জি এম মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে বুড়িভন্দ্রা নদী খননের সহকারী ঠিকাদার শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বসতবাড়ী উচ্ছেদের নামে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে। বুধবার দুপুরে সরেজমিনে মঙ্গলকোট ব্রীজের সন্নিকটে বুড়িভন্দ্রা নদের দক্ষীন পাড়ের জেলে পড়ায় উচ্ছেদ হওয়া ঘরবাড়ী দেখতে গেলে ক্ষতিগ্রস্থ ইনসার আলী খাঁর ছেলে ইসমাইল,সলেমান শেখের ছেলে কুরবান,হাইদার মাষ্টার ভিক্ষুক আঞ্জুয়ারা বেগম সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, বুড়িভন্দ্রা নদী খননের সহকারী ঠিকাদার শফি পাউবোর নিয়ম-নীতি উপপেক্ষা করে গায়ের জোরে বাড়ী উচ্ছেদের নামে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি করছেন। আমরা প্রায় ২০/২৫ বছর ধরে এই জায়গায় বাড়ী নির্মান করে বসবাস করে আসছি। নদী খননের সার্থে উচ্ছেদকে স্বাগত জানালেও তাদের অভিযোগ পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন এসে নদীর সীমানা নির্ধারন ও তীর চিহ্ন দিয়ে যাওয়া সত্বেও শফি এটি উপেক্ষা করে চিহ্ন ছাড়া বেশী ভেঙ্গে দিচ্ছে। শুধু আমারা নয় তার বিরুদ্ধে যারা প্রতিবাদ করতে গেছে তাদের বাড়ী চিহ্ন ছাড়া বেশী ভেঙ্গে দিয়েছে। যারাই তাকে অর্থের মাধ্যমে প্রভাবিত করেছে তাদের বাড়ী চিহ্ন ছাড়া কম বেঙ্গেছে। স্থানীয় যুবলীগের নেতা আজিজুর রহমান বলেন, ঠিকাদার শফি পাউবোর নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে স্বজন প্রীকি করছে। সে বুলুর ঘরটি না ভেঙ্গে সেটি অক্ষাত রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। জেলেপাড়ার বাসিন্দারা শফির এহেন কর্মকান্ডের শাস্তির দাবী জানিয়েছে।
এব্যাপারে সহকারী ঠিকাদার শফিকুল ইসলাম বলেন,আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য নয়,তার দৃষ্টিতে সব ঠিক আছে ।
কেশবপুর উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা সাঈদুর রহমান জানান,পাউবোর নিয়ম বহির্বত কাজ করলে সে যেই হোক তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

Previous articleদক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী গোপাল চাঁদ বারুণী মেলা শুরু
Next articleকেশবপুরে অবৈধ ঘের ও পুকুর মালিকদের স্বেচ্ছাচারিতায় সরকারী রাস্তার কাজ বন্ধ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।