শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Homeরাজনীতিতিনবারের এমপি শাহরিয়ারের ম্যাজিক: সম্পদ বেড়েছে দুই ছেলের, চড়েন কোটি টাকার গাড়িতে

তিনবারের এমপি শাহরিয়ারের ম্যাজিক: সম্পদ বেড়েছে দুই ছেলের, চড়েন কোটি টাকার গাড়িতে

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: প্রথমবার এমপি হওয়ার আগে ২০০৮ সালে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের ঋণ ছিল ৭৬ কোটি ১৪ লাখ টাকা। তখন তাঁর অস্থাবর সম্পদ ছিল ২ কোটি ৩ লাখ টাকার। গত ১৫ বছরে সব ঋণ পরিশোধ করেছেন। শুধু তাই নয়, তাঁর অস্থাবর সম্পদ আছে ৮৯ কোটি ২৪ লাখ টাকার।

১৫ বছর ধরে রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনের এমপি শাহরিয়ার আলম। তাঁর দুই ছেলেরও বেড়েছে আয় ও সম্পদ। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য জমা দেওয়া হলফনামা এবং আগের হলফনামা বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

রাজনীতিতে সক্রিয় না থেকেও ঢাকার ব্যবসায়ী শাহরিয়ার আলম ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে আলোচনায় আসেন। এরপর টানা তিনবার এমপি হন। ২০১৪ সালে দায়িত্ব পান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর। ২০০৮ সালে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এককভাবে, নির্ভরশীল ব্যক্তিদের এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান, ডিরেক্টর হওয়ায় কোম্পানির নামে তাঁর ঋণ ছিল ৭৬ কোটি ১৪ লাখ টাকা। ২০১৮ সালের হলফনামা অনুযায়ী ঋণ ছিল ৫৭ লাখ টাকার। এবারের হলফনামায় ঋণের উল্লেখ নেই।

তিনি প্রথমবার সংসদ সদস্য হওয়ার সময় ১০ লাখ ৫ হাজার টাকা এবং তাঁর স্ত্রী ২৭ লাখ টাকা দামের গাড়িতে চড়তেন। বর্তমানে তিনি ১ কোটি ১ লাখ টাকা এবং তাঁর স্ত্রী ১ কোটি ১৬ লাখ টাকা দামের গাড়িতে চড়েন।

শাহরিয়ার আলমের বার্ষিক আয় বেড়েছে বহু গুণ। ২০০৮ সালে বার্ষিক আয় ছিল ৯৭ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। এখন বার্ষিক আয় ৭ কোটি ৯২ লাখ ৯১ হাজার টাকা। এর মধ্যে কৃষি খাত থেকে আয় ৫ লাখ ৮৫ হাজার টাকা, বাড়ি-অ্যাপার্টমেন্ট ও দোকান বা অন্যান্য বাবদ ১৩ লাখ ৫০ হাজার, কোম্পানির শেয়ার থেকে লভ্যাংশ ৭ কোটি ৬০ লাখ ৭৮ হাজার, ব্যাংক সুদ থেকে ১ লাখ ৭৪ হাজার এবং প্রতিমন্ত্রী হিসেবে প্রাপ্ত সম্মানী ভাতা ও পারিতোষিক ১১ লাখ ৪ হাজার টাকা। ২০১৮ সালের হলফনামায় তাঁর বার্ষিক আয় ছিল ৩ কোটি ৪ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। গতবার কোম্পানির শেয়ার থেকে লভ্যাংশ ২ কোটি ৬৩ লাখ ৯৬ হাজার হলেও এবার বেড়ে ৭ কোটি ৬০ লাখ ৭৮ হাজার টাকা হয়েছে।

শাহরিয়ার আলমের অস্থাবর সম্পদের মধ্যে নগদ ও ব্যাংকে আছে ২১ কোটি ৪৫ লাখ ৪৯ হাজার টাকা। বিভিন্ন কোম্পানিতে শেয়ারের মাধ্যমে বিনিয়োগ ৬৬ কোটি ৪১ লাখ টাকা। পোস্টাল, সঞ্চয়, সার্টিফিকেটসহ বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্রে বা স্থায়ী আমানতে বিনিয়োগ ৩০ লাখ টাকা। ২০০৮ সালে স্বর্ণ দেখিয়েছিলেন ৩ লাখ টাকার (২৭ ভরি)। এবার স্বর্ণ দেখিয়েছেন ১ কোটি ৪০ লাখ টাকার (১৭৫ ভরি)। স্বামী-স্ত্রী দু’জনের ইলেকট্রনিক সামগ্রী ৬ লাখ ৪০ হাজার টাকার। আসবাব ২ লাখ ৫০ হাজার টাকার।

প্রতিমন্ত্রীর দুই ছেলের সম্পদ ও আয় বেড়েছে। গতবারের হলফনামায় তাঁদের বার্ষিক আয় ছিল ১২ লাখ ২৫ হাজার ৮০০ টাকা। এবার তা বেড়ে হয়েছে ৮৬ লাখ ৮০ হাজার ৪৮৪ টাকা। দুই ছেলের অস্থাবর সম্পদ ছিল ৭৯ লাখ টাকা। বর্তমানে তাঁদের অস্থাবর সম্পদ ৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘আয় ও সম্পদের বিষয়টি হলফনামায় পরিষ্কার দেওয়া আছে। এর বিপরীতে ইনকাম ট্যাক্স দেওয়া হয়। বক্তব্য দেওয়ার কিছু নেই। বক্তব্য ছাড়াই সবাই রিপোর্ট করে।’

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments