২৩ এমপি'র অর্থের উৎসের সন্ধানে গোয়েন্দা সংস্থা মাঠে

সদরুল আইন: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের শুদ্ধি অভিযান চলছে। এই শুদ্ধি অভিযানে এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকজন ধরা পড়েছেন। মূলত ক্যাসিনো এবং টেন্ডার বাণিজ্যের অভিযোগেই বিভিন্ন অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের এই শুদ্ধি অভিযানে মাত্র ১ জন সংসদ সদস্যের ব্যাংকের হিসাব জব্দ করা হয়েছে।

একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা নিশ্চিত করেছে যে, আরো অন্তত ২৩জন সংসদ সদস্যের ব্যাপারে তদন্ত করা হচ্ছে।

তারা সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর কি কি টেন্ডারবাজি, সন্ত্রাস এবং অবৈধ লেনদেনসহ যে সমস্ত অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়েছেন, সেগুলোর ব্যাপারে তদন্ত করা হচ্ছে।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে দেখা যাচ্ছে যে, প্রাথমিক তদন্তে দেখা যাচ্ছে ১৭জন এমপি ফুলে ফেঁপে উঠেছেন। এদের মধ্যে একাধিকবারের এমপি হলেন ১০জন।

সাবেক এমপি এবং প্রথমবারের এমপি হয়েছেন ৭ জন।

গোয়েন্দা সূত্রের খবরে জানা গেছে যে, যে ১০জন এমপি হঠাৎ করে ফুলে ফেপে উঠেছেন, তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস, অন্যের ভূমি দখল, টেন্ডারবাজি, বিদেশে অর্থপাচারসহ বিভিন্ন অপরাধের সুস্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে।

প্রাথমিক তদন্ত শেষে তাদের ব্যাংক হিসাব তলবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। যে কোন দিন তাদের ব্যাংক হিসাব সংক্রান্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের নোটিশ জারি হবে বলে দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

যে সমস্ত এমপির ব্যাংক হিসাব তলব করা হবে, তাদের মধ্যে ৪জনই ঢাকার। এদের মধ্যে দুজন রয়েছেন চট্টগ্রামের এমপি। রাজশাহী অঞ্চলের এমপি রয়েছেন ৩জন।

তবে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সূত্রে জানা গেছে যে, যাদের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ উঠেছে তাদের কেউ মন্ত্রী নন। তবে সাবেক মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির নেতা আছেন মাত্র ১ জন।

আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, যেহেতু তারা প্রভাবশালী সংসদ সদস্য। কাজেই সবকিছু যাচাই বাছাইয়ের পরই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হবে।