাগাদ শুরু হবে- স্পষ্ট করেননি অলি আহমেদ। সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন না জোটের শরিক বিজেপির চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ।