পুলিশী বাধায় প্রাথমিক শিক্ষকদের সমাবেশ পন্ড: সমাপনী ও বার্ষিক পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা

সদরুল আইন: আগামী ১৩ নভেম্বরে মধ্যে ১০ম গ্রেড ও সহকারীদের ১১তম গ্রেড না দিলে আসন্ন প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা এবং পরে বার্ষিক পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

বুধবার রাজধানীর দোয়েল চত্বরে অনুষ্ঠিত সমাবেশে এ ঘোষণা দেন প্রাথমিক শিক্ষক নেতারা।

শিক্ষক নেতা আব্দুল্লাহ সরকার ও শামসুদ্দিন মাসুদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে এ সমাবেশ কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে করার কথা থাকলেও অনুমতি পাননি প্রাথমিক শিক্ষকরা। কেন অনুমতি দেয়া হয়নি জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক একেএম গোলাম রাব্বানী বলেন, কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে সমাবেশ করতে হলে ডিএমপি ও ঢাবি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিতে হয়, যার কোনোটাই আন্দোলনরত শিক্ষক নেতারা করেননি।

অন্যদিকে জানা যায়, শিক্ষকেরা যাতে এই সমাবেশে না আসতে পারেন, সেই চেষ্টা করছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

সংস্থাটি তাদের অধীনস্থ মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়ে বলেছে, বুধবার আখেরি চাহার শোম্বার কারণে বিদ্যালয় ছুটি থাকলেও কোনো শিক্ষককে যেন কর্মস্থল ত্যাগের অনুমতি না দেওয়া হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর শিক্ষকদের একাংশ প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো: জাকির হোসেনের সাথে বৈঠক করেন।

বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী শিক্ষক নেতাদের আশ্বস্ত করেছিলেন যে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সাথে শিক্ষক নেতাদের সাক্ষাতের ব্যবস্থা করবেন।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের ১৪ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদে আজ সমাবেশের ডাক দিয়েছিল।

বেতনবৈষম্য নিরসনে শিক্ষক ঐক্য পরিষদ গত ১৪ অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত কর্মবিরতি কর্মসূচি পালন করার পরও সরকারের পক্ষ থেকে দাবি বাস্তবায়নের উদ্যোগ না থাকায় মহাসমাবেশ থেকে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে ঐক্য পরিষদ নেতারা এক বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করেছিলেন।

ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক আনিসুর রহমান বলেন, যেকোনো কিছুর বিনিময়ে মহাসমাবেশ সফল করা হবে। তবে সমাবেশ হবে সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ। ঐক্য পরিষদের প্রধান মুখপাত্র মো: বদরুল আলম বলেন, শিক্ষকদের এক দফা দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।

প্রধান সমন্বয়ক আতিকুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস ছাড়া আমরা কর্মসূচি প্রত্যাহার করব না।