কাগজ প্রতিবেদক: রাজনীতিতে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ছিলেন অগ্রজ অভিভাবক, দীর্ঘদিনের সহকর্মী। সাংগঠনিকভাবে আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় প্রধান বা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আশরাফ যে দায়িত্ব সামলাতেন, সে দায়িত্বই এখন তার কাঁধে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে আশরাফের সঙ্গে যে স্মৃতি জমেছিল, সেই স্মৃতি হৃদয়পটে ভেসে উঠতেই কেঁদে ফেললেন আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

কাদেরের পাশাপাশি আশরাফের স্বজনদের কান্নায় আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন আওয়ামী লীগের অন্য নেতাকর্মীরাও।
দীর্ঘদিন অসুস্থ থাকার পর গত ৩ জানুয়ারি ব্যাংককের একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সৈয়দ আশরাফ। সেখান থেকে তার মরদেহ মেঘদূতযোগে ঢাকায় আনা হয়। বিমানবন্দর থেকে সৈয়দ আশরাফের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় তার বেইলি রোডের বাসায়।