বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দ্রুত প্রত্যাবাসনের মাধ্যমে নিজ ঘরের ফেরার দাবিসহ ৭ দফা দাবিতে ‘চলো চলো আরকান চলো’ ক্যাম্পেইন শুরু করেছে কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলোতে বসবাসরত রোহিঙ্গারা। ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে আজ রোববার সকালে ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত হয়েছে পৃথক সমাবেশ। যেখানে সমবেত হয় বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গা। এসব সমাবেশ থেকে বাড়ি ফিরতে ৭টি দাবি উত্থাপন করেন তাঁরা।

উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প ১ ইস্টের একটি খেলার মাঠে আয়োজিত এক সমাবেশে রোহিঙ্গাদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন, প্রয়াত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর সংগঠন ‘আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিচ অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের’ সদস্য ডাক্তার জুবায়ের ও মাস্টার কামাল, রোহিঙ্গা অধিকারকর্মী মাস্টার ইউসুফ ও নুরুল আমিন।

বক্তব্যে রোহিঙ্গা নেতা ডাক্তার জুবায়ের বলেন, রোহিঙ্গারা আর এক মুহূর্তও বাংলাদেশে থাকতে চায় না। যে কোনো উপায়ে দ্রুত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন করতে হবে। মিয়ানমারে অন্যান্য জাতিগুলোর জন্য যেসব সুযোগ-সুবিধা ও নিয়মকানুন রয়েছে সেগুলো রোহিঙ্গাদেরও দিতে হবে।

আজ ১৯ জুন ২০২২ এ নির্যাতিত রোহিঙ্গারা শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নিকট নিম্নোক্ত দাবি উত্থাপন করেঃ

দাবিগুলো হলো: ১। দ্রুত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন

২। ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন বাতিল করতে হবে

৩। দ্রুত রোহিঙ্গাদের নিজ নিজ গ্রামে পুনরায় প্রত্যাবাসন করা

৪। অধিকার এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করা,

৫। নির্দিষ্ট সময়ের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া কার্যকর করা

৬। রাখাইন রাজ্যে আইডিপি ক্যাম্প বন্ধ করা এবং তাঁদেরকে নিজ গ্রামে ফিরিয়ে দেওয়া

৭ মিয়ানমারে নিরপরাধ মানুষদের ওপর অত্যাচার বন্ধ করতে হবে।

লম্বাশিয়া ক্যাম্প ১ ইস্ট ছাড়াও মোচরা ক্যাম্প ৪, বালুখালী ৯, জামতলী ক্যাম্প ১৫ ও জাদিমুরা ক্যাম্প ২৭ সহ ১০টি ক্যাম্পে পৃথক পৃথক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় বলে জানা গেছে। নির্যাতিত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ব্যানারে এই আয়োজন করা হয়। অনলাইনে প্রচারণার মাধ্যমে বিশ্ববাসীর কাছে তাঁরা এই আহ্বান অব্যাহত রাখবে বলে সমাবেশে জানানো হয়।

১৪ এপিবিএন এর অধিনায়ক পুলিশ সুপার নাঈমুল হক সমাবেশের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রোহিঙ্গারা সীমিত সময়ের জন্য তাঁদের নিজ দেশে ফেরার দাবিতে সমাবেশ করেছে। ক্যাম্পের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এপিবিএন এর চলমান তৎপরতা অব্যাহত আছে।

প্রসঙ্গত, ২০২১ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর দুর্বৃত্তের গুলি নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ একই দাবিতে ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট অনুষ্ঠিত মহাসমাবেশের নেতৃত্বে ছিলেন।

২০১৭ সালে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর জঘন্য নৃশংসতায় মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিকেরা নির্যাতিত হয়ে জোরপূর্বক বাংলাদেশে বিতাড়িত হয়েছিল যা ইতিহাসে রোহিঙ্গাদের সবচেয়ে ভয়াবহ দেশত্যাগ হিসেবে বিবেচিত। রাখাইন রাজ্যে ১৯৭৮ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত রোহিঙ্গারা মিয়ানমার সেনাবাহিনী কর্তৃক বৈষম্য, নির্যাতন, ধর্ষণ, হত্যা এবং গ্রাম জ্বালিয়ে দেয়ার মত ভয়াবহতার সম্মুখীন হয়েছে। শুধুমাত্র ২০১৭ সালে ১.১ মিলিয়ন রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয় এবং বাংলাদেশে অস্থায়ীভাবে আশ্রয় নেয়।

মানবিক বিবেচনায় অস্থায়ীভাবে বাংলাদেশে আশ্রয় প্রদানের জন্য রোহিঙ্গারা বাংলাদেশ সরকারের নিকট কৃতজ্ঞ। এছাড়াও খাদ্য,আশ্রয় ও প্রয়োজনীয় অন্যান্য সহায়তা প্রদানের জন্য তারা জাতিসংঘসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থা সমূহের নিকট কৃতজ্ঞ। কিন্তু বাংলাদেশ তাদের নিজের দেশ নয়। তাই রোহিঙ্গাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য স্বদেশে ফিরে যাওয়া এবং রাখাইনে নিজ ভূমিতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করা।২০১৭-২০১৮ সালে জাতিসংঘ ও চীনের সহায়তায় বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে বেশকিছু চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় কিন্তু এরপর পাঁচ বছর অতিবাহিত হলেও প্রত্যাবাসন বিষয়ক উল্লেখযোগ্য ও কার্যকর কোন অগ্রগতি পরিলক্ষিত হয়নি। এমনকি বিশ্ব সম্প্রদায়ও বিশ্বের সর্ববৃহৎ শরনার্থী রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের কথা ভুলতে বসেছে। এমন পরিস্থিতিতে ২০ জুন আন্তর্জাতিক শরনার্থী দিবসকে সামনে রেখে মিয়ানমারে রোহিঙ্গা শরনার্থী প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে কক্সবাজারস্থ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিভিন্ন স্থানে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের মাধ্যমে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সামনে তাদের দাবি তুলে ধরে।

বর্তমানে রোহিঙ্গারা বিশ্বের বৃহত্তম রাষ্ট্রহীন গোষ্ঠী। ২০১৭ সালে দেশ থেকে বিতাড়নের পাঁচ বছর হয়েছে কিন্তু আর কত দিন তারা উদ্বাস্তু হয়ে থাকবে এই প্রশ্ন তুলেন অনেক রোহিঙ্গারা।
এখন রোহিঙ্গারা তাদের নিজেদের এবং পরবর্তী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ নিয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন।

Previous articleশার্শায় স্বর্নের বারসহ পাচারকারী আটক
Next articleরংপুরে কবি ও গল্পকার এস এম সাথী বেগমের অনুগল্পের বই ‘আঁধারের সৌন্দর্য’ প্রকাশনা অনুষ্ঠান
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।