বাংলাদেশ প্রতিবেদক: খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, ‘দুর্ভিক্ষ আসছে, এই আতঙ্কে মানুষ যদি তিন-চার গুণ খাদ্য কিনে মজুদ না করে, আমি গ্যারান্টি দিচ্ছি, বাংলাদেশে দুর্ভিক্ষ আসবে না, আসবে না, আসবে না।’

রোববার দুপুরে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের প্রশিক্ষণ কক্ষে খাদ্য মন্ত্রনালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত ‘গণমাধ্যমকর্মীদের নিরাপদ খাদ্য আইন এবং বিধি-প্রবিধি অবহিতকরণ’ শীর্ষক কর্মশালা ও খাদ্যপণ্য রফতানির ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য সনদ প্রদানের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

দুর্ভিক্ষের প্রশ্নই আসে না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, যে দেশের মাটিতে বীজ দিলেই ফসল হয়, আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে, ইরি ও বোরোর জন্য পর্যাপ্ত সার মজুদ আছে, খাদ্যের মজুদ থাকার পরও আমদানি অব্যাহত রয়েছে, সেই দেশ দুর্ভিক্ষের কবলে পড়ার প্রশ্নই আসে না।

দেশের সামগ্রিক রফতানি বৃদ্ধি পাবে উল্লেখ করে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আগে খাদ্য রফতানি করতে হলে বিদেশ থেকে কর্তৃপক্ষের সনদ নিতে হতো। এখন আর সেটির প্রয়োজন হবে না। বাংলাদেশই এখন আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী সনদ দেবে। এতে সারা বিশ্ব জানবে, বাংলাদেশে নিরাপদ খাদ্য পাওয়া যায়। তখন রফতানি আরো ত্বরান্বিত হবে।’

এ সময় তিনি বলিষ্ঠ জাতি গঠনে নিরাপদ খাদ্যের গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করেন। পাশাপাশি প্রতিটি বাড়ি ও বাসায় রান্না থেকে টেবিল পর্যন্ত খাবার নিরাপদ কিনা, সেদিকে খেয়াল রাখার জন্যও জোর তাকিদ দেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খাদ্যসচিব মো: ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘আন্তঃমন্ত্রণালয়ের কাজের যাতে ওভারলেপিং না হয়, তা আমরা বসে সমাধানের চেষ্টা করব।’

এ সময় তিনি খাদ্যপণ্য রফতানির ক্ষেত্রে সর্বজন স্বীকৃত স্বাস্থ্য সনদ প্রদান করার জন্য আস্থা তৈরির ওপর জোর দেন ও বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথ ও নির্ভুলভাবে প্রদান করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

স্বাস্থ্য সনদ প্রদান অনুষ্ঠানের সভাপতি ছিলেন বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো: আব্দুল কাইউম সরকার। তিনি বলেন, ‘খাদ্যপণ্য রফতানির ক্ষেত্রে বিএফএসএ কর্তৃক প্রদেয় স্বাস্থ্য সনদ দেশের সামগ্রিক রফতানি বৃদ্ধি করবে।’

এ সময় ইএসএল বাংলাদেশ লিমিটেড ও ট্রাস্ট অ্যান্ড ট্রেড নামে দু’টি কোম্পানিকে স্বাস্থ্য সনদ প্রদান করার মাধ্যমে কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করা হয়।

এছাড়া সকাল সাড়ে ১১টায় শুরু হওয়া কর্মশালায় নিরাপদ খাদ্য আইন ও বিধি-প্রবিধি সম্পর্কে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএফএসএ-এর সদস্য জনাব মঞ্জুর মোর্শেদ আহমদ। তাতে নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩-এর বিভিন্ন ধারা ও অধ্যায়, খাদ্য দূষণকারী, সংযোজন দ্রব্য ব্যবহার, স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ সংরক্ষণ, খাদ্য স্পর্শক, ব্যবসায়ীর বাধ্যবাধকতা, দূষণ, টক্সিন ও ক্ষতিকর অবশিষ্টাংশ, ট্রান্স ফ্যাটি এসিড নিয়ন্ত্রণ, বিষাক্ত পদার্থযুক্ত খাদ্যদ্রব্য প্রত্যাহার বিষয়ক প্রবিধানমালা বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

কর্মশালায় জানানো হয়, বিশ্বে প্রতি বছর ১০ জনে একজন খাদ্যজনিত অসুস্থতায় ভোগে ও চার লাখ ২০ হাজার জন মারা যায়। খাদ্যজনিত অসুস্থতায় প্রতি তিনজনে একজন শিশু মারা যায়। এ কারণেই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় ১৫০ মিলিয়ন মানুষ অসুস্থ হচ্ছে। তাদের মধ্যে এক লাখ ৭৫ হাজার মারা যায়। যার মধ্যে ৫০ হাজারই থাকে শিশু।

কর্মশালা ও স্বাস্থ্য সনদের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সরকারের বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তারা, রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতিনিধিরা, গণমাধ্যমের কর্মীরা ও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন বিএফএসএ-এর আইন কর্মকর্তা জনাব শেখ মো: ফেরদৌস আরাফাত।

Previous articleনুহাশপল্লীতে নানা আয়োজনে হুমায়ুন আহমেদের ৭৪তম জন্মদিন পালিত
Next article৩-৪ বছরের মধ্যে ক্যাশলেস সমাজ প্রতিষ্ঠা সরকারের লক্ষ্য: জয়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।