জয়নাল আবেদীন: রংপুরে নবনির্মিত অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন হয়েছে।  বুধবার সকাল ১১টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে রংপুরসহ দেশের ৮টি শিল্পকলা একাডেমির উদ্বোধন করেন । এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন ধর্মের সঙ্গে অনেকেই সংস্কৃতির সংঘাত সৃষ্টি করতে চায় । এটা মোটেই ঠিক নয়। আমরা এটাই বলি- ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। কাজেই উৎসব আমরা সবাই এক হয়ে পালন করব।

তিনি বলেন আমাদের সংস্কৃতি আমরা বাঙালি। আমাদের দেশে কিন্তু সব ধর্মের মানুষ বাস করে। সেখানে হিন্দু, মুসলমান, খ্রিস্টান, বৌদ্ধ সবাই আছে। তিনি বলেন, আমাদের এই যে সব ধর্ম-বর্ণ, বিভিন্ন ছোট ছোট ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, তাদের নিজস্ব যে সংস্কৃতি, অর্থাৎ শুধু ধর্মাবলম্বী নয়, আমাদের যে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী তাদেরও কিন্তু নিজস্ব সাংস্কৃতিক চর্চা আছে, সংস্কৃতি আছে। সেগুলো যাতে বিকশিত হয়, সেদিকে দৃষ্টি রেখেও কিন্তু আমরা প্রত্যেকটি এলাকায় তাদের এই সংস্কৃতি চর্চার সুযোগ করে দিয়েছি।সব জাতি-গোষ্ঠীর সংস্কৃতি বিকশিত করতে সরকারের উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। সবাইকে পহেলা বৈশাখের শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বলেন, পহেলা বৈশাখ আমরা উদযাপন করি। এই একটা উৎসবে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই এক হই; সব বাঙালি এক হয়ে আমরা কিন্তু এই পহেলা বৈশাখ উদযাপন করি। যেখানে সবার একটি চমৎকার মিলন কেন্দ্র হয়। শেখ হাসিনা আক্ষেপ করেও বলেন, পহেলা বৈশাখ, যে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করতে গিয়ে আমরা বাধার সম্মুখীন হয়েছিলাম। ১৪০০ সাল বরণ করতে গিয়ে আমরা বাধার সম্মুখীন হয়েছিলাম। সেমসয় ছিলো বিএনপি‘র শাসনামল । এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এমনকি বটমূলে বোমা হামলা করেও মানুষ হত্যা করা হয়েছিল। যাতে করে আমাদের এই সংস্কৃতি চর্চা বন্ধ হয়ে যায়।

তিনি বলেন, পঁচাত্তর ১৫ আগস্ট থেকে ২১ বছর বাংলাদেশ অন্ধকার যুগে কাটিয়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও মুক্তিযুদ্ধেও শ্লোগান জয় বাংলা ফিরে পেয়েছি। আমরা বাঙালি, নিজেদের সাংস্কৃতি রয়েছে, সেটা যেন আরও বিকশিত ও উজ্জীবিত হয় সেদিকে লক্ষ্য রেখে কাজ করতে হবে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের মানুষ খুবই সংস্কৃতিমনা। নৌকার মাঝিও নৌকা চালাতে চালাতে গান ধরে। এক সময় তো গরুর গাড়িই চলত, ও কি গাড়িয়াল ভাই… গানটি এখনো মানুষের হৃদয় ছুঁয়ে যায়। যদিও আধুনিক প্রযুক্তির যুগে সেসব হারিয়ে যেতে বসেছে। তিনি বলেন দেশের ৪শ ৯৬টি উপজেলায় সংস্কৃতি কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে ।সেখান থেকে অনেক প্রতিভা বেরিয়ে আসবে । প্রধানমন্ত্রী বলেন যারা পুরোনো সিনেমা হল ভেঙে নতুন সিনেমা হল তৈরি করবেন, তারা বরাদ্দ পাবেন এছাড়াও আরও নতুন নতুন সিনেমা হল করতে চাইবেন তাদেরও টাকা দেওয়া হবে। আমি মনে করি, সিনেমা শিল্পটা উন্নত করা এবং বাঁচিয়ে রাখার জন্য এটা দরকার। এফডিসি জাতির পিতার হাতে তৈরি। তাই শিল্পের বিকাশটা চতুর্মুখী হোক, সেটা চাই। এর জন্য ১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন ।

তিনি বলেন লোকজ সংগীত ও সাহিত্য যাতে আরও বিকশিত হয় সেদিকে দৃষ্টি দেওয়া দরকার। এগুলো আমাদের অমূল্য সম্পদ। এক-একটা অঞ্চল ভিত্তিক পালাগান, কবির লড়াই, কবিতা, গান, যাত্রাসহ বিভিন্ন জিনিস রয়েছে, যার মধ্য দিয়ে অনেক ঐতিহ্য আমরা জানতে পারি। তিনি বলেন, আমরা আমাদের ঐতিহ্য ভুলব না, আবার যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়েও চলতে হবে। কারণ আধুনিক যুগের সংস্কৃতির সঙ্গে ছেলেমেয়েরা চলতে পারে, রপ্ত করতে পারে। প্রযুক্তির সঙ্গে আধুনিক জ্ঞানও দরকার। কারণ একটা থেকে আরেকটা বাদ দেওয়া যাবে না।

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। এদিকে রংপুর প্রান্তে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক মো: আসিব আহসান সাবেক সাংসদ হোসনে আরা লূৎফা ডালিয়া, রংপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট ছাফিয়া খানম সহ জেলার বিভিন্ন সরকারি দফতরের কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ । জানা গেছে, সাংস্কৃতিক আন্দোলন ও চর্চার উর্বর ভূমি হিসেবে পরিচিত রংপুরে ৪৫ শতক জমির ওপর ২৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা ব্যয়ে বিভাগীয় এই শহরে জেলা শিল্পকলা একাডেমির নতুন ভবনটি নির্মাণ করা হয়েছে।

Previous articleঈশ্বরদীতে পুকুর থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার
Next articleঈদে ৬ জোড়া বিশেষ ট্রেন, অগ্রিম টিকিট বিক্রি ২৩ এপ্রিল থেকে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।