বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
Homeরাজনীতিযতই বোঝান, আপনার অধীনে আর নির্বাচনে যাব না : মান্না

যতই বোঝান, আপনার অধীনে আর নির্বাচনে যাব না : মান্না

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বর্তমান সরকারকে উদ্দেশ্য করে নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বিদেশীদের যতই বোঝান, আপনার অধীনে আমরা আর নির্বাচনে যাব না। আমরা যেমন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করতে পারি, তেমনি দুর্বার আন্দোলনও সৃষ্টি করতে পারি।

আজ শ‌নিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গণতন্ত্র মঞ্চের উদ্যোগে ‘সরকার ও শাসন ব্যবস্থা পরিবর্তনের লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধ হোন’ ব্যানারে বিরোধী মতের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে দমন পীড়ন ও দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে তি‌নি এসব কথা ব‌লেন।

মান্না বলেন, ২০১৮ সালে দিনের ভোট রাতে করার পরে এই সরকার দেশের ভেতরে ও বাইরে আন্তর্জাতিকভাবেও সমালোচিত হয়েছে। জাপানি রাষ্ট্রদূত দিনের ভোট রাতে হয়েছে বলেছেন। আমেরিকার বিভিন্ন প্রতিনিধিরা এদেশে বার বার আসছেন, এতেই বোঝা যায়! এই সরকার কত বড় চুরি করছে! এই সরকার আবারো বিদেশীদের বলছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন করবে।

আন্দোলন দমিয়ে রাখতে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর সরকার হামলা মামলা করছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মাহমুদুর রহমান মান্না ব‌লেন, প্রধানমন্ত্রী গতবারের নির্বাচনের আগে বলেছিলেন যে আমি বঙ্গবন্ধু কন্যা, আমি মিথ্যা কথা বলি না, আমরা দেখেছি তারা কী করেছে গত নির্বাচনে! কিন্তু এবার আর মিথ্যুকদের কথা বিশ্বাস করব না, তাই এই সরকারের পতন ঘটানোর জন্য আন্দোলন করতে হবে, তার কোনো বিকল্প নাই। আমরা এই সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে যাব না। তাদের সংলাপের টোপে আমরা পড়ব না। আমরা ইতোমধ্যেই বিএনপি’র সাথে যুগপৎ আন্দোলনের রূপরেখা নিয়ে আলোচনা করছি এবং অচিরেই বিএনপি’র সাথে সরকার পতনের একদফা কর্মসূচি দিয়ে রাজপথে থাকব।

সভাপতির বক্তব্যে ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহ্বায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু বলেন, আমি আজকের গণতন্ত্র মঞ্চের এই কর্মসূচিতে আগত সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সরকার বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের ওপর জুলুম নির্যাতন করছে এবং রমজানের আগেই সব কিছুর দাম বাড়িয়েছে। সিন্ডিকেট ব্যবসার জন্য সব কিছুর দাম বেড়েছে। সরকার বিদেশী ভারতীয় প্রভুকে খুশি করতে আদানি গ্রুপের সাথে চুক্তি করেছে। ইতোমধ্যেই সরকার সংলাপের বিষয়ে কথাবার্তা শুরু করেছে। এর আগে সরকারকে ঘোষণা দিয়ে পদত্যাগ করতে হবে। তাহলে আমরা বিবেচনা করব, তাদের সাথে আলোচনায় যাবো কিনা। বিএনপি’র সাথে যুগপৎ আন্দোলন নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে, দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। অবিলম্বে আদানি গ্রুপের সাথে চুক্তি বাতিল করুন, না হলে আমরা বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করব।

বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক বলেন, আওয়ামী লীগ আজকেও বিরোধী দলের কর্মসূচির দিনে শান্তি সমাবেশের নামে পাল্টা কর্মসূচি দিয়েছে। এই ধরনের কর্মসূচিকে জনগণ নার্ভাস দলের কর্মসূচি বলে নাম দিয়েছে। সন্ত্রাস না করে আওয়ামী লীগ কোনোভাবেই ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে না। তারা ছাত্রীকে বিবস্ত্র করে সমস্ত বাংলাদেশকে বিবস্ত্র করেছে। তাই তাদের বিদায় করা ছাড়া আর কোনো ওপায় নাই। রোজার আগেই সিন্ডিকিটের মাধ্যমে বাজার অস্থির অবস্থায় নিয়ে গেছে। এরপরেও তারা বলে মানুষ নাকি বেহেস্তে আছে, তারাই শুধু বেহেস্তে আছে। তারা একটি পলিসি নিয়েছে লুটপাট, টাকা বিদেশে পাচার করে দেয়া। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই বিএনপি’র সাথে গণতন্ত্র মঞ্চ যুগপৎ আন্দোলনের রূপরেখা ঘোষণা করবে। এবার বিজয় অর্জন ছাড়া মানুষ ঘরে ফিরবে না।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, আজকে আমরা যুগপৎ আন্দোলনের অংশ হিসেবে পদযাত্রা করছি। আমরা আজকে এমন একটি সরকার ব্যবস্থায় আছি, যারা সমস্ত জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে জনগণকে একটি ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। তারা কিভাবে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করা যায় এবং নিজেদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করা যায়, তা নিয়ে ব্যস্ত। তারা ভাবে তাদের হাতে দু’টি অস্ত্র আছে, মানুষকে ভয়ভীতি এবং হামলা মামলা করা। তাদের নিজস্ব বাহিনী লাঠিয়াল ছাত্রলীগকে লেলিয়ে দিয়েছে। ক্ষমতা টিকিয়ে রাখার জন্য বিদেশীদের খুশি করছে তারা। আমরা পরিস্কার করে বলতে চাই, এইবার আক্রমণ ও বিদেশীদের খুশি করে আর ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। এবার সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাস্তায় নেমে এসেছেন।

রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম বলেন, আপনারা জানেন বাংলাদেশ একটি ভয়াবহ পরিস্থিতি দিকে যাচ্ছে। যাদের জনগণ নিয়ে ভাবার কথা তারা জনগণের টাকা লুটপাট করে বিদেশী কোম্পানির হাতে তুলে দিচ্ছে। আদানি গ্রুপের সাথে চুক্তি করে টাকা বিদেশে পাচার করতে যাচ্ছে। সংবিধানের ৪৫ অনুচ্ছেদ এ বাংলাদেশ বিরোধী কোনো কাজ করতে পারে না, এমন বলা হলেও তারা তা মানছে না। এখন যেকোনো সমস্যার মূলে এই অবৈধ সরকার।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডির) সাধারণ সম্পাদক শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন বলেন, আজকে জনগণ কী দুর্বিষহ জীবন যাপন করছে, তা সবাই জানেন। প্রতিদিন নিয়ন্ত্রণহীনভাবে সরকার জিনিসপত্রের দাম বাড়াচ্ছে। এই সরকারের জনগণকে নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই। তাই জনগণকে বাঁচতে হলে লড়াই করা ছাড়া কোনো বিকল্প নাই। এই সরকারের ছাত্রলীগ সাধারণ ছাত্রদের ওপর নির্মম নির্যাতন করছে। এই সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। তাদের পতন ছাড়া জনগণের মুক্তি নাই।

ভাসানী অনুসারী পরিষদের আহ্বায়ক শেখ রফিকুল ইসলাম বাবলু সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব হাবিবুর রহমান রিজু সঞ্চালনায় উপস্থিতি ছি‌লেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট হাসনাত কাইয়ুম, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডির) সাধারণ সম্পাদক শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান সহ গণতন্ত্র মঞ্চের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, আগামী ১১ মার্চ ঢাকাসহ সারাদেশের সকল বিভাগীয় শহরে মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষণা দেয় গণতন্ত্র মঞ্চ।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments