আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর (বেলেরভিটা) গ্রামের দরিদ্র সেলিম মিঞা- গোলাপী বেগম দস্পত্তির দ্বিতীয় পুত্র (শিশু) সাদিক আল- আহসান ওরফে সাদিক মিঞা বাঁচতে চায়। তাকে বাচাতে উন্নত চিকিৎসা করা দরকার। এতে কয়েক লাখ টাকার প্রয়োজন। সাদিকের চিকিৎসার্থে সহযোগিতা করতে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক (রাকাব) ধর্মপুর শাখার সঞ্চয়ি হিসাব নম্বর- ১০২৪৭, বিকাশ নম্বর-০১৯৩০৫১৫৭০৮ (অনুঃ)। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ৪ এপ্রিল নিজ গৃহে স্বাভাবিকভাবে জন্ম গ্রহন করে সাদিক। জন্মের পর সাদিকের মাথার এক জায়গায় একটু উঁচু (টিউমার) আকৃতি দেখা দেয়ায় রংপুরের একজন শিশু বিশেষজ্ঞের (চিকিৎসক) চিকিৎসা গ্রহণ করা হয়। সে সময় ডাক্তার সাদিকের শরীরে ৫টি ইনজেকশন পুশ করলে ধীরে ধীরে শিশু সাদিবকের পুরো মাথার পরিধিসহ মাথার ওজন বড়তে থাকে। মাত্র ১ বছর ১৩ দিন বয়সের শিশু সাদিকের শুধু মাথার ওজন বর্তমানে ৯ কেজি (প্রায়)। আর সম্পূর্ণ সাদিকের ওজন হবে ১০ কেজি। মাত্র ৬-৭ শতক জায়গায় বাস্তভিটা ছাড়া শিশু সাদিকের পিতা সেলিম মিঞার আর কোন সম্পদ নেই। দরিদ্র সেলিম মিঞা পেশায় দিনমজুর আর তার স্ত্রী গৃহিনী। উক্ত বিকাশ নম্বর সম্বলিত ফোন নম্বরটি শিশু সাদিকের মামা এনামুলের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, ফুটফুটে শিশু সাদিককে নিয়ে আমরা সবাই হতাশাগ্রস্থ। ডাক্তার বলেছেন, উন্নত চিকিৎসা করলে শিশু সাদিককে বাচানো সম্ভব। এতে অনেক টাকার দরকার। কিন্তু, এতো টাকা পাবো কই। সাদিকের মা গোলাপী বেগম জানান, শিশু সাদিককে নিয়ে চরম হতাশায় আছি। গৃহস্থলির কাজ-কর্ম, জীবন-জীবিকা, স্বামী সেলিম মিঞা, বড় ছেলে নয়ন মিঞা (৬)কে তেমন কোন সময় দিতে পারি না। সারাক্ষণ সাদিককে নিয়েই থাকতে হয়। তিনি কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ না করে চান শুধুশিশু সাদিককে কীভাবে সুস্থ্য করে তোলা যায়। তিনি মহান সৃষ্টিকর্তার উপর সে বিশ্বাস রেখেই সেবা- যতœ চালিয়ে যাচ্ছেন। কান্না বিজড়িত কন্ঠে গোলাপী বেগম বলেন, আমি তো সাদিকের মা। আমি কি করে সহ্য করি নিঃস্পাপ শিশুর অসহনীয় কষ্ট। প্রত্যেক দিন একজন এনজিওর ম্যাডাম (এনজিও কর্মী) এসে সাদিককে কোলে নিয়ে আদর করে যান। পাড়া-পড়শীর অনেকেই আসে সাদিককে দেখতে। শিশু সাদিকের পিতা সেলিম মিঞা জানান, আমি শিশু চিকিৎকের স্মরণাপন্ন হয়েছিলাম। সাদিকের সুস্থ্যতার জন্য। তা যদি আমার ভুল হয়ে থাকে, তবে আল্লাহ্ধসঢ়; আমাকেই শাস্তি দেউক (দিক)। কিন্তু, আমার ভুলের মাশুল নিঃস্পাপ সাদিককে দিতে হবে ক্যান্ধসঢ়; (কেন্ধসঢ়;)। আর যদি ভুলটা করে থাকেন সেই ডাক্তার। তবে আল্লাহ্ধসঢ়; তাকেই যদি শাস্তি দেন। তাহলে যার ভুলের মাশুল সেই ভুগত। সেলিম-গোলাপী (স্বামী-স্ত্রী) বলেন, সাদিককে নিয়ে আমরা সারারাত ঘুমাতে পারিনা। অসহ্য যন্ত্রণায় সাদিক শুধু কাঁদে আর কাঁদে। তা দেখে আমাদের খাওয়া, দাওয়া, নিদ্রা আর আরাম আয়েশ নেই। সাদিকের মা-বাবার ১০ বছরের দাম্পত্য জীবনে সংসারে এসেছে ২ পুত্র। তাদের প্রথম পুত্র নয়ন মিঞার বয়স ৬ বছর। সে ধর্মপুর ২ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশু শ্রেণিতে অধ্যায়ন করছে। আর দ্বিতীয় পুত্র শিশু সাদিককে নিয়ে তাদের আর্তনাদের অন্ত নেই। শিশু সাদিককে সু-চিকিৎসায় সুস্থ্যতার মাধ্যমে করুণ আর্তনাদগ্রস্থ অসহায় সেলিম মিঞার পরিবারের প্রতি সমার্তনাদ দেখিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেই এনজিও কর্মী জানান, বর্তমান সরকার জনবন্ধব সরকার। এ সরকার শিশুদের জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করেই যাচ্ছে। নিঃস্পাপ শিশু সাদিককে উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ্য করে তাকে পৃথিবীতে বেঁচে থাকার সুযোগটিও যদি সেসব শিশু বান্ধব পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত করেন। তবে, ফুটফুটে সাদিকের জীবনে আসতে পারে পৃথিবীতে পণঃজনমের একটি অশেষ দৃষ্টান্ত। কারণ, আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। একই কথা জানান, স্থানীয় জনসাধারণ।

Previous articleউখিয়ায় বিজিবির অভিযানে ১০ হাজার ইয়াবা সহ আটক ২
Next articleবাগেরহাটে নুসরাত হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।