বুধবার, মে ২৯, ২০২৪
Homeখেলাধুলাশ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আশা বাঁচিয়ে রাখল বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আশা বাঁচিয়ে রাখল বাংলাদেশ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সাকিব আল হাসান, তাসকিন আহমেদরা চাপে রাখলেও দারুণ এক সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কাকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দিয়েছিলেন চারিথ আসালাঙ্কা। রান তাড়ায় লিটন দাস ও তানজিদ হাসান তামিম দ্রুত ফিরলেও বাংলাদেশকে বিপদে পড়তে দেননি নাজমুল হোসেন শান্ত ও সাকিব। দুজনে সেঞ্চুরি মিস করলেও বাংলাদেশকে জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন। শেষ দিকে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিমকে ফিরিয়ে লঙ্কানদের আশার সঞ্চার হলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জেতা হয়নি। বাংলাদেশের ৩ উইকেটের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছেড়েছেন তাওহীদ হৃদয় ও তানজিম হাসান সাকিব। এ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের সাতে উঠে এসেছে সাকিবের দল। তাতে করে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আশা বাঁচিয়ে রাখল বাংলাদেশ।

২৮০ রান তাড়ায় তানজিদ হাসান তামিম শুরুটা করলেন দিলশান মাদুশঙ্কার ওভারে টানা দুই চারে। পরের ওভারে মাহিশ থিকশানার ওভারে এবার চার মারলেন লিটন দাস। ভালো শুরুর আভাস পেলেও উদ্বোধনী জুটিতে খুব বেশি রান যোগ করতে পারেনি বাংলাদেশ। মাদুশঙ্কার অফ স্টাম্পের বাইরের লেংথ ডেলিভারিতে উড়িয়ে মারার চেষ্টা করেছিলেন তানজিদ তামিম। তবে ব্যাটে-বলে ঠিকঠাক না হওয়ায় কভারে ক্যাচ দিয়ে ফিরতে হয়েছে তরুণ এই ওপেনার। পুরো বিশ্বকাপে ব্যর্থতার বৃত্তে থাকা তানজিদ তামিম এদিন আউট হয়েছেন ৫ বলে ৯ রান করে।

তানজিদ ফিরলেও দ্রুত রান তোলায় মনোযোগী ছিলেন লিটন। যদিও মাদুশঙ্কার শর্ট লেংথ ডেলিভারিতে পুল করতে গিয়ে ডিপ স্কয়ার লেগে ক্যাচ দিয়েছিলেন তিনি। তবে সেটা লুফে নিতে পারেননি কুশল পেরেরা। জীবন পেয়ে কাসুন রাজিথার ওভারে টানা দুই ছক্কা মেরেছেন লিটন। তবে ইনিংস বড় করতে পারেননি ডানহাতি এই ওপেনার। মাদুশঙ্কার দুর্দান্ত এক ইয়র্কারে লেগ বিফোর উইকেট হয়ে ফিরেছেন ২৩ রান করা লিটন।

দুই ওপেনারকে হারানোর পর শুরুতে খানিকটা ভুগছিলেন সাকিব ও শান্ত। যদিও সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নিজেদের মানিয়েছে নিয়েছেন এবং রানও তুলেছেন তারা দুজন। শ্রীলঙ্কার বোলারদের উপর চড়াও হয়ে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন শান্ত। পুরো বিশ্বকাপে ব্যর্থতার বৃত্তে ঘুরপাক খাওয়া বাঁহাতি এই ব্যাটার পঞ্চাশ ছুঁয়েছেন ইনিংস পর। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হাফ সেঞ্চুরি পেয়েছিলেন। মাঝে ৬ ইনিংসে তার ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ২৮ রান।

শান্তর পর হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন সাকিবও। দুশমন্থ চামিরার বলে চার মেরে ক্যারিয়ারের ৫৬তম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন তিনি। এবারের বিশ্বকাপে যা তার প্রথম। হাফ সেঞ্চুরির পর তারা দুজনই দ্রুত রান তুলতে থাকেন। তাতে করে সেঞ্চুরির পথেও ছিলেন তারা। তবে সেঞ্চুরির আগে ফিরে যেতে হয়েছে সাকিবকে। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের স্লোয়ার ডেলিভারিতে টপ এজ হয়ে চারিথ আসালঙ্কার হাতে ক্যাচ দিয়েছেন। সাকিবকে ফিরতে হয়েছে ৮২ রানের ইনিংস খেলে।

প্রথম ইনিংসের ঘটনার জন্য সাকিবকে আউট করে টাইম দেখিয়েছেন ম্যাথিউস। সেঞ্চুরির পথে হাঁটতে থাকা শান্তকেও ফিরিয়েছেন ম্যাথিউস। ডানহাতি এই মিডিয়াম পেসারের বলে কাট করতে গিয়ে বোল্ড হয়েছেন ৯০ রানের ইনিংস খেলা শান্ত। পয়েন্ট টেবিলের সাতে উঠতে দ্রুত রান তুলতে ব্যস্ত ছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। তাতে করে তাদের দুজনের কেউই ম্যাচ শেষ করতে পারেননি। মাদুশঙ্কার বলে বোল্ড হয়ে ফিরতে হয় ১০ রান করা মুশফিককে। ২২ রান করা মাহমুদউল্লাহকে বোল্ড করেছেন থিকশানা। মেহেদী হাসান মিরাজ ফিরলেও বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত করেন হৃদয় ও তানজিম।

এর আগে টসে জিতে বল হাতে নেমে উড়ন্ত সূচনা পায় বাংলাদেশ। প্রথম ওভারেই কুশল পেরেরাকে ফেরান শরিফুল ইসলাম। তার বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দেন পেরেরা। ডাইভ দিয়ে ক্যাচটি লুফে নেন মুশফিকুর রহিম। ফলে চার রানে ফিরে যান পেরেরা। পাঁচ রানে এক উইকেট পড়ার বিপর্যয় কাটিয়ে দলকে এগিয়ে নেন কুশল মেন্ডিস এবং পাথুম নিশাঙ্কা। দেখেশুনে খেলতে খেলতে দলের রান বাড়াতে থাকেন এই দুজন। শ্রীলঙ্কার রান পঞ্চাশ পেরিয়ে যায়। এই দুজনের ৬১ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব আল হাসান।

৩০ বলে ১৯ রান করা মেন্ডিস সাকিবের বলে লং অনে ক্যাচ তুলে দেন। দৌড়ে এসে লঙ্কান অধিনায়কের ক্যাচটি লুফে নেন শরিফুল ইসলাম। তারপরের ওভারেই নিশাঙ্কাকে বিদায় করেন তানজিম হাসান সাকিব। বিশ্বকাপ অভিষেকে এটাই এই পেসারের প্রথম উইকেট। দারুণ ছন্দে খেলতে থাকা নিশাঙ্কাকে ইনসাইড এজে বোল্ড করে ফেরান তানজিম সাকিব। ফেরার আগে তার ব্যাটে আসে ৩৬ বলে আটটি চারে ৪১ রান। দলীয় ৭২ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা।

এরপর সাকিবের ফুলার লেন্থ ডেলিভারিতে ডাউন দ্য ট্রেক এসে মিড উইকেটের উপর দিয়ে বড় শট খেলতে চেয়েছিলেন সাদিরা সামারাবিক্রমা। তবে ব্যাটে-বলে ঠিকমতো না হলে তা সোজা চলে যায় ডিপ স্কয়ার লেগে থাকা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাতে। আর তাতে ৪১ রানে শেষ হয় সামারাবিক্রমার ইনিংস। এরপর উইকেটে এসেছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস। তবে হেলমেট ঠিক না থাকায় ব্যাটিং করতে দেরি হওয়ায় তাকে টাইম আউট দেয়া হয়। ফলে ব্যাটিং করার আগেই ফিরে যেতে হয় তাকে। ম্যাথিউস যে হেলমেট নিয়ে নেমেছিলেন সেটা নিয়ে অস্বস্তি বোধ করছিলেন তিনি।

টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় যে ফিতা দিয়ে হেলমেট আটকে রাখা হয় সেটি কাজ করছিল না। পরের আরেকটি হেলমেট আনা হয়। সেটিও পছন্দ হয়নি এই লঙ্কান ব্যাটারের। আইসিসির আইন অনুযায়ী একজন ব্যাটার আউট হওয়ার পর বা কোনো কারণে মাঠ ছাড়ার পর নতুন ব্যাটার প্রথম বল খেলার আগে তিন মিনিট সময় পাবেন। এর বেশি দেরি হলে তাকে টাইমড আউট হয়ে ফিরতে হবে। তবে এবারের বিশ্বকাপের নিয়ম অনুযায়ী ২ মিনিট সময় দেয়া হয় ব্যাটারদের। এই সময় অতিক্রম করে যাওয়ায় ম্যাথিউসকে আউট হয়ে যেতে হয়।

দ্রুত সামারাবিক্রমা ও ম্যাথিউস ফেরার পর ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে নিয়ে ৭৮ রানের জুটি গড়েছিলেন আসালাঙ্কা। এই জুটি ভেঙেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ধনঞ্জয়া মিরাজের লেন্থ বলে ডাউন দ্য উইকেটে এসে খেলতে চেয়েছিলেন। তবে বলের লাইন মিস করেন। বল চলে যায় মুশফিকুর রহিমের হাতে। প্রথম দফায় স্টাম্পিং করতে পারেননি মুশফিক। বল হাতে নেয়ার আগেই গ্লাভস দিয়ে তিনি স্টাম্প ভেঙে দিয়েছিলেন। যদিও এরপর বল হাতে নিয়ে স্টাম্প উপড়ে স্টাম্পিং পূর্ণ করেন মুশফিক। ফলে ফিরতে হয় ৩৬ বলে ৩৪ রান করা ডি সিলভাকে।

এরপরও নিচের সারির ব্যাটারদের নিয়ে লড়াই চালিয়ে গেছেন আসালাঙ্কা। তিনি সপ্তম উইকেটে মাহিশ থিকশানাকে নিয়ে যোগ করেন ৪৫ রান। শরিফুল ইসলামের বাউন্সারে আপার কাট করতে গিয়ে ডিপ থার্ড ম্যান অঞ্চলে নাসুম আহমেদের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন থিকশানা। আর তাতেই ভেঙেছে আসালাঙ্কার সঙ্গে তার ৪৫ রানের জুটি। এরপর আসালাঙ্কা ১০১ বলে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন দুশমান্থ চামিরাকে নিয়ে। সেঞ্চুরির পর বেশিক্ষণ থিতু হতে পারেননি এই লঙ্কান ব্যাটার।

তানজিম সাকিবের করা শর্ট অব লেন্থ ডেলিভারিতে ডিপ কাভারের উপর দিয়ে খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিয়েছেন লিটন দাসের হাতে। এরপরের ওভারে প্রথম বলেই চামিরা রান আউট হলে শ্রীলঙ্কার ইনিংস গুটিয়ে যায় ২৭৯ রানে। ফলে বাংলাদেশের লক্ষ্য দাঁড়িয়েছে ২৮০ রানের।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

শ্রীলঙ্কা- ২৭৯/১০ (৪৯.৩ ওভার) (নিশাঙ্কা ৪১, মেন্ডিস ১৯, সামাবিক্রমা ৪১, ধনঞ্জয়া ৩৪, চারিথ ১০৮; তানজিম ৩/৮০, সাকিব ২/৫৭)

বাংলাদেশ- ২৮২/৬ (৪১.১ ওভার) (তানজিদ তামিম ৯, লিটন ২৩, শান্ত ৯০, সাকিব ৮২, মাহমুদউল্লাহ ২২)

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments