বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দেশের ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা আসছে বলে মন্তব্য করেছেন গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ড. রেজা কিবরিয়া। র‌্যাবের বর্তমান ও সাবেক সাত কর্মকর্তার ওপর মার্কিন নিষেধাজ্ঞার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘এসব নিষেধাজ্ঞায় শুধু সরকার না, দেশও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’ তবে কার বা কোন প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসছে, সে ব্যাপারে কিছু জানাননি তিনি।

শনিবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টন প্রিতম জামান টাওয়ারে গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। নির্বাচন কমিশন আইন ও চলমান বিষয় নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘আরও নিষেধাজ্ঞা আসবে সে ব্যাপারে আপনারা নিশ্চিত থাকুন। এই বিপদ থেকে উত্তরণের জন্য সব বিরোধী দলের সঙ্গে সরকারের আলোচনা করা উচিত। এটা একটা জাতীয় সমস্যা, শুধু আওয়ামী লীগের সমস্যা নয়। আওয়ামী লীগের শাসনের অবসান ঘটবে এটাও সরকার ইশারা-ইঙ্গিতে বুঝেছে এবং এই সরকারের জন্য এত দিন যারা কাজ করেছে, মানুষকে গুম-খুন করেছে, তারা এখন দুশ্চিন্তায় আছে।’

তিনি বলেন, ‘সরকার দেশের মানুষকে বুঝতে দিতে চায় না তারা কত বড় বিপদে পড়েছে। কত বড় দুশ্চিন্তায় আছে। আমাদের সামরিক বাহিনীকে বিপদে ফেলে দিয়েছে। পুলিশ বাহিনীকে বিপদে ফেলেছে। আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। শুধু নিজেরা ডুববে না, দেশকে ডুবিয়ে এই স্বৈরাচারী সরকার ক্ষমতাচ্যুত হবে। এই জিনিসটা সাধারণ মানুষ বুঝে গেছে, ব্যবসায়ীরাও বুঝে গেছেন।’

নির্বাচন কমিশন গঠন আইন, ২০২২ প্রসঙ্গে রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানে বিরোধী দলের সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচন কমিশন আইন করা হয়। এমনকি পাশের দেশ ভারতেও রাষ্ট্রপতি এ আইন করার আগে বিরোধী দলের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে। আমাদের দেশে সরকার কোনো ধরনের আলাপ-আলোচনা না করে তড়িঘড়ি করে সংসদে আইন পাস করল, যা সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক ও আপত্তিকর। এর ফলে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হবে।’

নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না মন্তব্য করে রেজা কিবরিয়া বলেন, ‘নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন কমিশনে ফেরেশতা দিলেও দেশে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না, যা প্রমাণিত হয়েছে ২০১৪ ও ২০১৮-এর নির্বাচনে।’

গণ অধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুর বলেন, ‘বিগত দুটি বিতর্কিত নির্বাচন কমিশন গঠনের দায়মুক্তির বিধান রেখে, নির্বাচন কমিশন গঠনে বিরোধী রাজনৈতিক দলের সাংসদ ও রাজনৈতিক নেতাদের মতামতের কোনো সুযোগ না রেখে সরকারি দলের পছন্দমতো নির্বাচন কমিশন গঠনের নিমিত্তে যে আইন পাস করা হয়েছে, তা নির্বাচনী সংকটকে আরও ঘনীভূত করবে। এ ধরনের গণবিরোধী আইনকে গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত বলে মনে করে গণ অধিকার পরিষদ। তাই নির্বাচন কমিশন গঠনে রাজনৈতিক ঐকমত্যকে গুরুত্ব দিতে হবে।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দলের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান, ফারুক হাসান, সোহরাব হোসেন, শাকিল উজ্জামান, শহিদুল ফাহিম, যুগ্ম সদস্যসচিব আতাউল্লাহ, আব্দুজ জাহের, ফাতেমা তাসনিম, নাজমুল হুদা প্রমুখ।

Previous articleসুন্দরগঞ্জে পর্ণোগ্রাফির অভিযোগে যুবক গ্রেফতার
Next articleক্ষমতা টিকিয়ে রাখার খেলা মানুষ বরদাস্ত করবে না: বাম জোট
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।