বাংলাদেশ প্রতিবেদক: একদিকে লকডাউন, অন্যদিকে চলছে বাংলাদেশ গেমস। তবে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই গেমসে অংশগ্রহণকারী অ্যাথলিট ও সংশ্লিষ্টদের মাঝে। ফলে এক প্রকার প্রশ্নের মুখে পড়েছে বাংলাদেশের ক্রীড়া জগতের সর্ববৃহৎ এ আসর। লকডাউনের মধ্যে বিশেষ ব্যবস্থায় গেমস চালু থাকলেও মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব; মাস্কও পরছেন না অনেকেই। তাড়াহুড়া করে অনেক ডিসিপ্লিনের খেলা শেষ করে দেওয়ায় অ্যাথলিটদের পরিকল্পনা ও সাফল্য একসঙ্গে ধরা দিচ্ছে না।

এরই মধ্যে ব্যাডমিন্টনের উদ্বোধনী ম্যাচ। শাটলারদের পাশেই বসে থাকা আম্পায়ারের মুখে নেই মাস্ক। বিচারকদের ক্ষেত্রেও দেখা যায় একই চিত্র। মাস্ক ছাড়া কেন আছেন? জানতে চাইলে অনেকেই দাঁড় করান নানা অজুহাত। অবশ্য, গেমসের বাকি ক’দিন যেন স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মানা হয়- ব্যাপারটি নজরদারিতে রাখবে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন।

এদিকে, গেমসের পঞ্চম দিনে এসে অনেক ডিসিপ্লিনের খেলা তাড়াহুড়া করে শেষ করে দেওয়া হয়েছে। যে কারণে অ্যাথলিটরা পরিকল্পনামাফিক খেলতে পারেননি। করোনায় গেমস হারিয়েছে তার চিরচেনা প্রাণ।

ফেডারেশন কর্তারা বারবার অনুরোধ করেও মানাতে পারছেন না স্বাস্থ্যবিধি। দূরত্ব মেনে বসা, হাত স্যানিটাইজ করায় নেই সতর্কতা। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন গেমসের বাকি ক’দিন বিষয়টি নজরদারি করবে বলে জানিয়েছে।

বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) মহাসচিব শাহেদ রেজা বলেন, আমরা যতোটা সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার চেষ্টা করছি। সবাইকে নির্দেশনা দেওয়া আছে। তবে কেউ না মানলে সেটা আমরা কঠোরভাবে মনিটরিং করব।

তিনি আরও জানান, লকডাউনে গণপরিবহন না চলায় যেসব ডিসিপ্লিনের খেলা শেষ হয়ে যাবে, সেসব অ্যাথলিটদের বাড়ি পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে বিওএ।

Previous articleকরোনা ও উগ্রগোষ্ঠী প্রতিরোধই সরকারের চ্যালেঞ্জ: কাদের
Next articleকরোনায় দেশের ইতিহাসে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ও শনাক্তের রেকর্ড
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।