ড. কামাল হোসেন

কাগজ ডেস্ক: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের ওপর হামলার ঘটনায় পুলিশের নিশ্চুপ ভূমিকা ও ধরপাকড় নিয়ে ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘সংবিধানে প্রথম স্বাক্ষর জাতির জনকের। তোমরা বঙ্গবন্ধুর আদেশ অমান্য করছো? তোমরা ৫০-৫৫ বছর চাকরি করবে, বুঝে নিও, সংবিধান ভঙ্গ করার কাজ করো না। কার আদেশে এমন কাজ করছো তা আমাকে জানাও’।

তিনি বলেন, পুলিশ-প্রশাসনের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘জেনে রাখো, চিরদিন কেউ ক্ষমতায় থাকে না। আর কোনো সরকারও আইনের ঊর্ধ্বে না। এই সরকার আর ১৬ দিন ক্ষমতায় আছে। সুতরাং বেআইনি আদেশ মানবে না’।ন পুলিশ বাহিনীকে সংবিধানের বাইরে কোনো ‘অন্যায় আদেশ’ না মানারও পরামর্শ দেন।

শুক্রবার বিকালে পুরানা পল্টনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ড. কামাল হোসেন এসব কথা বলেন।
মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানিয়ে ফেরার পথে হামলার শিকার হওয়া এবং সাম্প্রতিক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এই শীর্ষ নেতা। বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ এলাকায় হামলার শিকার হওয়ার বিষয়ে ড. কামাল হোসেন বলেন, ‘এটা একটি সভ্য দেশ। যারা দেশ শাসন করছে, তাদের লজ্জা পাওয়া উচিত। আজ যারা হামলা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নাও’।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, মাহমুদুর রহমান মান্না, ড. রেজা কিবরিয়া, ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, আউয়াল মিন্টু, জেএসডির আবদুল মালেক রতন, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, জগলুল হায়দার আফ্রিক প্রমূখ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।