বাংলাদেশ ডেস্ক: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের কাছে একটি চার জাতির টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক সিরিজ আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট রমিজ রাজা। টুইটারে নিজের ভেরিফায়েড একাউন্টে তিনি এই প্রস্তাবের কথা উল্লেখ করেছেন।

দেশ চারটি হল- পাকিস্তান, ভারত, অস্ট্রেলিয়া এবং ইংল্যান্ড। রমিজ রাজা টুইটে এই প্রস্তাবিত সিরিজকে `সুপার সিরিজ’ বলে উল্লেখ করেছেন।

তিনি লিখেছেন, এই চারটি দেশ পর্যায়ক্রমে এই সিরিজের আয়োজক দেশ হবে।

এই সিরিজের মূল লক্ষ্যটা আর্থিক, যে কথা উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের সদস্যদের মধ্যে লভ্যাংশ ভাগের জন্য একটি পৃথক রাজস্ব মডেলও তৈরি করা হবে। তিনি এই ভাবনাকে `সবার জন্যই জয়’ হিসেবে দেখছেন।

তবে এই `সুপার সিরিজ’ এর ভাবনা নতুন নয়। এর আগে ২০১৯ সালে ভারতের ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি এমন একটি ধারণার কথা বলেছিলেন। তবে প্রস্তাবিত সেই সিরিজে পাকিস্তানের নাম ছিল না। তখন গাঙ্গুলি বলেছিলেন, ২০২১ সাল থেকে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ভারত এবং শীর্ষস্থানীয় আরেকটি দল নিয়ে সুপার সিরিজ হবে। প্রথম আসরটি হবে ভারতে।

২০১৯ সাল থেকেই পাকিস্তানে নিয়মিত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজিত হচ্ছে। ২০২৫ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিও আইসিসির সূচি অনুযায়ী সব ঠিক থাকলে পাকিস্তানে আয়োজিত হওয়ার কথা। তবে ক্রিকেট বিশ্লেষকরা এধরনের সুপার সিরিজ আয়োজন করা কতোটা সম্ভব হবে তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন।

তারা বলছেন, বর্তমানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ক্যালেন্ডারে যে ব্যস্ততা, তার সাথে টি-টোয়েন্টি লিগগুলোও রয়েছে এবং একই সাথে প্রায় প্রতি বছর একটি করে আইসিসি ইভেন্ট আছে। এ কারণে ২০৩১ সাল পর্যন্ত রমিজ রাজার `সুপার সিরিজ’ এর সময় বের করা মুশকিল হতে পারে।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ক্রিকেট সিরিজ চান ক্রিকেট সমর্থকরা
দক্ষিণ এশিয়ার দুই প্রতিবেশী দেশ ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে দ্বিপাক্ষিক ক্রিকেট সিরিজ এখন আর মাঠে গড়ায় না। শেষবার ২০১২ সালে ভারত ও পাকিস্তান ওয়ানডে সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল। এর আগে ২০০৩ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত নিয়মিত দুই দল সিরিজ খেলতো।

ক্রিকেট পর্যবেক্ষক এবং বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থক সংস্থার একজন প্রতিনিধি শিহাব আহসান খান বিবিসি বাংলাকে বলেন এমন সিরিজ না হওয়া ক্রিকেট সমর্থকদের জন্য হতাশাজনক।

`ব্যক্তিগত স্পোর্টস ইভেন্ট, ধরেন টেনিসে রাফায়েল নাদাল ও রজার ফেদেরারের লড়াই বা নাদাল-জকোভিচের লড়াইয়ের চেয়েও কোন কোন ম্যাচ বেশি রোমাঞ্চকর হয়। তবে নাদাল-ফেদেরারের ম্যাচ বাড়তি কাটতি পায় তাদের ভারসাম্যপূর্ণ রাইভালরির জন্য।’

তিনি বলেন, `রাজনৈতিক ও ভৌগলিক কারণ থাকলেও দুই দলের ক্রিকেটীয় লড়াইয়ের সময় খুব কমই পার্থক্য দেখা যায়। ক্রিকেট দেখা যাদের কাছে বিনোদনের মাধ্যম, তাদের জন্য তাই এমন ভারসাম্যপূর্ণ রাইভালরি না দেখতে পাওয়াটা হতাশাজনক।’

সূত্র : বিবিসি

Previous articleঈশ্বরদীতে দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে করোনা, আক্রান্তের হার ৫০ শতাংশ
Next articleসোনারগাঁওয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে লাইনম্যানের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।