মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
Homeরাজনীতিহাসিনাকে সরতে বাধ্য করতে হবে: শাহাজাহান

হাসিনাকে সরতে বাধ্য করতে হবে: শাহাজাহান

গিয়াস উদ্দিন রনি ঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইঙ্গিত করে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ার মো.শাহজাহান বলেছেন, ঊনারতো এমনেই একটি জেনেটিক প্রবলেম আছে। কারণ ঊনি জম্ম গ্রহণ করার পর ঊনার মা,খালা,দাদী,নানী ঊনার মুখে মিষ্টি মধূ দেন নাই, চোখে কাজল দেন নাই। এজন্য ঊনার কথায় কোনো সৌন্দর্য নেই, ঊনার চোখে শরম নেই।
শুক্রবার (১ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৫টার দিকে জেলা শহর মাইজদীর শহীদ মিনার চত্ত্বরে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির ৪৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। নোয়াখালী জেলা বিএনপি এ কর্মসূচির আয়োজন করে।
শেখ হাসিনার বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, আপনি জাসদের কাছে নাকে খত দিয়ে,তাদের পদলেহন করে ক্ষমতায় টিকে আছেন। ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেন নাই, তাদের পদলেহন করে ক্ষমতায় এসেছেন। পদলেহন করার যদি অভ্যাস তাকে সে অভ্যাস আওয়ামী লীগের, সে অভ্যাস বিএনপির নয়। এখনো পদলেহন করে টিকে থাকতে চান। আসলে যখন মাথা খারাপ হয়ে যায়, সঠিক ভাবে তখন কথা বলা কঠিন।
তিনি বলেন, আজকে আমাদের প্রধানমন্ত্রী একদিকে দেখছেন সন্ধ্যায় না ভোররাতে, না ভোরবেলা, একদিন না, এক সপ্তাহ, না এক মাস পরে, কোন দিন সরে যাবে ঊনি। তিনি আছেন এ চিন্তায়। এটার মাঝে যখন বক্তব্য দিতে হয় তখন কি বক্তব্য সঠিক ভাবে দিতে পারে। মানুষ যখন বেসামাল হয়ে যায় তখন অপরকে গালিগালাজ করে। যেখানে দেখছেন পতন অনিবার্য সেখানে কি মাথা ঠিক থাকে।
আওয়ামীলীগ নেতাদের বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ নেতারা বলে বিএনপি নাকি এক রাতে সব শেষ করে দিবে। বিএনপি একরাতে শেষ করে দেওয়ার দল নয়। বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে বিধায় সহাবস্থানের রাজনীতিতে বিশ্বাস করে।  আপনাদের যদি পতন হয় বিএনপি আপনাদের গায়ের ওপর হাত দিবেনা। বিএনপি আপনাদের সাথে একসাথে রাজনীতির চেষ্টা করবে।  ভয় এক জায়গাতে আমরা নেতারা ঠেকাতে পারব। সাধারণ মানুষ যাদের উপর অত্যাচার করেছেন। তারা যদি আপনাদের উপর প্রতিশোধ নিতে চায়।   আমরা কি সব জায়গায় ঠেকাতে পারব। আপনারা সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার করছেন। লুটপাট করছেন।  ব্যাংক খালি করে দিয়েছেন।
খালেদা জিয়ার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার কি হয় জানিনা। খালেদা জিয়ার ক্ষতি হলে সেদিন আমরা বসে থাকবনা। সারা বাংলাদেশের মানুষ সেদিন প্রতিশোধ নেবে।  খালেদা যে দিন গ্রেফতার হয়।  সেদিন তিনি আমাকে বলেছেন, তোমরা আমার গ্রেফতার নিয়ে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করিওনা দেশের শান্তি নষ্ট করিও না। আমরা মনে করেছিলাম আইনের গতিতে খালেদা জিয়া মুক্তি পাবে।
বিচারপতির বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে বলেন, গতকালকে বিচারপতির কথা থেকে বুঝলাম, দেশে আইনের শাসন ছিলনা। যতক্ষণ পর্যন্ত তিনি চেয়ারে ছিলেন ততক্ষণ পর্যন্ত সরকারের নির্দেশে রায় দিয়েছেন। যাওয়ার বেলায় আসল কথা বলে গিয়েছেন। যেখানে এক ব্যক্তির কাছে সকল ক্ষমতা কুক্ষিগত থাকে, সেখানে ন্যায় বিচার করা যায়না। তার প্রমাণ বিচারপতির বক্তব্য।  এর আগের বিচারপতিও সরকারের নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছিলেন। যখন তাকে দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হলো,তখন তিনিও সত্য কথা বললেন।  আমি যে রায় গুলো দিয়েছি, আইন দেখে রায় গুলো দিতে পারি নাই। সরকারের নির্দেশ আমাকে এ রায় দেওয়ার জন্য বাধ্য করছে।  আমরা কোন দেশে আছি।  আমাদের ৬শত কর্মি গুমের শিকার তাদের কোনো খবর নেই।
 বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্য আইন করে বন্ধ করার সমালোচনা করে তিনি বলেন, তারেকের বক্তব্য আপনি আইন করে বন্ধ করলেও অসুবিধা হবেনা। তারেক ইতিমধ্যে সকল মানুষের হৃদয়ের মধ্যে প্রবেশ করেছে। তিনি হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে তাকে সেখান থেকে সরানো যাবেনা।
দলীয় নেতাকর্মিদের উদ্দেশ্য করে বলেন, হৃদয়ের মধ্যে নেতাকর্মিদের আগুন জ্বলছে। বিএনপি নেতাকর্মিরা চায় কত তাড়াতাড়ি হাসিনার বিদায় হবে। আজকে শুধু প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করার জন্য নেতার্কিরা এখানে হাজির হয়নাই। আজকের সমাবেশ যুদ্ধপূর্ব একটা প্রস্ততির সমাবেশ।  শেখ হাসিনা যদি ভালোই ভালোই নিজ থেকে সরে যায়।  না হলে তাকে সরতে বাধ্য করতে হবে।  বিএনপি বিদেশীদের কাছে ধরনা দিয়ে রাজনীতি করেনা। বিএনপি আদর্শের রাজনীতি করে। এখন বিএনপি যে ভালো কথা বলে, এ ভালো কথা কোনো বিদেশী বলে, আমরা কি তাদের নিষেধ করব তোমরা এ কথা বলিওনা। আমাদের দেশে বিদেশীরা নাকি এমন সরকার চায়।  সে সরকার নাকি তাদের পদলেহন করবে। বিএনপি কখনো কারো পদলেহন করে নাই। কারো কাছে মাথা নত করে নাই।
সমাবেশে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকন।  সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালী জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার বিএসসি, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবদুর রহমান প্রমূখ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্যে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহাবুব উদ্দিন খোকন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জগত একেবারে ছোট হোয়ে গেছে। শেখ হাসিনার বক্তৃতার উদ্ধৃতি দিয়ে প্রশাসনের উদ্দেশে  বলেন, শেখ হাসিনার ব্ক্তব্য অনুযায়ী নাম-ঠিকানা নিতে ১০ মিনিট লাগবে।  বাড়াবাড়ি করলে রক্ষা নেই। নেতাকর্মিদের উদ্দেশ্যে বলেন, প্রশাসনে যারা অতিরিক্ত বাড়াবাড়ি করবে তাদের প্রতিহিত করতে হবে। তিনি আরও বলেন, ১৬ বছর হামলা মামলার শিকার হয়েও বিএনপির সমর্থন বেড়েছে। আওয়ামীলীগের সমর্থন দিন দিন শূণ্যের দিকে যাচ্ছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
এ সময় নোয়াখালী জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন সেলিম, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো.সলিম উল্যাহ বাহার হিরণ, সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, নোয়াখালী পৌরসভা বিএনপির সভাপতি আবু নাছের,কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব মাহমুদুর রহমান রিপন উপস্থিত ছিলেন।
আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerkagoj.com.bd/
Ajker Bangladesh Online Newspaper, We serve complete truth to our readers, Our hands are not obstructed, we can say & open our eyes. County news, Breaking news, National news, bangladeshi news, International news & reporting. 24 hours update.
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments