পটুয়াখালী প্রতিনিধি: গলাচিপার উলানিয়ার নিজ বাস ভবনে অবরুদ্ধ হয়ে আছেন বলে অভিযোগ করেছেন পটুয়াখালী-৩ আসনের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী গোলাম মাওলা রনি। গত তিন দিন ধরে আমার বাসার চারিদিকে ঘিরে নৌকার সমর্থকদের পালা করে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকায় তিনি তার বাসায় পরিবার পরিজন নিয়ে আতঙ্কিত অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত শুক্রবার আমার বিরুদ্ধে থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করার পর থেকেই মূলত বাইরে বের হতে পারছি না। মসজিদে নামাজ আদায় করতেও পারছি না। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর লোকজনের হুমকি-ধমকিতে আমার নেতা-কর্মীরা বাসায় আসতে পারছেন না। বরং তারা এদিক সেদিক পালিয়ে বেড়াচ্ছে। এলাকা ছেড়ে তাদের চলে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে। নির্বাচনী সেন্টার কর্মীর কমিটি করতে পারছি না। এভাবে চলতে থাকলে আমি নির্বাচনী এজেন্টও দিতে পারবো বলে মনে হয় না। তবে সেনাবাহিনী মাঠে নামলে পরিস্থিতি কিছুটা পরিবর্তন হতে পারেও বলে মন্তব্য করেন রনি।

গোলাম মাওলা রনি আজকের কাগজকে জানান, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গলাচিপা থানায় একটি মিথ্যা মামলা করার পরে আমি ঘরে বসে আছি পুলিশ আমাকে গ্রেফতারও করছে না। লিখিতভাবে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চেয়েও কোন ধরনের সাহায্য সহযোগিতা পাচ্ছি না আমি। এমনকি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর লোকজন পালা করে আমার বাসার সামনে এসে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করছে। বাসা থেকে বের হলেই তারা আমাকে খুন করবে এমন হুমকি দিচ্ছে বলেও জানান রনি।
আগে বাসা সংলগ্ন মসজিদে নামাজ আদায় করতে পারতাম, এখন নামাজ পড়তেও যেতে পারছি না। প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হয়ে গেছে। নৌকার সমর্থকদের অব্যাহত হুমকি-ধমকিতে আমার নেতা-কর্মী-সমর্থকরা বাসায় আমার সাথে সাক্ষাৎ করতে আসতে পারছেন না। এমনকি তাদের এলাকাছাড়ার হুমকিও দেয়া হচ্ছে। গলাচিপা ও দশমিনায় পার্টি অফিস বন্ধ হয়ে গেছে। কোন নেতা-কর্মী-সমর্থক অফিসে যেতে পারছেন না। তাদের হুমকি দিয়ে এলাকাছাড়া করা হচ্ছে। এমনকি আমার বাসায় অবস্থানরত আমার স্ত্রী-সন্তান, বোনসহ পরিবারের সদস্যদের গলাচিপার কচুয়া নামকস্থানে নিরাপত্তা দিয়ে পৌঁছে দেওয়ার জন্য প্রশাসনকে বার বার বলা হলেও কেউই সাহায্য করছেন না। এসব বিষয় নিয়ে আমি খুব দুশ্চিন্তায় সময় পার করছি।

এ বিষয়ে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ও রিটানিং কর্মকর্তা মো. মতিউল ইসলাম চৌধূরী বলেন, কেউ কোন সহযোগিতা চাইলে আমরা তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নিই। কিন্ত আজকে এবং গতকালকে তার (গোলাম মাওলা রনি) সাথে আমার কোন কথা হয়নি ।

উল্লেখ্য, ২০ ডিসেম্বর রাতে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থী গোলাম মাওলা রনির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। গলাচিপা থানায় মামলাটি দায়ের করেন আওয়ামী লীগের নির্বাচনী পরিচালনা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক ও গলাচিপা মহিলা কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মেহেদী মাসুদ। মামলা নম্বর-১৪।