বাংলাদেশ ডেস্ক: রেকর্ড মানেই কি ইতিবাচক অর্জন? কখনো কখনো ইতিবাচক অর্জনের রেকর্ড মানুষকে উৎফুল্ল করে। প্রেরণা যোগায়। খেলার মাঠে দলীয় কিংবা ব্যক্তিগত এমন অহরহ রেকর্ড হয়। তবে উল্টোটাও হয়। যা লজ্জার রেকর্ড। তেমনই এক লজ্জার রেকর্ডের ভাগীদার হলো বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা দল ভারত। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে গড়লো টেস্ট ইতিহাসে নিজেদের সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ। টেস্টে বাংলাদেশের সর্বনিম্ন স্কোর ৪৩। সর্বনিম্ন রান সংগ্রহের প্রথম দশ ইনিংসে নেই বাংলাদেশের নাম। অর্থাৎ ভারত যে লজ্জা পেয়েছে তা কখনো পায়নি বাংলাদেশ। বরং বাংলাদেশের চেয়ে একবার বেশি হলেও এই লজ্জায় ডুবতে হয়েছে ভারতকে।

টেস্ট ক্রিকেটে সর্বনিম্ন রানের রেকর্ডে প্রথমেই আছে নিউজিল্যান্ড। ১৯৫৫ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই লজ্জার রেকর্ড গড়ে কিউইরা। যা এখন পর্যন্ত সর্বনিম্ন স্কোর। সেই ম্যাচে মাত্র ২৬ রানে অলঅউট হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। দ্বিতীয় স্থানে আছে দক্ষিণ আফ্রিকা। তাদের সংগ্রহ ৩০ রান। ১৮৯৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই লজ্জার রেকর্ড গড়ে প্রোটিয়ারা। তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানেও আছে প্রোটিয়ারা। এরপরই আছে অস্ট্রেলিয়া। ১৯০২ সালে ৩৬ রান করে এই রেকর্ডে নাম লেখায় অজিরা।

এবার সপ্তম দল হিসেবে সর্বনিম্ন রানের রেকর্ডে নাম লেখাল ভারত। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অ্যাডিলেড টেস্টে ৩৬ রানে অলআউটের লজ্জায় পড়লো কোহলিরা। এর আগে তাদের সর্বনিম্ন সংগ্রহ ছিল ৪২। যা ১৯৭৪ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে করেছিল। টেস্টে সর্বনিম্ন রানের রেকর্ডে বাংলাদেশ আছে ১৩ নাম্বারে।