এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাট সদরের বানিয়াপাড়া এলাকায় বগুড়া থেকে জয়পুরহাট অভিমুখে আসা যাত্রীবাহী বাস মীর পরিবহন নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পার্শ্বে খাদে পড়ে ঘটনাস্থলেই ৩ শিশুসহ ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ৫ জনের পরিচয় পাওয়া গেলেও বাঁকি ৩ জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। নিহতরা হলেন, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার রতনপুর গ্রামের সামসুদ্দিনের স্ত্রী জাকিয়া (৬০), কড়িয়া গ্রামের হুমায়ুন কবিরের ৭ মাসের শিশুকন্যা হুমাইদা, কালাই উপজেলার পাঁচশিরা গ্রামের আবু বক্করের স্ত্রী হেনা পারভীন (৪৫), গাইবান্ধা জেলার আমবাড়ির আব্দুল জলিলের মেয়ে শারমিন (১৭), রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার আলামপুর গ্রামের দিলীপ মুর্মুর শিশুকন্যা রীপা মুর্মু (৩)। নিহত অপর ৩ জনের পরিচয় পাওয়া যায়নি। নিহতদের মধ্যে ৫ জন মহিলা ও ৩ জন শিশু। এ ঘটনায় অহত হয়ে ২৬ জন জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি আছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। ঘটনাস্থল ঘুরে জানা গেছে, বগুড়া থেকে জয়পুরহাটের দিকে আসা যাত্রীবাহী বাস মীর পরিবহন (এমপি) (ঢাকা-মেট্রো-জ-০৪-০৩৫০) বাসটি দুপুর দেড়টার দিকে বাসষ্ট্যান্ড থেকে ৩ কিঃমিঃ দুরে বানিয়াপাড়া নামক স্থানে পুলিশ বক্সের নিকট একটি ছোট ব্রীজ পার হবার সময় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে রাস্তার পার্শ্বে খাদে পড়ে উল্টে যায়। এসময় ঘটনাস্থলেই ৩ শিশুসহ ৮ জন নিহত হয়। নিহত ৮ জনের মধ্যে ৫ জন মহিলা ও ৩ জন শিশু। ৩ শিশুর মধ্যে ২ জন মেয়ে ও ১ জন ছেলে। নিহত ৮ জনের মধ্যে ৫ জনের পরিচয় পাওয়া গেলেও ৩ জনের পরিচয় এখন পর্যন্ত জানা যায়নি। আহত হয়ে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি আছে ২৬ জন। আহতরা হলেন, জয়পুরহাট শহরের চিত্রাপাড়া মহল্লার টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের ছাত্রী সোহানা আকতার মিশু (২২), বিশ্বাসপাড়া মহল্লার তারিন (৫৬), খন্ধসঢ়;জনপুর মহল্লার সঞ্জয় বিশ্বাস (৪০), বাগিচাপাড়া মহল্লার আরমান (৩২), সাহেবপাড়া মহল্লার অরুন (৩০), ধারকী গ্রামের ফেরদৌস (৩৭), জেলার পাঁচবিবি উপজেলার কড়িয়া গ্রামের আয়েশা সিদ্দিকা (২০),কালাই উপজেলার কাদিরপুর গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিক (৪৬), আওড়া গ্রামের আলাউদ্দিন (৩০), মতিউর (৩৫), আলাউদ্দিন (৩৪), বগুড়া জেলা সদরের কালিতলার মীর্জা এমরানুল কবির (৪০),কাহালু উপজেলার আকালিয়া গ্রামের রাসেল (৩৫), গাবতলী উপজেলার আলম (৪৬), সারিয়াকান্দি উপজেলার আবুল হোসেন (৫২), শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলার পপি (২৮), গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার জবা (৩৫), রংপুর জেলার পীরগঞ্জের প্রমীলা (২৮), সিরাজগঞ্জ জেলার দত্তবাড়ী এলাকার মা ও মেয়ে সাজেদা (৬০) ও সালেহা (৩০), আসলাম (৩৮), নওগাঁ জেলার বদলগাছী উপজেলার সিহাবুল (২৪), ধামুইরহাট উপজেলার সলপী গ্রামের মুকুল (৩৬), আয়না (৩০), মুস্তাহিন (৩), অঞ্জাতনামা শিশু (৩)। আহতদের মধ্যে ৫ জনের অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাসের আহত যাত্রীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাসটি ব্রীজ পার হবার সময় হঠাৎ করেই উল্টে যায়। দ্রুত গতি থাকায় নিয়ন্ত্রন হারিয়ে পার্শ্বে খাদে পড়ে উল্টে যায়। জয়পুরহাট সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত মোমিনুল হক জানান, আজ দুপুর দেড়টার দিকে বগুড়া থেকে জয়পুরহাট আসার পথে বাসটি বানিয়াপাড়া পুলিশ বক্সের নিকট ছোট একটি ব্রীজের কাছে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে উল্টে যায়। এসময় ঘটনাস্থলে ৮জন মারা যায়। আহতদের

হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত নিহত ৩ জনের পরিচয় জানা যায়নি। এ ঘটনায় গাড়ীর ড্রাইভার ও হেলপার এখন পর্যন্ত পলাতক আছে। জয়পুরহাটে হঠাৎ করে দুপুর বেলায় একসঙ্গে ৮ জন মারা যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া পড়েছে। জেলার সর্বত্রই এখন একই আলাপ চলছে।পুরো জেলাবাসী শোকে কাতর।

Previous articleনদীকে আর ভাঙ্গতে দেয়া হবেনা: পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী
Next articleনুসরাতের আগে সেই অধ্যক্ষের শ্লীলতাহানির শিকার হন আরও এক ছাত্রী
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।