আব্দুল লতিফ তালুকদার: সদ্য শেষ হওয়া সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে নেপালকে ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিয়ে প্রথমবার শিরোপা ঘরে তুলল বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। খেলায় নেপালের জালে জোড়া গোল দেওয়া ফুটবলার টাঙ্গাইলের গোপালপুরের কৃষ্ণা রানী সরকার। দেশ বিদেশের বাঙালিদের প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। তার প্রশংসা করছে সমালোচকরাও। নানা প্রতিকূলতা-প্রতিবন্ধকতার দেয়ার পেরিয়ে অবিচল লক্ষ্যে, অদম্য মনোবল ও দৃঢ়সংকল্পকে সঙ্গী করে তিনি পাড়ি দিয়েছেন এই পথ।

একসময় যারা তাঁকে নিয়ে কটাক্ষ করতেন, এখন তারাই তাঁকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। বুধবার টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার উত্তর পাথালিয়া গ্রামে এ নিয়ে কথা বলেন তাঁর মা নমিতা রানী সরকার। কৃষ্ণার মা নমিতা রানী সরকার বলেন, বিদ্যুৎ না থাকায় খেলা দেখতে পারিনি। খেলা শেষে ছেলের মোবাইল ফোনে জয়ের কথা শুনে আনন্দে চোখে জল চলে আসে। আমার মেয়ের ফুটবল খেলা নিয়ে যারা একসময় কটাক্ষ করত, তারাই এখন প্রশংসা করছেন।

কৃষ্ণার বাবা বাসুদেব সরকার মেয়ের জয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘বাড়িতে বিদ্যুৎ না থাকায় পাশের গ্রামে গিয়ে খেলা দেখেছি। দারুণ খুশি হয়েছি। এলাকার মানুষ খেলা দেখে অনেক প্রশংসা করেছেন। অনেকেই আনন্দে বাড়িতে শুভেচ্ছা জানাতে আসছে। জয়ের পর তার ফেসবুক লাইভে এসে জয়ের আনন্দ সকলের সাথে ভাগাভাগি করে উচ্ছাস প্রকাশ করেছেন কৃষ্ণা, সাবিনারা।

ফুটবলে কৃষ্ণার হাতেখড়ি ২০১০ সালে উপজেলা পর্যায়ে বঙ্গমাতা ফজিলাতুনেচ্ছা মুজিব আন্তঃপ্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের মধ্য দিয়ে। কৃষ্ণার নেতৃত্বে তার নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উত্তর পাথালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় উপজেলা পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হয়। ওই টুর্নামেন্টে কৃষ্ণা সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়ায় সূতী ভিএম পাইলট মডেল হাইস্কুলের শরীর চর্চা শিক্ষক গোলাম রায়হান বাপনের নজরে পড়েন এ ফুটবলের রানি। ফুটবলে কৃষ্ণার অসাধারণ নৈপুণ্য দেখে শিক্ষক নিজের উদ্যোগে কৃষ্ণার পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর কৃষ্ণা সূতী ভিএম পাইলট মডেল হাইস্কুলে ভর্তি হয়েই ফুটবল চর্চার অবাধ সুযোগও পেয়ে যায় টাঙ্গাইলের এ কৃতী ফুটবলের রানি। পরে গোলপুরের সূতী ভিএম পাইলট মডেল হাইস্কুল কৃষ্ণার ফুটবল নৈপুণ্য আর বিশেষ ভূমিকায় জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা ফুটবল প্রতিযোগিতা ২০১১, ২০১২ এবং ২০১৩ সালে পর পর তিনবার জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। পরবর্তীতে জাতীয় পর্যায়ে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৪ বালিকা ফুটবল দল গঠন করা হলে কৃষ্ণাসহ একই স্কুল থেকে আরো দুই কিশোরী ফুটবলার বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৪ বালিকা ফুটবল দলেও জায়গা করে নেন।

২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক ফুটবলে কৃষ্ণার নেতৃত্বে প্রথমবারের মতো শিরোপা জেতে বাংলাদেশ। পরের বছর একই টুর্নামেন্টেও শিরোপা ঘরে তোলে বাংলাদেশ। তবে সেই দলে বয়সের কারণে ছিলেন না কৃষ্ণা। কিন্তু একই বছর ঢাকায় হওয়া এএফসসি অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবলের বাছাইয়ে গ্রুপ পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয়ে চূড়ান্ত পর্বে উত্তীর্ণ হয় বাংলাদেশের মেয়েরা। সেই দলের গর্বিত ফুটবলার কৃষ্ণা রানি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজ মল্লিক বলেন, ‘কৃষ্ণা এখন বাংলাদেশের গর্ব। বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের মাধ্যমে তাঁর উত্থান শুরু হয়। দেশে ফেরার পর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁকে সংবর্ধনা দেওয়া হবে।

Previous articleতাহিরপুর থানা পুলিশের ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠিত
Next articleরাজশাহীতে বিপুল সংখ্যক ইয়াবাসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।