কাগজ প্রতিবেদক: কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মীদের মাঝে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনা না ঘটলেও পুলিশের গুলির শব্দে শহীদ মিয়া (৭০) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর বাজিতপুর উপজেলার সরারচর এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, সন্ধ্যার পর আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গুলিবর্ষণের সময় শহীদ মিয়া সরারচর পুরানবাজারে নিজের দোকানে বসা ছিলেন। তখন গুলির শব্দে আতঙ্কিত হয়ে তিনি নিচে পড়ে যান। দ্রুত তাকে জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের সংসদ সদস্য প্রার্থী শেখ মজিবুর রহমান ইকবাল জানান, বাজিতপুরের সরারচরে তার বাড়ি ঘিরে পুলিশ ব্যাপক গুলিবর্ষণ করে। এ সময় গুলির শব্দে আতঙ্কিত হয়ে সরারচর ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সভাপতি মো. শহীদ মিয়া হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

তিনি আরো অভিযোগ করেছেন, পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তার বাড়ির চারপাশে গুলি চালায় এবং সরারচর পুরান বাজার এলাকায় বিএনপি কর্মীদেরকে গণপিটুনি দেয়।

বাজিতপুর থানার ওসি (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম জানান, সরারচরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে গুলির শব্দে আতঙ্কিত হয়ে মারা যাবার বিষয়টি তার জানা নেই বলে জানান তিনি।