বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ত্রুটিপূর্ণ ইঞ্জিন দিয়েই চলছিল ঝালকাঠিতে দুর্ঘটনা কবলিত লঞ্চ এমভি অভিযান-১০। বিষয়টি বরগুনার বিআইডব্লিউটি-এর নৌবন্দর কর্মকর্তা জানলেও কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি। অসুস্থ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে এর আগেও দুর্ঘটনা কবলিত হয় লঞ্চটি। সে যাত্রায় অর্ধ সহস্রাধিক যাত্রী প্রাণে রক্ষা পেলেও যাত্রীদের অভিযোগ আমলেই নেয়া হয়নি।

দুর্ঘটনার আগে প্রায়ই প্রতিদিন বরগুনার উদ্দেশে ঢাকার সদরঘাট ত্যাগ করে দুইটি লঞ্চ। যার একটি বিকেল সাড়ে ৫টায় আর অপরটি সন্ধ্যা ৬টায়। বরগুনা থেকে ঢাকা কিংবা ঢাকা থেকে বরগুনা কে আগে পৌঁছাতে পারে তা নিয়ে লঞ্চের মধ্যে চলে প্রতিযোগিতা।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, গত ১২ আগস্ট ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে এমনই এক অসুস্থ প্রতিযোগিতা অংশ নেয় এমভি অভিযান-১০। পরে ঝালকাঠির বিষখালী নদীর একটি চরে উঠে কাত হয়ে পড়ে যাওয়ার উপক্রম হয় লঞ্চটি। সে যাত্রায় ভাগ্য সহায় ছিল বলে প্রাণে রক্ষা পান লঞ্চের যাত্রীরা। গত ২৩ ডিসেম্বরও ত্রুটিপূর্ণ ইঞ্জিন দিয়েই স্বভাবিকে থেকে অনেক বেশি গতিতে চলছিল লঞ্চটি। ফলে ইঞ্চিন বিস্ফোরিত হয়ে ঘটে নৌপথে দেশের ইতিহাসের সব থেকে ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

২৩ তারিখ দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফেরা আশিক, সাদিক, সাব্বিরসহ কয়েকজন যাত্রী জানান, বুড়িগঙ্গা নদী পাড়ি দেয়ার পর পরই অস্বাভিকভাবে গতি বেড়ে যায় লঞ্চটির। এতে লঞ্চের দ্বিতীয় তলার ফ্লোট গরম হয়ে যায় এবং ইঞ্জিনে বিকট শব্দ হতে থাকে। বিষয়টি চালক ও অন্য স্টাফদের জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এছাড়াও মাঝ নদীতে গতি বাড়িয়ে পাল্লায় লিপ্ত হয় এই রুটের লঞ্চগুলো।

স্থানীয়রা জানান, কয়েকমাস আগে মাঝ নদীতে প্রয়োজনের তুলনায় বেশি গতিতে চলায় ঝালকাঠির একটি চরে উঠে কাত হয়ে যায় এমভি অভিযান ১০। এতে কোনো হতাহত না হলেও কয়েকশ যাত্রী পড়ে ভোগান্তিতে।

এমভি অভিযান-১০ লঞ্চের ইঞ্জিনের ত্রুটির কথা আগেই জানতেন বরগুনার নৌবন্দর কর্মকর্তা। এছাড়াও লঞ্চটির অসুস্থ প্রতিযোগিতার অভিযোগও আমলে নেয়নি বন্দর কর্তৃপক্ষ।

বরগুনা নৌবন্দর কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ বলেন, লঞ্চটির ইঞ্জিনে ত্রুটি ছিল। তবে এসব দেখার দায়িত্ব হচ্ছে নৌপরিবহন অধিদফতরের। তাদের ছাড়পত্র ছাড়া নদীতে নৌযান নামানো যায় না। ত্রুটিযুক্ত ইঞ্জিন তারা কিভাবে পারমিশন দিলো সেটা তারাই ভালো বলতে পারবেন।

কর্তৃপক্ষের অবহেলা, গাফিলতি এবং স্বেচ্ছাচারিতার জন্যই এমন দুর্ঘটনার অভিযোগ স্থানীয়দের। তাই এর দায় কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারে না বলেও দাবি তাদের।

এ বিষয়ে সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সদস্য তারিক বিন আনসারী সুমন বলেন, এই দুর্ঘটনার দায় কোনোভাবেই কর্তৃপক্ষ এড়াতে পারবে না। তাদের স্বেচ্ছাচারিতায় এবং গাফিলতিতে এসব দুর্ঘটনা হচ্ছে। তাদের যদি এখনো টনক না নড়ে তাহলে তাহলে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতেই থাকবে। আমরা এসব খামখেয়ালিপনা বন্ধের দাবি জানাই। যাত্রীদের অভিযোগ অগ্রাহ্য করা গুরুতর অন্যায়। তাই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস স্থানীয় সংসদ সদস্যের।

এ বিষয়ে বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বলেন, কর্তৃপক্ষের গাফলতিতে এসব প্রাণহানি ঘটেছে। আমি বিষয়টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে অবগত করবো। শিগগিরই দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৩ ডিসেম্বর দিনগত রাতে ঢাকা-বরগুনা নৌরুটের বরগুনাগামী ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে বরগুনাগামী লঞ্চ এমভি অভিযান-১০-এ ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। তাদের মধ্যে ৩৭ জনই বরগুনার। এছাড়াও আহত রয়েছেন শতাধিক যাত্রী, নিখোঁজও আছেন অনেকে।

Previous articleদেশে আবারো ৫০০ ছাড়ালো করোনা সংক্রমণ
Next articleসুদানে গণতন্ত্রের দাবিতে তীব্র বিক্ষোভ, নিহত ৫৪
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।