বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাংলার ১৭ কোটি মানুষের স্বপ্নের পদ্মাসেতু এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায়। বহুকাল থেকে দেখে আসা স্বপ্ন রূপ নেবে বাস্তবে। সেতুর ওপর দিয়ে কয়েক মিনিটেই পাড়ি দেয়া যাবে প্রমত্তা পদ্মা। দেশের সবচেয়ে দীর্ঘ এ সেতুর নির্মাণকাজ এরই মধ্যে শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। সেতুতে যান চলাচলের জন্য যাবতীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষাও শেষ হয়েছে। চলাচলের জন্য এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুত পদ্মাসেতু। এখন শুধু উদ্বোধনের নির্ধারিত সময়টির অপেক্ষা।

সবকিছু ঠিক থাকলে শনিবার (২৫ জুন) সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সেতুর উদ্বোধন করবেন। শেষ মুহূর্তে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ঘিরে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। সেতু উদ্বোধনের পর দুই প্রান্তে আয়োজিত সমাবেশে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দিন সকালে পদ্মাসেতুর মাওয়া প্রান্তে এসে উপস্থিত হবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাওয়া প্রান্তে সেতুর উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করে অংশ নেবেন সুধী সমাবেশে। এরপর সেখান থেকে সেতু পার হয়ে শিবচরের বাংলাবাজার ঘাটে আয়োজিত দলীয় জনসভায় অংশ নেবেন। পদ্মাসেতুর আদলেই তৈরি করা হয়েছে জনসভার মঞ্চ।

শিবচর উপজেলা আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, পদ্মাসেতুর উদ্বোধনের পর বাংলাবাজার ফেরিঘাট এলাকার জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জনসভাকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রায় ১৫ একর জমির ওপর ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সেখানে তৈরি করা হয়েছে ১৫০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৪০ ফুট প্রস্থের বিশাল মঞ্চ।

নিরাপত্তার জন্য মঞ্চের ভেতরে ও বাইরে বসানো হয়েছে ছয়টি ওয়াচ টাওয়ার। থাকবে দেড় শতাধিক সিসিটিভি ক্যামেরা।

সভাস্থলে ৫০০ অস্থায়ী শৌচাগার, ভিআইপিদের জন্য আরো ২২টি শৌচাগার, সুপেয় পানির লাইন, ৪০ শয্যার তিনটি অস্থায়ী হাসপাতাল, নারীদের বসার আলাদা ব্যবস্থা এবং প্রায় দুই বর্গকিলোমিটার আয়তনের সভাস্থলে দূরের শ্রোতাদের জন্য ২৬টি এলইডি মনিটর ও ৫০০ মাইকের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এছাড়া নদীপথে আসা দর্শনার্থীদের জন্য ২০টি পন্টুন তৈরি করা হচ্ছে।

এদিকে শিবচর উপজেলা থেকে লাখ-লাখ লোক সমাগমের চেষ্টা করছেন সরকারি দলের নেতারা। তাই চলছে ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে দলীয় বৈঠক, আলোচনা সভা, মিছিল, গণসংযোগ ও মাইকিং।

সাধারণ জনগণ চায় সব ধরনের সংঘাত এড়িয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে পদ্মাসেতুর উদ্বোধন দেখতে। পদ্মাসেতু উদ্বোধন উচ্ছ্বাসে ভাসছে পদ্মাপারের মানুষ থেকে শুরু করে দক্ষিণের ২১ জেলার মানুষ। পথে-ঘাটে, চায়ের কাপে, আড্ডায়-আলোচনায় সেই আনন্দেরই অনুরণন। চোখে-মুখে স্বপ্নপূরণের আলোকছটা।

প্রাণের সে উৎসবের ছটা পড়েছে সবখানে। সড়ক-মহাসড়ক, রাস্তাঘাট, হাটবাজার ও অলিগলি ছেয়ে গেছে পোস্টার, ব্যানার, বিলবোর্ড আর তোরণে। যতদূর চোখ যায় যেন রঙের ছড়াছড়ি। বিভিন্ন স্থানে করা হয়েছে আলোকসজ্জা। মরিচবাতিতে উজ্জ্বল সেতু, নৌকা।

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক রহিমা খাতুন বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে জনসভায় দশ লাখ মানুষের সমাগম হবে। পানি থেকে শুরু করে তাদের সব ধরনের সুবিধা দিতে আমরা প্রস্তুতি নিয়েছি। এছাড়া সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

Previous articleহাতিয়াতে মিলল পরিত্যক্ত আগ্নেয়াস্ত্র
Next articleন্যায্যমূল্য পেতে কৃষকের সহায়ক হবে স্বপ্নের পদ্মাসেতু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।