এনায়েতপুর-সিরাজগঞ্জ সড়কে চতুর্থ দিনেও ছিল বাস চলাচল বন্ধ

মারুফা মির্জা: চালককে মারধরের প্রতিবাদে এনায়েতপুর-সিরাজগঞ্জ সড়কে শুক্রবার চতুর্থ দিনের মত বাস চলাচল বন্ধ ছিল। জেলা বাস মালিক সমিতি ও মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকা এই বাস ধর্মঘটের কারনে জেলার গুরুত্বপুর্ন এই অভ্যান্তরিণ সড়কে যাত্রীরা চড়ম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। বিশেষ করে জেলা শহরের সাথে বেলকুচি, চৌহালী, শাহজাদপুর, কামারখন্দ উপজেলার মানুষের যোগাযোগে ভোগান্তির শেষ নেই। উপায় না বুঝে অনেকেই সিএনজি অটোরিক্সা এবং অন্যান্য পরিবহনে কষ্টে যাতায়াত করছে। স্থানীয়রা জানান, গত মঙ্গলবার দুপুরে সজিব-মাহি পরিবহনের এনায়েতপুর থেকে সিরাজগঞ্জ গামী বাস বেলকুচির তামাই এলাকায় পৌছে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সোনিয়া সবুর আকন্দের দাঁড়িয়ে থাকা প্রাইভেট কারটি ধাক্কা দিলে তা পড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তখন পাশে থাকা ঐ চেয়ারম্যান দাঁড়াতে বললে বাসের চালক দ্রুত পালিয়ে যায়। বিষয়টি জানতে পেরে সমেশপুরে লোকজন বাসটি আটক করে চালক শাহীন হোসেনকে মারধর করে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ঘটনার প্রতিবাদে এরপর থেকেই এই সড়কে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে যাত্রা পথে মানুষ পোহাচ্ছে নানা দুর্ভোগ। তারা দাবী করেছে বিষয়টির মিমাংসার। এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সভাপতি আলমাজী জিন্নাহ জানান, কিছুটা ভুল থাকলেও আমাদের বাসের চালককে যে ভাবে মারধর করা হয়েছে তা একেবারেই অমানবিক। বিষয়টি শ্রমিক মালিক কেউ মেনে নিতে পারছেনা। তাই যে পর্যন্ত এর যধাযথ ব্যবস্থা না হবে ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে। এদিকে বেলকুচির রাজাপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোনিয়া সবুর আকন্দ জানান, বিষয়টি মিমাংসার জন্য জেলা মোটর সমিতির অফিসে বসা হয়েছিল। সেখানে সুরাহার পর মোটর শ্রমিকেরা আবার আমার গাড়ির চালককে মারধর করে। আমি এর প্রতিবাদ জানাই।