সদরুল অাইন: আজ ১৫ ডিসেম্বর । ১৯৭১ সালের এইদিনে প্রথম সশস্ত্র যুদ্ধের সূতিকাগার গাজীপুর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মুক্ত হয়। ৭১’র উত্তাল দিনগুলোতে গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার আশেপাশে ছয়দানা ও পূবাইল এলাকায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় মিত্র বাহিনীর ব্যাপক যুদ্ধ হয়। এসব যুদ্ধে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর শোচনীয় পরাজয় ঘটে।

১৯৭১ সালের ১৯ মার্চ গাজীপুরের জয়দেবপুরে সংঘটিত হয় প্রথম সশস্ত্র গণপ্রতিরোধ যুদ্ধ।জয়দেবপুর রাজবাড়ীর বেঙ্গল রেজিমেন্টের বাঙালি সদস্যদের নিরস্ত্র করতে পাকসেনা কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জাহান জেব ঢাকা সেনা নিবাস থেকে জয়দেবপুর আসার খবরে সর্বস্থরের মানুষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।দেশের বর্তমান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ, ক, ম, মোজাম্মেল হকের নেতৃত্বে ওই সময় সশস্ত্র প্রতিরোধ আন্দোলনের অংশ হিসেবে শহরের রেলগেট ও চান্দনা-চৌরাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হয়।এরপর নানা ঘটনা প্রবাহের মধ্যদিয়ে প্রায় সাড়ে নয় মাসের যুদ্ধের পর বিজয় দিবসের ঠিক একদিন আগে গাজীপুর পুরোপুরি শক্রমুক্ত হয়।

মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রথম সূতিকাগার গাজীপুর। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও মুজিবনগর সরকারের অন্যতম প্রধান কর্ণধার তাজ উদ্দিন অাহমদের জন্মধন্য স্মৃতি বিজড়িত জেলা ঢাকার প্রবেশমুখ গাজীপুর।প্রিয় বাংলাদেশকে হানারমুক্ত করতে এই জেলা থেকে যেমন শুরু হয়েছিল প্রথম সশস্ত্র যুদ্ধ, তেমনি অসংখ্য জাতির প্রিয় মুখের জন্মধন্য এই জেলা প্রতিটি স্বাধীকার ও গণতান্ত্রিক অান্দোলনের অন্যতম পথিকৃত হিসেবে অনন্য নজির স্থাপন করে অালোচিত হয়েছে জাতির জীবনে।৭১’র সাড়ে ৯ মাসের যুদ্ধে কাঙ্খিত বিজয় অর্জিত হওয়ার সন্ধিক্ষণে ঢাকার অন্যতম প্রবেশ মুখ গাজীপুর হানাদার মুক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে ঢাকা বিজয়ের পথ উন্মুক্ত হয়েছিল বাঙালি জাতির জীবনে।অগনিত সহস্র শহিদের বলীদান,রক্তভেজা গাজীপুর তাই তো অাজো জাতির জনকের অন্যতম কান্ডারী জাতিয় নেতা তাজ উদ্দিন অাহমদ ও অা,ক,ম, মোজাম্মেল হকের অনন্য অবদান বুকে ধারন করে অা’লীগের অভেদ্য দূর্গ ও দ্বিতীয় গোপালগঞ্জের সুনাম ভাগ্য ললাটে মেখে মুক্তিযুদ্ধের দূর্ভেদ্য ঘাঁটি ও সূতিকাগার হিসেবে জাতির জীবনে এখনো অনবদ্য অবিনশ্বর কবিতার মত সুরভি ঢেলে চলেছে।