কাগজ প্রতিবেদক: এই নির্বাচনে ভোটারদের অংশগ্রহণ ও বিজয়ীকে দেখে আমি অবাক হইনি। যেভাবে নির্বাচনটি হয়ে গেল, তাতে এমনটাই হওয়ার কথা ছিল। তবে দেশের নির্বাচন কমিশন ও তাদের ব্যবস্থাপনার ওপর মানুষের আস্থা উঠে যাওয়ার একটি প্রকাশ ছিল এই নির্বাচন।

নির্বাচন কমিশন যত যা-ই বলুক না কেন, এই নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রগুলো বেশির ভাগ সময় খালি থেকেছে বলে গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। মানুষ ভোট দিতে যায়নি। কারণ, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর মানুষ নির্বাচনী ব্যবস্থা ও নির্বাচন কমিশনের ওপরে আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। জনগণ ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচন জাতীয় নির্বাচনের ছায়া হিসেবে দেখেছে। ফলে তারা ভোটকেন্দ্রে যায়নি।

আমাদের দেশে নির্বাচনী ব্যবস্থা যতটুকু দাঁড়িয়েছিল, তা খারাপ হতে হতে এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে ভোটাররা আর এর ওপর কোনো আস্থা রাখতে পারছে না। ভোট মানেই যে একটি উৎসাহ ও উদ্দীপনার ব্যাপার, তা কিন্তু দেশ থেকে নষ্ট হয়ে গেল। এটা কারও জন্যই মঙ্গলজনক হলো না।

সরকারি দল থেকে যিনি নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলেন, তাঁর পক্ষ থেকেও নির্বাচনটিকে জমিয়ে তোলার কোনো আগ্রহ দেখিনি। নিজের পক্ষে ভোট চাওয়ার জন্য তেমন কোনো প্রচার-প্রচারণা চালাতেও তাঁকে দেখা যায়নি। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যখন এই নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল, তখন প্রায় সব দলের পক্ষ থেকে এতে অংশ নেয়ার ঘোষণা এসেছিল। কিন্তু আদালতে একটি রিটকে কেন্দ্র করে তা বন্ধ হয়ে যায়। নির্বাচন কমিশন যদি একটি প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন চাইত, তাহলে তাদের উচিত ছিল তখনই আপিল করা। কিন্তু তারা তা করেনি। তারা হয়তো চেয়েছে এটি জাতীয় নির্বাচনের পরেই হোক। কিন্তু তত দিনে মানুষের নির্বাচনের ওপর থেকে আগ্রহ চলে গেছে।

এ ধরনের পরিস্থিতি দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার জন্য দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষতিকারক। নির্বাচনে বিজয়ী ব্যক্তি হয়তো দায়িত্ব বুঝে নেবেন, শপথ নিয়ে নিয়মিত দায়িত্বও পালন করবেন। কিন্তু দেশের যে মৌলিক ক্ষতিটি হয়ে গেল তা হচ্ছে সামগ্রিকভাবে সিস্টেম বা ব্যবস্থার প্রতি একধরনের অদৃশ্য অনাস্থা থেকে যাবে। এটা একটি দেশের জন্য বিপজ্জনক। এর দীর্ঘমেয়াদি প্রভাবও ভালো না।
গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা যদি আমাদের দেশে সঠিকভাবে না চলে, তার পরিণতি খুব খারাপ হয়। বিশ্বের অনেক দেশে তার খারাপ উদাহরণ আছে। আমাদের এই পরিস্থিতি থেকে বের হতে গেলেও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। আমাদের মতো দেশে গণতন্ত্র আর উন্নয়ন একসঙ্গে চলতে হবে। নইলে এর কোনোটাই টিকবে না।